স্কটল্যান্ডের গ্লাসগোতে অনুষ্ঠেয় বিশ্ব জলবায়ু সম্মেলন (কপ২৬) সফল হওয়ার ব্যাপারে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন সম্মেলনের প্রেসিডেন্ট অলোক শর্মা। গতকাল সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে শর্মা বলেন, '২০১৫ সালে গৃহীত প্যারিস চুক্তির পর এবারের সম্মেলনে নতুন কোনো চুক্তিতে পৌঁছানো বেশ কঠিন হবে। সবাইকে নিয়ে ঐকমত্যে পৌঁছানো আসলেই অসম্ভব।' জলবায়ু সম্মেলন শুরু হওয়ার মাত্র এক সপ্তাহ আগে তিনি এই আশঙ্কা প্রকাশ করলেন। খবর এএফপি ও দ্য গার্ডিয়ানের।

বিশ্ব জলবায়ু সম্মেলনের প্রেসিডেন্ট বলেন, শিল্প পূর্ববর্তী যুগের তুলনায় বর্তমানে বৈশ্বিক তাপমাত্রা ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে রাখতে আমরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। এটা অত্যন্ত কঠিন। তাছাড়া এই লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে হলে ২০০টিরও বেশি দেশকে গ্রিন হাউস গ্যাস নিঃসরণ কমাতে হবে। এটি আদতে কখনও সম্ভব কিনা, আমি জানি না। দিন দিন বিশ্বব্যাপী কার্বন নির্গমন বৃদ্ধি পাওয়ায় জলবায়ু চুক্তির লক্ষ্যমাত্রা অর্জন পিছিয়ে যাচ্ছে। তিনি বলেন, 'গ্লাসগোতে আমরা যা করার চেষ্টা করব তা সত্যিকার অর্থেই অনেক কঠিন। প্যারিস চুক্তি বাস্তবায়নের ভবিষ্যৎ বিস্তারিত নীতিমালা এখানে চূড়ান্ত করা হবে। বর্তমানের অবস্থা বোঝাতে শর্মা বলেন, এটা অনেকটা পরীক্ষার হলের ভেতরের অবস্থার মতো। আমাদের উত্তরপত্রের পৃষ্ঠা শেষ হয়ে এসেছে, অথচ কঠিন প্রশ্নের উত্তর এখনও দেওয়া হয়নি। তার ওপর আমরা নানাভাবে সময় নষ্ট করছি। লেখার সময় শেষ হওয়ার মাত্র আধ ঘণ্টা বাকি আছে, এখন কি আমরা সেই কঠিন প্রশ্নটির উত্তর লিখব?

মহামারির কারণে এক বছর পিছিয়ে থাকা কপ২৬ সম্মেলন চলতি মাসের শেষ দিন, অর্থাৎ ৩১ অক্টোবর থেকে গ্লাসগোতে শুরু হবে, যা শেষ হবে ১২ নভেম্বর। এবারের এই সম্মেলনে ১২০ জনের বেশি বিশ্বনেতা এবং কমপক্ষে ২৫ হাজার প্রতিনিধির অংশগ্রহণের কথা রয়েছে। বৈশ্বিক জলবায়ু পরিবর্তনকে নিয়ন্ত্রণে রাখার লক্ষ্যে যুক্তরাজ্যে এ বছর গুরুত্বপূর্ণ যে সম্মেলন হতে যাচ্ছে, তা সফল হলে বিশ্ববাসীর দৈনন্দিন জীবনযাত্রায়ও দেখা যেতে পারে বড় পরিবর্তন।

মন্তব্য করুন