ছাত্র বিক্ষোভের উত্তাপে মুলতবি রাজ্যসভা

প্রকাশ: ২০ নভেম্বর ২০১৯      

সমকাল ডেস্ক

হোস্টেলে ফি বাড়ানোর প্রতিবাদে দিল্লির জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ে (জেএনইউ) ছাত্র বিক্ষোভ ঘিরে কংগ্রেসসহ বিরোধীদের তোপের মুখে মুলতবি রাখা হয় ভারতের পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ রাজ্যসভা। মঙ্গলবার বিরোধীরা প্রতিবাদ শুরু করলে দুপুর ২টা পর্যন্ত অধিবেশন মুলতবি রাখা হয়। খবর ইন্ডিয়া টাইমসের।

হোস্টেল ফি বাড়ানোর প্রতিবাদে কয়েকদিন ধরে উত্তাল ছিল জেএনইউ ক্যাম্পাস। ছাত্র বিক্ষোভ দমনে নামলে প্রতিবাদীদের সঙ্গে দফায় দফায় সংঘর্ষ বাধে পুলিশের। রোববার ক্যাম্পাসে তাদের সঙ্গে সংঘর্ষে বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী আহত হন। আটক করা হয় শতাধিক শিক্ষার্থীকে। তবে আটকের কথা অস্বীকার করেছে দিল্লি পুলিশ। রাজ্যসভার শীতকালীন অধিবেশনে মঙ্গলবার জেএনইউর শিক্ষার্থীদের ওপর দিল্লি পুলিশের লাঠিচার্জকে 'দুর্ভাগ্যজনক' আখ্যা দিয়ে ঘটনার উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত দাবি করেন বিএসপির সংসদ সদস্য দানিশ আলি। তবে আলোচনার বিষয় হিসেবে তালিকাভুক্ত না থাকায় সেই প্রসঙ্গে তার বক্তব্য মাঝপথে থামিয়ে দেন রাজ্যসভার স্পিকার ওম বিড়লা। রাজ্যসভার অধিবেশন মুলতবি প্রসঙ্গে তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও'ব্রায়েন বিজেপির দিকেই অভিযোগের আঙুল তুলেছেন।

এর আগে সোমবার বিক্ষোভকারী শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পার্লামেন্ট ভবনের দিতে পদযাত্রা শুরু করলে মাঝপথে পুলিশ তাদের থামিয়ে দেয়। জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ হোস্টেল ফি বাড়ানোয় সিঙ্গেল রুমের ভাড়া মাসে ১০ রুপি থেকে ৩০০ রুপি হয়েছে। ডাবল সিটের রুমের ভাড়া ২০ রুপি থেকে হয়েছে ৬০০ রুপি। একই সঙ্গে মেস সিকিউরিটি ফি বাবদ জমার পরিমাণ পাঁচ হাজার ৫০০ রুপি থেকে বাড়িয়ে ১২ হাজার রুপি করা হয়েছে। বিক্ষোভ সামাল দেওয়ার উপায় হিসেবে ফি বৃদ্ধি কিছুটা কাটছাঁট করা হলেও তা দরিদ্র শিক্ষার্থীদের নাগালের বাইরে রয়েছে বলে দাবি আন্দোলনকারীদের।