ভারতে করোনাভাইরাসের ডেলটা ধরন নিয়ে বিপর্যস্ত অবস্থার মধ্যেই নতুন আরেকটি ধরন আতঙ্কের কারণ হয়ে দাঁড়াচ্ছে। এরই মধ্যে দেশটির তিনটি রাজ্যে ৪০ জনের শরীরে নতুন এই ধরন শনাক্ত হয়েছে, যাকে বলা হচ্ছে 'ডেলটা প্লাস'। বুধবার মহারাষ্ট্রের স্বাস্থ্যমন্ত্রী রাজেশ তোপে জানিয়েছেন, এ পর্যন্ত রাজ্যে ডেলটা প্লাস ধরনে সংক্রমিত ২১ রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এ ধরনের সংক্রমণ বাড়তে থাকার প্রেক্ষাপটে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় রাজ্যগুলোকে পরীক্ষা বাড়ানোর পরামর্শ দিয়েছে। ভারতীয় ধরনের পরিবর্তিত এই রূপটি সীমানা ছাড়িয়ে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্যসহ অন্তত ৯টি দেশে ছড়ানোর খবর পাওয়া গেছে। সংক্রামক এই ধরনটি মহামারির রাশ টানার প্রক্রিয়াকে বিলম্বিত করতে পারে বলে আশঙ্কা জনস্বাস্থ্যবিদদের।

যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপে নতুন করে উদ্বেগের জন্ম দিয়েছে এটি। কেননা, করোনার এই ধরন দ্রুত ছড়াতে পারে। ইতোমধ্যে করোনার ডেলটা ধরনকে 'উদ্বেগজনক ধরন' হিসেবে ঘোষণা দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাতে বুধবার বিবিসি জানায়, এপ্রিলে দেশটিতে ডেলটা প্লাস ধরন প্রথম শনাক্ত হয়। বুধবার এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দেশটির তিন রাজ্যের ছয় জেলায় প্রায় ৪০ জনের শরীরে করোনার এই ধরন শনাক্ত হয়েছে। ভারত ছাড়াও এ ধরনে আক্রান্ত হওয়া ৯ দেশ হচ্ছে- যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, পর্তুগাল, সুইজারল্যান্ড, জাপান, পোল্যান্ড, নেপাল, রাশিয়া ও চীন। ডেলটা প্লাস ধরন সবচেয়ে বেশি শনাক্ত হয়েছে ভারতের মহারাষ্ট্রে। ওই রাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, সাত হাজার ৫০০ জনের নমুনা পরীক্ষায় ২১ জনের ডেলটা প্লাস ধরন শনাক্ত হয়। জনস্বাস্থ্যবিদদের ভাষ্য, ডেলটা প্লাস ধরন নিয়ে খুব বেশি তথ্য নেই। এমনকি অন্য ধরনগুলোর তুলনায় করোনার নতুন এই ধরন কত দ্রুত ছড়ায়, সে ব্যাপারেও স্পষ্ট করে জানে না কেউ। ফলে করোনার এই ধরন নিয়ে উদ্বেগ রয়ে গেছে। বিশ্বের স্বাস্থ্য সংস্থা অবশ্য করোনার এই ধরন নিয়ে উদ্বেগের কথা জানিয়েছে।

এদিকে, বুধবার এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভারতে গত ২৪ ঘণ্টায় ৫০ হাজার ৮৪৮ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে দেশটিতে করোনায় সংক্রমিত মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে তিন কোটি ২৮ হাজার ৭০৯ জন। এ সময় মারা গেছেন এক হাজার ৩৫৮ জন। এ নিয়ে দেশটিতে করোনায় মোট মারা যাওয়া মানুষের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে তিন লাখ ৯০ হাজার ৬৬০ জন। খবর রয়টার্স, এনডিটিভি ও এএফপির।

বিষয় : ডেলটা প্লাস

মন্তব্য করুন