ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির পুনর্গঠিত মন্ত্রিসভায় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী হিসেবে জায়গা পাওয়া পশ্চিমবঙ্গের সাংসদ নিশীথ প্রামাণিকের নাগরিকত্ব নিয়ে বিতর্কের উত্তাপ পার্লামেন্টেও পৌঁছাল। গত সোমবার রাজ্যসভায় তার নাগরিকত্ব নিয়ে প্রশ্ন তোলে তৃণমূল কংগ্রেস। দলটির সাংসদ সুখেন্দুশেখর রায় পার্লামেন্টের কাছে জানতে চান, নিশীথ বাংলাদেশের নাগরিক বলে যে অভিযোগ উঠেছে, তা সত্যি কিনা। তাকে সমর্থন জানিয়ে বিষয়টি তদন্তের আহ্বান জানায় কংগ্রেস। এ বিষয়ে বিজেপি সাংসদরা প্রতিবাদ জানালে তুমুল হট্টগোল শুরু হয়।

বিজেপির দাবি, বিরোধীদের অভিযোগ মিথ্যা। নিশীথ ভারতের নাগরিক। রাজ্যসভায় বিজেপির দলনেতা ও কেন্দ্রীয় মন্ত্রী পীযূষ গয়াল বলেন, 'নিশীথের নাগরিকত্ব নিয়ে ভিত্তিহীন অভিযোগ তোলা হচ্ছে।' সংবাদ সম্মেলনে রাজ্যসভায় তৃণমূলের নেতা ডেরেক ও'ব্রায়েন জানান, নিশীথের নাগরিত্বের প্রশ্নে সরকারের কাছ থেকে পরিস্কার জবাব প্রত্যাশা করেন তারা। এ নিয়ে তারা সরকারের ওপর চাপ বাড়াবেন।

এদিকে নিশীথের নাগরিকত্ব নিয়ে ওঠা প্রশ্নের জবাব চেয়ে গত সপ্তাহে প্রধানমন্ত্রী মোদির কাছে সরাসরি চিঠি দেন আসামের কংগ্রেস সভাপতি ও রাজ্যসভার সাংসদ রিপুন বোরা। চিঠিতে তিনি অভিযোগ করেছেন, নিশীথ একজন বাংলাদেশি। নিজেকে ভারতীয় নাগরিক হিসেবে প্রমাণ করতে পার্লামেন্টে যে নথি জমা দিয়েছেন, তা জাল। গত সোমবার রিপুন বোরার চিঠির উল্লেখ করে রাজ্যসভায় বিষয়টি সুরাহা করার দাবি জানান তৃণমূল কংগ্রেস ও কংগ্রেসের সাংসদরা। ভারতীয় গণমাধ্যম এবিপি আনন্দ জানিয়েছে, বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবর টুইট করে বিষয়টি রাজনৈতিক মহলের দৃষ্টিতে আনার চেষ্টা করেছেন রিপুন বোরা। রিপুন বোরা চিঠিতে লিখেছেন, 'বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে প্রচার করা হয়েছে, নিশীথ প্রামাণিক বাংলাদেশি নাগরিক। তার জন্মস্থান বাংলাদেশের গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ী থানার হরিণাথপুরে। তিনি কম্পিউটার নিয়ে পড়াশোনার জন্য এ দেশে আসেন। ডিগ্রি লাভের পর তিনি প্রথমে তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দেন। পরে বিজেপিতে যোগ দিয়ে কোচবিহারের সাংসদ নির্বাচিত হন।'

এ ব্যাপারে কোচবিহার তৃণমূলের জেলা সভাপতি পাথপ্রতীম রায় বলেছেন, বিষয়টি আমি সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রথম তুলেছিলাম। রাজ্যসভা থেকে তদন্তের দাবি জানিয়েছেন। বিষয়টির পরিস্কার হওয়া প্রয়োজন। নিশীথের নাগরিকত্ব নিয়ে পাল্টা চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য বিজেপির মুখপাত্র শমীক ভট্টাচার্য বলেছেন, অভিযোগ করলেই তা প্রমাণ হয় না।

বিষয় : কংগ্রেস-তৃণমূল

মন্তব্য করুন