কাশ্মীর অবরুদ্ধের ৩১ দিন

আতঙ্কে বন্ধ দোকানপাট

প্রকাশ: ০৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯

সমকাল ডেস্ক

ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীর এক মাস হলো অবরুদ্ধ। এখনও স্বাভাবিক হয়নি সেখানকার জনজীবন। গত ৫ আগস্ট জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা কেড়ে নিয়ে রাজ্যটিকে দ্বিখণ্ডিত করে ভারতের বিজেপি নেতৃত্বাধীন কেন্দ্রীয় সরকার। বিশ্বের সবচেয়ে সামরিকায়িত অঞ্চলটিতে অতিরিক্ত ৫০ হাজার সেনা মোতায়েন করা হয়। বন্ধ করে দেওয়া হয় টেলিফোন-ইন্টারনেট সংযোগ। এখনও এ অবস্থা চলতে থাকায় আতঙ্কে দোকানপাট খুলছেন না ব্যবসায়ীরা। স্কুলগুলো খুলে দেওয়া হলেও অভিভাবকরা ভয়ে সন্তানদের সেখানে পাঠাচ্ছেন না। অফিস-আদালতেরও একই চিত্র। গতকাল বৃহস্পতিবার পর্যন্ত জনগণের চলাফেরা নিয়ন্ত্রণে রেখেছিল সেনারা। খবর রয়টার্সের।

কর্তৃপক্ষ বলছে, দিনের বেলায় শ্রীনগরের ৯০ শতাংশ এলাকা থেকে জনগণের চলাফেরায় নিয়ন্ত্রণ তুলে নেওয়া হয়েছে। টেলিফোন-ইন্টারনেটও অনেক জায়গায় স্বাভাবিক। মোহাম্মদ আইয়ুব নামের শ্রীনগরের এক ব্যবসায়ী বলেন, 'মানুষের প্রয়োজনেই সন্ধ্যা পর্যন্ত দোকান খোলা রাখতে চেয়েছিলাম। সেনারা এসে বলল, দিনে দোকান খোলা রাখুন, কিন্তু সন্ধ্যায় পারবেন না।'

গতকাল মানবাধিকার সংগঠন অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল ভারত সরকারকে কাশ্মীরের টেলিফোন ও ইন্টারনেট সংযোগ পুনরায় চালু করার আহ্বান জানিয়েছে। তবে এই কঠোর নিয়ন্ত্রণারোপে বিপাকে পড়েছেন রোগীরা। কয়েকজন ওষুধের দোকানি জানিয়েছেন, বেশ কিছু জরুরি ওষুধের

সরবরাহ ব্যাহত হচ্ছে। বুধবার শ্রীনগরের জওহর নগরে অনেক মানুষকে জরুরি ওষুধের খোঁজ করতে দেখা গেছে।