আফগানিস্তানে শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য আলোচনার গতি বাড়াতে শিগগিরই ফের বৈঠকে বসার কথা জানিয়েছেন তালেবান ও আফগান সরকারের প্রতিনিধিরা। কাতারের রাজধানী দোহায় দুই দিনের আলোচনা শেষে রোববার এক যৌথ বিবৃতিতে তারা এ ঘোষণা দেন। দেশটি থেকে বিদেশি সেনা প্রত্যাহারের পর থেকে বিভিন্ন স্থানে হামলা চালিয়ে সেগুলো দখলে নিচ্ছে তালেবান। এমন পরিস্থিতিতে কট্টরপন্থিদের চলমান সামরিক অভিযান তাৎক্ষণিকভাবে বন্ধের আহ্বান জানায় বিশ্ব সম্প্রদায়। গতকাল সোমবার কাবুলে অবস্থিত এক ডজনেরও বেশি মিশন এই আহ্বান জানায়। তারা বলছে, তালেবান একদিকে সংঘাত নিরসনে সমঝোতার টেবিলে বসছে এবং অন্যদিকে হামলা চালিয়ে যাচ্ছে- যা তাদের দাবির সঙ্গে সত্যি বেমানান। খবর এএফপির।

গত কয়েক মাস ধরেই তালেবান বাহিনীর সঙ্গে দফায় দফায় বৈঠক করেছেন আফগান সরকারের প্রতিনিধিরা। কিন্তু তালেবান দেশটির বড় অংশের দখল নেওয়ায় সে আলোচনায় তেমন কোনো অগ্রগতি আসেনি। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে আফগানিস্তানে সংঘাত বাড়ার মধ্যেই শনিবার দোহায় আফগান সরকার ও তালেবান প্রতিনিধিদের সর্বশেষ বৈঠক শুরু হয়। পরে যৌথ বিবৃতি দেয় তারা। এতে বলা হয়, 'আমরা আফগানিস্তানে মানবিক সহায়তা দেওয়ার জন্য কাজ করে যাব।'

আলোচনায় কাতারের মধ্যস্থতাকারী জানান, শান্তি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে আগামী সপ্তাহে তারা আবারও বৈঠকে বসবে। এদিকে, তালেবানকে হামলা বন্ধের আহ্বান জানিয়েছে বিবৃতি দেওয়া মিশনগুলোর মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র ও ইইউও রয়েছে। যৌথ বিবৃতিতে তারা বলছে, 'সমঝোতার সমর্থনে তালেবানের করা দাবির সঙ্গে তাদের হামলা- সম্পূর্ণ সাংঘর্ষিক বিষয়। যার ফলে যোগাযোগ ব্যবস্থার ক্ষতি, মৌলিক অবকাঠমো ধ্বংস, লুটপাট, বাস্তুচ্যুতসহ নিরীহ আফগানদের জীবনহানি হচ্ছে।' অন্যদিকে, পাকিস্তানে নিযুক্ত আফগানিস্তানের রাষ্ট্রদূতের মেয়েকে অপহরণ ও নির্যাতনের ঘটনায় কাবুলে নিযুক্ত ইসলামাবাদের দূতকে তলব করা হয়েছে। গত শুক্রবার আফগান রাষ্ট্রদূত নাজিব আলিখিলের মেয়ে সিলসিলা আলিখিল ইসলামাবাদে কয়েক ঘণ্টার জন্য অপহরণের শিকার হয়েছিলেন। সে সময়ে তাকে নির্যাতন করা হয়। পরে মুক্তি পান তিনি। এরপর রোববার রাষ্ট্রদূতকে তলব করা হয়।

বিষয় : তালেবানকে হামলা বন্ধের আহ্বান

মন্তব্য করুন