পাকিস্তান স্টক এক্সচেঞ্জে হামলা, নিহত ৭

ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থার দিকে আঙুল তুলছে ইসলামাবাদ

প্রকাশ: ৩০ জুন ২০২০

সমকাল ডেস্ক

করাচিতে পাকিস্তান স্টক এক্সচেঞ্জে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটেছে সোমবার। ঘটনায় জড়িত চার সন্ত্রাসীর সবাই নিহত হয়েছে বলে দাবি দেশটির নিরাপত্তা বাহিনীর। অভিযান চালাতে গিয়ে এক পুলিশ কর্মকর্তা এবং নিরাপত্তা বাহিনীর দুই সদস্য নিহত হয়েছেন। সব মিলিয়ে ওই ঘটনায় সাতজন নিহত হয়েছেন। বেলুচিস্তানের স্বাধীনতাকামী সশস্ত্র সংগঠন 'বেলুচিস্তান লিবারেশন আর্মি (বিএলএ)' হামলার দায় স্বীকার করেছে। পাকিস্তানের আধা সামরিক বাহিনী রেঞ্জার্স মনে করে, এই সংগঠনটির পেছনে থেকে হামলার কলকাঠি নেড়েছে ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা রিসার্চ অ্যান্ড অ্যানালাইসিস উইং (র)। খবর দ্য ডন ও বিবিসির।

স্থানীয় সময় সকাল ১০টার দিকে একদল সন্ত্রাসী গাড়ি থেকে নেমে অটোমেটিক রাইফেল দিয়ে এলোপাতাড়ি গুলি ছুড়তে শুরু করে। গ্রেনেডের বিস্ম্ফোরণও ঘটায় তারা। করাচির পুলিশ প্রধান গুলাম নবী মেমন জানান, 'সিলভার রঙের একটি টয়োটা করোলা গাড়িতে করে হামলা চালাতে আসে সন্ত্রাসীরা। স্টক এক্সচেঞ্জের গেটের সামনে পুলিশের নিরাপত্তা চৌকিতে গাড়িটি থামানো হয়। তখনই গুলি ও গ্রেনেড ছোড়ে তারা।' সিন্ধু রেঞ্জার্স বলেছে, হামলার কিছুক্ষণের মধ্যেই পুলিশ ও রেঞ্জার্সের সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে যায়। আট মিনিটের অভিযান চালিয়ে চার সন্ত্রাসীর সবাইকে হত্যা করে।

সিন্ধু রেঞ্জার্সের ডিরেক্টর জেনারেল (ডিজি) ওমর আহমেদ বুখারি বলেছেন, দীর্ঘ সময় স্টক এক্সচেঞ্জ ভবন দখলে রাখার পরিকল্পনা ছিল সন্ত্রাসীদের। বিদেশি সহায়তা ছাড়া এ ধরনের হামলা চালানো প্রায় অসম্ভব। এ ক্ষেত্রে ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা র'কে সন্দেহের তালিকায় প্রথমে রেখেছেন তারা।

পাকিস্তান থেকে আলাদা হয়ে স্বাধীন রাষ্ট্র গড়তে সশস্ত্র সংগ্রাম চালিয়ে আসছে 'বেলুচিস্তান লিবারেশন আর্মি (বিএলএ)'। এই সশস্ত্র সংগঠনটিকে ভারত অস্ত্র ও অর্থের জোগান দেয় বলে অভিযোগ রয়েছে।