বিদেশে বসবাস এবং কাজ করার জন্য ২০২১ সালে বৈধ প্রবাসীদের সবচেয়ে পছন্দের গন্তব্য হচ্ছে মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুর। সাম্প্রতিক একটি সমীক্ষায় এ তথ্য উঠে এসেছে। ৪০ লাখেরও বেশি প্রবাসী সদস্যের অনলাইন কমিউনিটি 'ইন্টারন্যাশনস' এই সমীক্ষাটি চালিয়েছে। তালিকায় দক্ষিণ স্পেনের বন্দর শহর মালাগা এবং দুবাই যথাক্রমে দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থানে রয়েছে। এ তিনটি শহরই ভৌগোলিকভাবে বেশ বৈচিত্র্যময় এবং সম্ভবত এ কারণেই প্রবাসীরা শহরগুলোকে তাদের পছন্দের তালিকায় রেখেছেন বলে মন্তব্য করেছে ইন্টারন্যাশনস। বসবাস ও কাজের নিরাপত্তার ভিত্তিতে তৈরি এ তালিকায় বৈধ প্রবাসীদের পছন্দের ৫৭টি শহরের মধ্যে নিউইয়র্ক, মস্কো এবং প্যারিসের মতো শহরগুলো নিচের দিক থেকে ১০-এর মধ্যে রয়েছে।

১৮৬টি দেশ বা অঞ্চলে বসবাস করা ১৭৪টি জাতীয়তার ১২ শতাধিক লোক এ সমীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছেন। প্রবাসীদের জন্য সেরা এবং সবচেয়ে খারাপ শহরগুলো চিহ্নিত করতে উত্তরদাতাদের চারটি প্রধান বিষয় মাথায় রেখে উত্তর দিতে বলা হয়। বিষয়গুলো হচ্ছে- জীবনযাত্রার মান, বসবাসের সহজতা, ব্যক্তিগত অর্থ সাশ্রয় এবং কাজের ক্ষেত্র। জীবনযাত্রার মানের আদর্শ হিসেবে একটি স্বাস্থ্যকর পরিবেশ, বসতি স্থাপনের সহজতার জন্য ভাষা ও স্থানীয় বাসিন্দাদের বন্ধুত্বপূর্ণ আচরণ, ব্যক্তিগত অর্থ সাশ্রয় হিসেবে স্বাস্থ্যসেবার খরচ এবং কাজের ক্ষেত্রের জন্য নিরাপত্তার ইস্যুগুলো প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে।

সেরা শহর হিসেবে কুয়ালালামপুরকে বেছে নেওয়ার ক্ষেত্রে বেশিরভাগ প্রবাসী বলেছেন, এ শহরটিতে বসতি স্থাপন করা সহজ এবং স্থানীয়রা বন্ধুভাবাপন্ন। কেউ কেউ দুবাই এবং মালাগায় জীবনযাত্রার মানের প্রশংসা করেছেন। তবে অনেকেই দুবাইয়ের তুলনায় কুয়ালালামপুর এবং মালাগায় জীবনযাত্রার ব্যয় সাশ্রয়ী বলে মনে করেন। উত্তরদাতাদের বিশাল একটি অংশ কুয়ালালামপুরের সাধারণ জীবন নিয়ে খুবই খুশি।

তালিকার শীর্ষ ১০-এ জায়গা করে নিয়েছে- সিডনি, অস্ট্রেলিয়া (চতুর্থ); সিঙ্গাপুর (পঞ্চম); হো চি মিন সিটি, ভিয়েতনাম (ষষ্ঠ); প্রাগ, চেকপ্রজাতন্ত্র (সপ্তম); মেক্সিকো সিটি, মেক্সিকো (অষ্টম); বাসেল, সুইজারল্যান্ড (নবম) ও মাদ্রিদ, স্পেন (দশম)।

তালিকার একেবারে নিচের দিকে রয়েছে ইতালির শহর মিলান ও রোম এবং দক্ষিণ আফ্রিকার জোহানেসবার্গ। জরিপে অংশগ্রহণকারীরা রোমকে 'বন্ধুত্বহীন' শহর হিসেবে বিবেচনা করেছেন। ৩১ শতাংশ প্রবাসী জানান, মিলানে স্থানীয়রা বিদেশিদের পছন্দ করেন না। এছাড়া শহরটিতে কর্মজীবনের ভারসাম্য নিয়ে একেবারেই সন্তুষ্ট নন প্রবাসীরা। একইভাবে বেশিরভাগ প্রবাসী দক্ষিণ আফ্রিকার জোহানেসবার্গের গণপরিবহন পদ্ধতি নিয়ে খুব হতাশা প্রকাশ করেছেন। তাদের বক্তব্য, এ শহরে চলাফেরার সময় তারা তাদের ব্যক্তিগত নিরাপত্তা নিয়ে চিন্তিত থাকেন। তালিকায় নিউইয়র্ক ৪৮তম, মস্কো ৪৯তম এবং প্যারিস ৫১তম অবস্থানে রয়েছে।

মন্তব্য করুন