২ হাজার বছরের পুরনো কবরে 'স্মার্টফোন'

প্রকাশ: ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯      

সমকাল ডেস্ক

এখন থেকে দুই হাজার বছর আগে মানুষ কি স্মার্টফোন ব্যবহার করত? জানা ইতিহাসে তেমন কোনো নজির নেই। তবে রাশিয়ায় দুই হাজার ১৩৭ বছরের পুরনো কবর খুঁড়ে পাওয়া গেছে একটি 'স্মার্টফোন'। এ তো চরম বিস্ময়। তাও আবার রাশিয়ার সবচেয়ে বড় বিদ্যুৎকেন্দ্রের জলাধারের নিচে কবরটির অবস্থান। কীভাবে সেখানে স্মার্টফোন পাওয়া গেল, তার কোনো সদুত্তর মেলেনি। রাশিয়ার সায়ানো-শুশেনস্কয়া বাঁধের কাছের আলা জলাধার থেকে পানি সরিয়ে দেওয়া হয়। পানি সরতেই দেখা যায় কয়েকটি প্রাচীন কবরের। এরপর সেখানে খনন চালানো হয়। এর মধ্যে এক তরুণীর কবরে পাওয়া যায় একটি স্মার্টফোন, যার কাভারে পাওয়া যায় মূল্যবান রত্ন। এর পর থেকেই বিষয়টি নিয়ে রীতিমতো হইচই পড়ে গেছে।

প্রত্নতাত্ত্বিকরা বলেছেন, কবরটি ২ হাজার ১৩৭ বছর আগে জিওনগু শাসনামলের এক ধনী ও সল্ফ্ভ্রান্ত হুন তরুণীর। ওই তরুণী দক্ষিণ রাশিয়ার গ্রামীণ অঞ্চলে থাকতেন। কবরগুলো খ্রিষ্টপূর্ব তৃতীয় শতকের। কবরটি নাতাশা নামের কোনো এক ধনী পরিবারের সন্তানের। স্মার্টফোনের মতো দেখতে বস্তুটি আদতে তার পোশাকে সেঁটে রাখা হয়েছিল। এটি কালো রত্ন পাথরে খচিত। দামি পাথরগুলো সারিবদ্ধভাবে বসানো হয়েছিল।

প্রত্নতাত্ত্বিক ড. পাভেল লিওস বলেন, নাতাশার কবরটি হুন-যুগের (জিওনগু)। সেখানে স্মার্টফোন পাওয়ায় ব্যাপারটি এখন সবচেয়ে আকর্ষণীয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। ড. লিওস আরও বলেন, ওই কবরের হাড়গোড়ের সঙ্গে বেল্ট ছিল। বেল্টটি চীনের উজহু মুদ্রায় সজ্জিত ছিল। আর সে কারণে এটি কোন সময়ের, তা জানতে সুবিধা হয়েছে। রাশিয়ার আলাতে নেক্রোপলিসের কাছে বাঁধের উজানের এই জলাধারে পুরনো কবরটির সন্ধান মিলেছে পানির ৫৬ ফুট নিচে। সেখানে আশপাশে ১১০টি কবরের সন্ধান মিলেছে। তবে কেউ কেউ বলছেন, ৩২টি কবরের সন্ধান মিলেছে। রাশিয়া সেন্ট পিটার্সবার্গ ইনস্টিটিউট অব ম্যাটেরিয়াল হিস্ট্রি কালচারের ড. মেরিনা কিউলুনোভাস্কায়া বলেন, এটি চাঞ্চল্যকর একটি ঘটনা। আমরা অবিশ্বাস্য রকম ভাগ্যবান। কারণ ধনী হুন যাযাবরদের প্রাচীন কবরগুলো পেয়েছি। এসবের মধ্যেই এখন প্রশ্ন একটাই- ওই  কবরে স্মার্টফোনের মতো যে বস্তুটি পাওয়া গেছে সেটি আসলে কী? সূত্র :মেট্রো।