বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) প্রধান টেড্রোস আধানম গেব্রিয়েসুস তার নিজ দেশ ইথিওপিয়ার টাইগ্রে অঞ্চলের চলমান সংঘাত নিয়ে উদ্বেগ জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, আমার জন্মস্থান টাইগ্রেতে চলমান যুদ্ধ পরিস্থিতির ক্রমাগত অবনতি হচ্ছে। সেখানে আমার ছোট ভাইসহ আত্মীয়রা সংকটে রয়েছেন। গত সোমবার জাতিসংঘের এ সংস্থার বছরের শেষ সংবাদ সম্মেলনে 'ব্যক্তিগত বেদনা'র কথা এভাবে উপস্থাপন করেন গেব্রিয়েসুস। খবর আলজাজিরার।

ইথিওপিয়ার মেকেল্লেতে একটি সামরিক দপ্তরে হামলার অভিযোগ এনে গত ৪ নভেম্বর আঞ্চলিক স্বাধীনতাকামী টাইগ্রে পিপলস লিবারেশন ফ্রন্টের (টিপিএলএফ) বিরুদ্ধে অভিযানের ঘোষণা দেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী আবি আহমেদ। এর পর শুরু হয় স্বাধীনতাকামী ও সরকারি বাহিনীর লড়াই। পরে সেখানে ইন্টারনেটসহ যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন করে সরকার। সেখানে সংবাদকর্মীদের প্রবেশেও কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে। আশঙ্কা করা হচ্ছে, ইতোমধ্যে এ সংঘাতে কয়েক হাজার মানুষ নিহত হয়েছে। এ ছাড়া ওই অঞ্চল থেকে পালিয়ে প্রতিবেশী দেশ সুদানে শরণার্থী হিসেবে আশ্রয় নিয়েছে প্রায় ৫০ হাজার মানুষ।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান গেব্রিয়েসুস সোমবার সংবাদ সম্মেলনে জানান, টাইগ্রে এলাকায় তার ছোট ভাইসহ অনেক আত্মীয়স্বজন থাকেন। তিনি বলেন, 'আমি জানি না, তারা কোথায় আছেন। তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারছি না, কারণ যোগাযোগের কোনো ব্যবস্থা সেখানে নেই।' করোনা মহামারি মোকাবিলায় সামনের সারিতে থেকে সমন্বয়ের কাজ করে যাওয়া ডব্লিউএইচওর প্রধান বলেন, 'শুধু কভিডই নয়, আমার ব্যক্তিগত যন্ত্রণাও আছে। গোটা দেশের জন্য আমার চিন্তা হচ্ছে। শুধু ছোট ভাই আর আত্মীয়দের নিয়েই যে চিন্তা করছি, তা নয়। পরিস্থিতি ভয়াবহতার দিকে যাচ্ছে।' ২০০৫ থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত ইথিওপিয়ার স্বাস্থ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছেন গেব্রিয়েসুস। গত মাসে দেশটির সরকার অভিযোগ করেছে, ডব্লিউএইচওর প্রধান গেব্রিয়েসুস আঞ্চলিক নেতাদের জন্য লবিং করছেন এবং তাদের জন্য অস্ত্র চাইছেন।

মন্তব্য করুন