রাশিয়া ও চীনের নৌবাহিনীর ১০টি যুদ্ধজাহাজ গত সোমবার একসঙ্গে জাপান প্রণালি অতিক্রম করেছে। জাপান সরকারের পক্ষ থেকে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। এ ঘটনায় উদ্বেগ জানিয়েছে জাপান সরকার। টোকিও জানিয়েছে, চীন ও রাশিয়ার এই পদক্ষেপকে তারা ভালোভাবে নিচ্ছে না। দেশ দুটির কর্মকাণ্ডকে তারা খুব কাছ থেকে পর্যবেক্ষণ করছে। গতকাল মঙ্গলবার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা গেছে। খবর আলজাজিরার।

জাপানের এই প্রণালির নাম সুগারু প্রণালি। ভৌগোলিকভাবে এটি হোক্কাইডো দ্বীপকে জাপানের মূল ভূখণ্ড থেকে আলাদা করেছে এবং জাপান সাগর ও প্রশান্ত মহাসাগরকে এক করেছে। ১০টি যুদ্ধজাহাজ একসঙ্গে জাপান প্রণালি অতিক্রম করার ঘটনায় নিন্দা জানিয়ে জাপানের উপপ্রধান মন্ত্রিপরিষদ সচিব ইয়োশিহিকো ইসোজাকি সংবাদ সম্মেলনে বলেন, 'সরকার সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে রাশিয়া ও চীনের নৌবাহিনীর কর্মকাণ্ড পর্যবেক্ষণ করছে। আমরা আমাদের সর্বোচ্চ শক্তি দিয়ে জাপানের আকাশ ও জলপথ রক্ষা করব। যে কোনো হুমকি মোকাবিলা করার জন্য আমরা প্রস্তুত।'

জাপান প্রণালি আন্তর্জাতিক জলপথ হিসেবে ব্যবহূত হয়ে থাকলেও এই প্রথম রাশিয়া এবং চীনের নৌবাহিনীর ১০টি যুদ্ধজাহাজ একসঙ্গে এই প্রণালি দিয়ে চলাচল করল। জাপান সাগরের এই অঞ্চল নিয়ে বরাবরই সাবধান টোকিও। পূর্ব চীন সাগরের কয়েকটি ক্ষুদ্র দ্বীপ নিয়ে চীনের সঙ্গে আগে থেকেই জাপানের বিরোধ রয়েছে। এ ছাড়া মস্কোর সঙ্গেও আঞ্চলিক বিরোধ রয়েছে টোকিওর।

এদিকে জাপানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র জানান, চীন ও রাশিয়ার নৌবাহিনীর এই জাহাজ চলাচলের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক কোনো নিয়মের লঙ্ঘন হয়নি। এমনকি জাপানের জলসীমাও লঙ্ঘন হয়নি বলে জানিয়েছেন তিনি।

এর আগে ১৪ থেকে ১৭ অক্টোবর জাপান সাগরে যৌথ মহড়া চালায় রাশিয়া ও চীন। দু'দেশের মধ্যে নৌ সহযোগিতা বৃদ্ধি করতেই এ মহড়া চালায় তারা। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে রাশিয়া-চীনের মধ্যে সামরিক ও কূটনৈতিক সম্পর্ক আরও জোরদার হয়েছে।

মন্তব্য করুন