'বিউটি অব লেবানন'

প্রকাশ: ১৩ জানুয়ারি ২০১৮     আপডেট: ১৩ জানুয়ারি ২০১৮      

বিশেষ প্রতিনিধি

ভূমধ্যসাগরের তীরের নির্মল সৌন্দর্যের এক সমারোহ লেবানন। লেবাননের বেশির ভাগ স্থানজুড়েই রয়েছে পাহাড়। ভূমধ্যসাগরের সঙ্গে লেবাননের পশ্চিম দিকে রয়েছে ২২৫ কিলোমিটারের বিশাল সখ্য। এ ছাড়া সিরিয়া লেবাননকে ঘিরে আছে পূর্ব ও উত্তর দিক থেকে ৩৭৫ কিলোমিটারজুড়ে। দক্ষিণে আছে ইসরায়েল।

লেবাননের আবহাওয়ার মধ্যে রয়েছে ভূমধ্যসাগরের ব্যাপক প্রভাব। শীতকাল বেশ ঠাণ্ডা ও বৃষ্টিময়। আর গ্রীষ্মকাল গরম ও আর্দ্র। উঁচু স্থানগুলোতে তাপমাত্রা অত্যধিক ঠাণ্ডা, কখনও সেখানে ভারী তুষারপাত হয়।

একাধিক দফায় সংঘাতের পর ২০০০ সালে লেবানন-ইসরায়েলের মধ্যে সীমানা চিহ্নিত করে দেয় জাতিসংঘ। যা 'ব্লু লাইন' নামে পরিচিত। এ ছাড়া দুই দেশের মধ্যে ভূমধ্যসাগরের সীমানা চিহ্নিত করা হয়েছে। সেখানে জলসীমানা চিহ্নিত করার জন্য বসানো হয়েছে 'লাইন অব বয়'।

লেবাননকে বলা হয় 'মধ্যপ্রাচ্যের ইউরোপ'। সেখানকার প্রকৃতি সৌন্দর্যের এক আধার। আবার লেবাননের তরুণ-তরুণীরাও অসম্ভব সৌন্দর্য-পিপাসু। সুন্দরকে তারা নানাভাবে লালন করেন। রাস্তায় বেরুলেই দেখা যায় নানাভাবে 'বিউটি সায়েন্স সেন্টার'।

বিজ্ঞানসম্মতভাবে তারা মানুষের সৌন্দর্যকে ধরে রাখতে চান। অনেক লেবানিজ মজা করে বলছিলেন, 'লেবাননের তরুণীরা সকালে ঘুম থেকে উঠে ওয়াশরুমে যাওয়ার আগেও মেকআপ নেন।' মূলত তারা সুন্দরের পূজারি এটাই বোঝানো হয়েছে।

লেবাননের দর্শনীয় স্থানগুলোর মধ্যে রয়েছে 'জয়িতা গ্রো'। চোখে না দেখলে বিশ্বাস হবে না কত সুন্দর হতে পারে কোনো গুহা! গুহার নিচ দিয়ে বয়ে চলেছে জলের স্রোতধারা। তবে ওই গুহার কোনো ধরনের ছবি তোলার ব্যাপারে বিধিনিষেধ রয়েছে। এ ছাড়া বৈরুত শহরটি ভূমধ্যসাগরের তীর ঘেঁষেই অবস্থিত। বিকেল হলেই লেবানিজরা দল বেঁধে ঘুরতে যান সমুদ্রের তীরে।

এ ছাড়া লেবাননের আরেক দর্শনীয় স্থান হলো বৈরুতে রফিক হারিরি মসজিদ। এই মসজিদ যেন ধর্মীয় সম্প্রীতির এক অপূর্ব নিদর্শনও। মসজিদের অদূরে রয়েছে খ্রিষ্টানদের গির্জা। দুই ধর্মের অনুসারীরা পাশাপাশি তাদের ধর্ম পালন করছেন।

লেবানন ঘুরে আরও যা দেখা গেল তা হলো ওদের ফলের বাগান। গ্রিন হাউস প্রজেক্টের মাধ্যমে লেবানিজরা আপেল, কমলা ও কলা উৎপাদন করছেন।

লেবাননের আরেক সৌন্দর্য তাদের শৃঙ্খলাবোধ। রাস্তায় বেরুলেই কাউকে খুব বেশি ট্রাফিক আইন অমান্য করতে দেখা যায় না। রাস্তাঘাটও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন। তবে কোনো জায়গায় ঢাকার মতো যানজট চোখে পড়ে না। রাজধানীতে অধিকাংশ ব্যক্তিগত গাড়ির চালক নারী। তাদের পোশাক ও আচার ব্যবহারে পাশ্চাত্যের ছাপ স্পষ্ট।

লেবাননের রাজনীতিতে রাজতন্ত্র বা পরিবারতন্ত্র নেই। ধর্মীয় সংস্কৃতির চমৎকার সমঝোতার মধ্য দিয়ে ক্ষমতা বণ্টন হয়। সরকারের সর্বোচ্চ পদগুলো আনুপাতিক হারে ধর্মীয় গোষ্ঠীর নেতাদের জন্য নির্ধারিত। সেখানে সুন্নি, শিয়া ও খ্রিষ্টান রয়েছে। গোষ্ঠীগুলো বিভিন্ন সময়ে নিজেদের মধ্যে রাজনৈতিক ক্ষমতার ব্যাপারে চুক্তি করে। সে অনুযায়ী লেবাননের রাষ্ট্রপতি হবেন একজন খ্রিষ্টান, প্রধানমন্ত্রী হবেন সুন্নি মুসলমান ও স্পিকার হবেন শিয়া মুসলমান।

অস্কার থেকে বাদ পড়ল ‘ডুব’

অস্কার থেকে বাদ পড়ল ‘ডুব’

অস্কারের ৯১তম আসরে বাংলাদেশ থেকে প্রতিনিধিত্ব করছিলো মোস্তফা সরয়ার ফারুকী ...

৪০ হাজার শিক্ষক নিয়োগে গণবিজ্ঞপ্তি

৪০ হাজার শিক্ষক নিয়োগে গণবিজ্ঞপ্তি

বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রায় ৪০ হাজার শূন্যপদে শিক্ষক নিয়োগ দেয়ার ...

বেলজিয়ামের প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ

বেলজিয়ামের প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ

অভিবাসন ইস্যুতে পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন বেলজিয়ামের প্রধানমন্ত্রী চার্লস মিশেল। অভিবাসন নিয়ে ...

এভাবে চলে যেতে নেই

এভাবে চলে যেতে নেই

গতকাল মঙ্গলবার বাংলা চলচ্চিত্রের বরেণ্য নির্মাতা সাইদুল আনাম টুটুল চলে ...

সামান্য সংখ্যার ভুলে নির্বাচনের ফল উল্টে যেতে পারে: সিইসি

সামান্য সংখ্যার ভুলে নির্বাচনের ফল উল্টে যেতে পারে: সিইসি

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা ভোটের ফল ...

বন্ধ হচ্ছে ট্রাম্প ফাউন্ডেশন

বন্ধ হচ্ছে ট্রাম্প ফাউন্ডেশন

ফাউন্ডেশনের অর্থ অপব্যবহারের অভিযোগে বন্ধ হচ্ছে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ট ট্রাম্পের ...

শেষ বিকেলে দেখা দিতে পারে রোদ

শেষ বিকেলে দেখা দিতে পারে রোদ

কয়েকদিন ধরে ঢাকাসহ সারাদেশে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি ও দিনভর বাতাসে ...

হাসপাতালে ভর্তি হলেন লতিফ সিদ্দিকী

হাসপাতালে ভর্তি হলেন লতিফ সিদ্দিকী

আওয়ামী লীগের সাবেক প্রেডিয়াম সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী আব্দুল লতিফ ...