বিশ্বের বিভিন্ন দেশে যুদ্ধ, করোনা মহামারি ও জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে বহু এলাকায় দুর্ভিক্ষ ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে অবিলম্বে জরুরি ব্যবস্থা নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে ২৬০টির বেশি বেসরকারি সংস্থা। সারাবিশ্বে তিন কোটি ৪০ লাখের বেশি মানুষকে দুর্ভিক্ষ থেকে বাঁচাতে তাদের জন্য ত্রাণ সহায়তা দিতে সাড়ে ৫ বিলিয়ন ডলারের তহবিল চেয়েছে সংস্থাগুলো। গতকাল মঙ্গলবার সংস্থাগুলোর পক্ষ থেকে লেখা এক খোলা চিঠিতে সরকারগুলোকে বিশ্বজুড়ে চরম খাদ্য নিরাপত্তাহীন পরিস্থিতি বাড়তে থাকা নিয়ে সতর্ক করা হয়। খবর দি গার্ডিয়ান ও এএফপির।\হদুর্ভিক্ষ এড়াতে ব্যবস্থা নিতে জাতিসংঘের আহ্বানে সমর্থন জানিয়ে লেখা ওই খোলা চিঠিতে সংস্থাগুলোর পক্ষ থেকে বলা হয়, লাখ লাখ মানুষ ক্ষুধার মুখে রয়েছে আর শত শত কোটি ডলারের বিনিয়োগ অবিলম্বে প্রয়োজন। চিঠি লেখা সংগঠনগুলোর মধ্যে রয়েছে ইন্টারন্যাশনাল কাউন্সিল অব ভলিয়ান্টারি এজেন্সিস, ওয়ার্ল্ড ফুড প্রোগ্রাম (ডব্লিউএফপি) ও ফুড অ্যান্ড এগ্রিকালচার অর্গানাইজেশন (এফএও)। চিঠিতে বলা হয়েছে, 'সংঘাত, জলবায়ু পরিবর্তন এবং বৈষম্যের সমন্বিত প্রভাবের সঙ্গে কভিড-১৯ মহামারি যোগ হয়ে বিশ্বজুড়ে চরম খাদ্য নিরাপত্তাহীন পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। বর্তমানে প্রয়োজন মেটানো যাচ্ছে না আর এখনই ব্যবস্থা না নিলে একাধিক দুর্ভিক্ষের ঝুঁকি ক্রমেই বাড়বে।' ২০২১ সালের শুরুতে ডব্লিউএফপি ও জাতিসংঘের এফএও সতর্ক করে জানায়, দুনিয়ার ২৭ কোটি মানুষ পর্যাপ্ত খাবার পাচ্ছে না। তিন কোটি ৪০ লাখের বেশি মানুষ দুর্ভিক্ষের কিনারায় রয়েছে বলেও জানায় তারা। এ ছাড়া ইয়েমেন, দক্ষিণ সুদান এবং বুরকিনা ফাসোর এক লাখ ৫৫ হাজার মানুষ এখনই দুর্ভিক্ষের মধ্যে কিংবা দুর্ভিক্ষের মতো পরিস্থিতিতে রয়েছে বলেও জানায় এসব সংস্থা।

মঙ্গলবারের খোলা চিঠিতে বলা হয়েছে, দুর্ভিক্ষ এড়াতে খাদ্য ও কৃষি সহায়তা হিসেব এখনই ৫৫০ কোটি ডলার সহায়তা প্রয়োজন। এ ছাড়া স্বাস্থ্যসেবা, বিশুদ্ধ পানি এবং অন্যান্য জরুরি সেবার জন্য আরও কোটি কোটি ডলার প্রয়োজন।

মন্তব্য করুন