করোনাভাইরাস মহামারির কারণে বিশ্বজুড়ে মানবিক বিপর্যয় ঘটতে পারে বলে সতর্ক করে দিয়েছেন জাতিসংঘের মানবাধিকার কমিশনের প্রধান মিশেল ব্যাশেলে। ভাইরাস মোকাবিলার নামে অনেক রাষ্ট্র আইন-কানুনের তোয়াক্কা করছে না। এসব রাষ্ট্রে মানবাধিকার বিপর্যয়ের শঙ্কা তৈরি হয়েছে। গতকাল সোমবার এক বিবৃতিতে এমন মন্তব্য করেন তিনি। খবর এএফপির।

বিবৃতিতে ব্যাশেলে বলেছেন, 'ভাইরাস মোকাবিলায় অনেক দেশই ব্যকিক্রমী পদক্ষেপ নিয়েছে ও জরুরি অবস্থা জারি করেছে। এ পরিস্থিতিতে যেন কোনোভাবেই মানুষের মৌলিক অধিকার লঙ্ঘন করা না হয়। জরুরি ক্ষমতা যেন বিরোধী মত দমন বা জনগণকে নিয়ন্ত্রণে সরকারের হাতিয়ার না হয়। এ ছাড়া সরকারগুলো যেন মহামারিকে কাজে লাগিয়ে ক্ষমতা চিরস্থায়ী করার পথে না হাঁটে।' ব্যাশেলে বিবৃতিতে আরও বলেছেন, জরুরি ক্ষমতা শুধু মহামারি মোকাবিলায় কাজে লাগানো যেতে পারে, তার বেশি নয়।

ব্যাশেলে অবশ্য স্বীকার করেন, জরুরি স্বাস্থ্য সংকট মোকাবিলায় রাষ্ট্র জনগণের কিছু অধিকার খর্ব করতে পারে। তবে এ ধরনের পদক্ষেপ যাতে বৈষম্যমূলক না হয়, তার দিকে লক্ষ্য রাখতে বলেছেন তিনি। যতটা পারা যায় এ ধরনের পদক্ষেপ হতে হবে সংক্ষিপ্ত। তবে ব্যাশেলে বলেছেন, 'পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ থেকে আমাদের কাছে মানবাধিকার লঙ্ঘনের খবর আসছে। কোথাও পুলিশ বা নিরাপত্তা বাহিনী মানুষকে লকডাউন বা কারফিউ মানানোর নামে অতিরিক্ত বল প্রয়োগ করছে। খেটে খাওয়া গরিব মানুষের ওপর নিরাপত্তা বাহিনী বেশি বল প্রয়োগ করছে। কোথাও তাদের গুলি করা হচ্ছে, কোথাও জেলখানায় ঢোকানো হচ্ছে। অথচ এসব মানুষ খাবারের সন্ধানে বের হয়েছিল।'

লকডাউন বা কারফিউর মতো পরিস্থিতি অন্য রোগের চিকিৎসায় অন্তরায় সৃষ্টি করেছে। বিশেষ করে অন্তঃসত্ত্বা নারীরা হাসপাতালে যেতে ও চিকিৎসা পেতে অনেক জায়গায় বাধার মুখে পড়েছেন। ব্যাশেলে মনে করেন, অনেক সময় পর্যাপ্ত রাষ্ট্রীয় পদক্ষেপের অভাবে অনেক মানুষ মারাও যাচ্ছেন। আবার অনেক দেশে লকডাউন অমান্য করার কারণে গণগ্রেপ্তারের মতো ঘটনা ঘটছে। অথচ জেলখানাগুলো করোনাভাইরাসের উচ্চ ঝুঁকিতে রয়েছে। জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক প্রধান সতর্ক করে বলেছেন, মহামারির সময় ভুল তথ্যের কারণে অনেক নিরপরাধ ব্যক্তি রাষ্ট্রীয় নিপীড়নের শিকার হতে পারেন। আবার 'ভুয়া তথ্য' বলে বাক স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করতে পারে বিভিন্ন দেশের সরকার। এ জন্য ভুল তথ্য শনাক্তে পদক্ষেপ নিতে হবে। আবার এই শনাক্তের নামে যেন বাকস্বাধীনতা হরণ না হয়, সেদিকেও খেয়াল রাখতে হবে সরকারগুলোকে।

মন্তব্য করুন