দিন দিন আরও সহিংস হয়ে উঠছে মিয়ানমারে জান্তাবিরোধী বিক্ষোভ। গতকাল বৃহস্পতিবার দেশটির উত্তর-পশ্চিম এক শহরে নিরাপত্তা বাহিনীর বিরুদ্ধে শিকারি বন্দুক ও আগুনবোমা নিয়ে লড়তে দেখা গেছে বিক্ষোভকারীদের। তবে নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে গতকাল আরও ১১ বিক্ষোভকারী প্রাণ হারিয়েছেন।

দেশটির সংবাদমাধ্যম মিয়ানমার নাউ ও ইরাবতি জানায়, ট্যাজ শহরে বিক্ষোভ দমনের জন্য শুরুতে ছয় ট্রাক সেনা মোতায়েন করা হয়। সেখানে তাদের সঙ্গে বন্দুক, ছুরি ও আগুনবোমা নিয়ে লড়াইয়ে নামেন বিক্ষোভকারীরা। এর ফলে আরও পাঁচ ট্রাক সেনা সেখানে পাঠানো হয়। গতকাল স্থানীয় সময় সকালে এ সংঘর্ষ চলাকালে সেনাসদস্যদের গুলিতে অন্তত ১১ বিক্ষোভকারী নিহত হন এবং আহত হন আরও ২০ জন।

এদিকে যুক্তরাজ্যে নিযুক্ত মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত কিয়াও জাওয়ার মিনকে দূতাবাস থেকে বের করে দিয়েছেন তার অধস্তন সামরিক অ্যাটাশে। রাষ্ট্রদূত কিয়াও এখন আর লন্ডনে মিয়ানমারের প্রতিনিধিত্বও করছেন না বলেও জানিয়ে দেন ওই অ্যাটাশে। কিয়াও বলেন, সামরিক অ্যাটাশে অন্য কূটনীতিক ও কর্মীদেরও বেরিয়ে যেতে বলেছেন। একে 'দূতাবাসে অভ্যুত্থান' আখ্যা দিয়েছেন তিনি।

আলজাজিরার খবরে বলা হয়েছে, গত বুধবার লন্ডনে সু চীনপন্থি বিক্ষোভকারীরা দূতাবাস ভবনের সামনে জড়ো হয়েছিলেন। সেখানে রাষ্ট্রদূত কিয়াও-ও ছিলেন। পরে জানা যায়, দূতাবাসে ঢুকতে গেলে কিয়াওকে আটকে দেওয়া হয়েছে। গত মাসেই নিজ দেশে সামরিক অভ্যুত্থান নিয়ে কথা বলেন সাবেক সামরিক কর্মকর্তা কিয়াও। বন্দি নেত্রী অং সান সু চি ও প্রেসিডেন্ট উইন মিন্টের মুক্তির দাবি জানান তিনি। দেশে গৃহযুদ্ধ শুরু হতে পারে বলেও শঙ্কা প্রকাশ করেন। এ ঘটনার প্রতিক্রিয়ায় তার বিরুদ্ধে এমন পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। কিয়াও রাতভর দূতাবাস ভবনের সামনে তার গাড়িতে ছিলেন। এ বিষয়ে তিনি ব্রিটিশ সরকারের হস্তক্ষেপ কামনা করেন। এদিকে গতকাল বৃহস্পতিবার জান্তাবিরোধী বিক্ষোভের সময় মিয়ানমারের একজন জনপ্রিয় অভিনেতা, গায়ক ও মডেলকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। মিয়ানমার ও থাইল্যান্ডের বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে পইং তাখোন নামে ওই সেলিব্রেটি সব সময় সশরীরে বা অনলাইনে বিক্ষোভে সক্রিয় ছিলেন। ইনস্টাগ্রাম ও ফেসবুকে তাখোনের ১০ লাখের বেশি ফলোয়ার রয়েছে। এ নিয়ে দেশটিতে প্রায় ১২০ জন সেলিব্রেটিকে আটক করল জান্তা সরকার। গত দুই মাস ধরে জান্তাবিরোধী বিক্ষোভে দেশটিতে ব্যাপক সহিংসতা ছড়িয়ে পড়েছে। নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে এখন পর্যন্ত প্রায় ৬০০ লোক নিহত হয়েছেন। খবর বিবিসি ও আলজাজিরার।

মন্তব্য করুন