অসহনশীল মনোভাব ও ধর্মীয় সাম্প্রদায়িতকতার মতো ইস্যুতে বহু বছর ধরে পরস্পরকে দোষারোপ করে আসছে ভারত ও পাকিস্তান। এই একই ইস্যুতে জাতিসংঘে চলমান সাধারণ অধিবেশনেও পরস্পরের তীব্র সমালোচনা করেছে এই দুই দেশ, যার শুরু হয়েছে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের বক্তব্যের মধ্য দিয়ে। খবর এএফপির।

শুক্রবার ভার্চুয়াল মাধ্যমে দেওয়া বক্তব্যে ইমরান খান বিজেপি শাসিত ভারতকে দেশটির সংখ্যালঘু মুসলিম জনগণের জন্য 'ভীতিপ্রদ' স্থান হিসেবে উল্লেখ করেন। বর্তমানে ইসলামভীতির সবচেয়ে ব্যাপক ও নিকৃষ্ট রূপটি আমরা ভারতে দেখতে পাচ্ছি বলেন তিনি। ইমরান বলেন, ভারতে বর্তমান ক্ষমতাসীন বিজেপি-আরএসএস যেভাবে বিদ্বেষপূর্ণ হিন্দুত্ববাদ ছড়াচ্ছে, তা দেশটিতে বসবাসরত ২০ কোটি মুসলিম জনগোষ্ঠীকে ঝুঁকিপূর্ণ করে তুলছে এবং দেশটির অন্যান্য ধর্মাবলম্বী জনগণের মধ্যে মুসলিমদের বিরুদ্ধে ঘৃণা ও সহিংসতা উস্কে দিচ্ছে।

ইমরানের এ বক্তব্যের শক্ত প্রতিবাদ জানিয়েছেন জাতিসংঘে ভারতের দূত এবং ফার্স্ট সেক্রেটারি স্নেহা দুবে। তিনি বলেন, 'পাকিস্তান হলো এমন দেশ যারা নিজেরা আগুন লাগায় এবং তারপর আবার নিজেরাই দমকলকর্মী হয়ে সেই আগুন নেভাতে আসে। এই দেশটি বরাবরই জঙ্গিবাদকে প্রশ্রয় এবং লালন-পালন করে আসছে শুধু একটি আশায়- জঙ্গি ও উগ্রপন্থিরা যেন প্রতিবেশী দেশগুলোয় নাশকতা চালানোর মাধ্যমে তাদের ক্ষতিগ্রস্ত করে।

মন্তব্য করুন