নন্দন

নন্দন

আকাশ খুঁজে ফিরি

প্রকাশ: ০৫ ডিসেম্বর ২০১৯

বোরহান আজাদ

আকাশ খুঁজে ফিরি

ফাতিমা তুজ জাহরা ঐশী-ছবি ::স্বাপনিক মাহমুদ

'দখিন হাওয়া' থেকে 'পাপী'- এ পর্যন্ত ঐশীর পাঁচটি অ্যালবাম বের হয়েছে। খুব শিগগির শ্রোতারা পাবেন প্রিয় এই শিল্পীর ষষ্ঠ একক অ্যালবাম 'ঐশী এক্সপ্রেস টু'। অ্যালবামটিতে থাকছে ১০টি নতুন গান। গানগুলোর কম্পোজিশন করেছেন শাহরিয়ার মার্সেল, নাহিদ নোমান অরূপ, বেলাল খান এবং অ্যাপিরাস। অ্যালবামটির গীতিকার হিসেবে থাকছেন শাহান কবন্ধ, সোমেশ্বর অলি ও রবিউল ইসলাম জীবন। অ্যালবামটির নাম ঐশী এক্সপ্রেস টু রাখার কারণ জানালেন ঐশী নিজেই। 'ঐশী এক্সপ্রেস আমার শিল্পী জীবনের টার্নিং পয়েন্ট বলা চলে। এই অ্যালবামের 'তুমি চোখ মেলে তাকালে' কিংবা 'ব্রেকআপ' প্রায় সব গানই শ্রোতারা দারুণ পছন্দ করে। লেজার ভিশন থেকে বের হওয়া অ্যালবামটি বাণিজ্যিকভাবেও সফল ছিল। তাই এই নামটির প্রতি একটু দুর্বলতা আছে আমার। চেষ্টা করেছি অসাধারণ কথা ও সুরের কয়েকটি গান গাওয়ার।'

'আমার কাছ থেকে এ পর্যন্ত ভিন্ন স্বাদের অনেক গান পেয়েছে শ্রোতারা। তাই আমার নতুন অ্যালবামটিতে সেরকমই কিছু গান থাকছে। 'মনের খবর', 'আকাশ খুঁজে ফিরি', 'নিন্দুক' কিংবা 'মন্দবাসী' সবগুলো গানেই আমাকে নতুনভাবে খুঁজে পাবে দর্শক-শ্রোতা। সত্যি বলতে কী, ভীষণ আশাবাদী আমি ঐশী এক্সপ্রেস টু নিয়ে।

'বিনা মেঘে বৃষ্টি এলে/কাকে খোঁজো সাত পাঁচ ফেলে- শাহান কবন্ধের লেখা এরকম কথার একটি গান করছি বাপ্পা মজুমদারের সুরে। এই গানটি নিয়েও ভীষণ আশাবাদী আমি। 'আসলে বাপ্পা মজুমদার এমনই একজন গুণী শিল্পী, তার সঙ্গে কাজ করতে পারা আমার জন্য আশীর্বাদ। আশা করি, শ্রোতারা ভীষণ পছন্দ করবে গানটি।'

একক কিংবা প্লেব্যাক- কোথায় নেই ঐশীর গান! সম্প্রতি ঐশীর গাওয়া কয়েকটি গান ব্যাপক শ্রোতাপ্রিয়তা পায়। 'অবতার' চলচ্চিত্রের 'রঙিলা বিবি' কিংবা 'যদি আমি আর না থাকি' গানগুলো থাকছে দর্শক-শ্রোতার পছন্দের তালিকায়। এই তালিকায় যুক্ত হচ্ছে আরও কিছু গান।

'স্টেজে উঠলে উপস্থিত দর্শক-শ্রোতারা যখন 'মায়া' কিংবা 'নিজামউদ্দিন আউলিয়া'র জন্য অনুরোধ করে তখন ভীষণ ভালো লাগে। আরও ভালো লাগে যখন উপস্থিত সবাই আমার সঙ্গেই গেয়ে চলে প্রিয় গানগুলো। আসলে দর্শক-শ্রোতার ভালোবাসা আমাকে আজকের অবস্থানে নিয়ে এসেছে। তাদের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ।

যারা ঐশীর খোঁজ-খবর রাখেন তারা নিশ্চয়ই এরই মধ্যে জেনে গেছেন, সম্প্রতি বসুন্ধরা কনভেনশন সেন্টারে ফিল্ম ফেডারেশন অব ইন্ডিয়ার আয়োজনে ভারত-বাংলাদেশ ফিল্ম অ্যাওয়ার্ড পেলেন ঐশী। 'চিটাগাইঙ্গা পোলা নোয়াখাইল্যা মাইয়া' চলচ্চিত্রের গানের জন্য বেস্ট ফিমেল সিঙ্গার ক্যাটাগরিতে পেলেন এই পুরস্কার। এ বিষয়ে ঐশী বলেন, 'বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠিত শিল্পী কিংবা অভিনেতা-অভিনেত্রীরা এই পুরস্কার পেয়েছেন। আমিও এর অংশ হতে পেরে আনন্দিত আমি। এই পুরস্কার আমাকে দেশের সীমানা ছাড়িয়ে আরও দূর ছড়িয়ে যাওয়ার প্রেরণা জোগাবে। তবে, পুরস্কৃত হই বা না হই, গানই আমার জীবন। জীবনের শেষদিন পর্যন্ত গেয়ে যাব মন প্রাণ দিয়ে।'

ঐশী ইতিমধ্যেই একজন প্রতিষ্ঠিত গায়িকা। পাশাপাশি এমবিবিএস শেষবর্ষে পড়ছেন শমরিতা মেডিকেল কলেজে। এখান থেকেই ইন্টার্ন করবেন। স্বাভাবাকিভাবেই ভীষণ পড়াশোনার চাপে থাকেন। গান এবং পড়াশোনা দুটোই সমানতালে চালিয়ে যাচ্ছেন মেধাবী এই মানুষটি। যা যে কারও কাছে ঈর্ষণীয় হতে পারে।

তবে, মানুষের সেবা কিংবা মনের খোরাকের জন্য গান। দুটোই তার কাছে গুরুত্বপূর্ণ। শুধুই একজন শিল্পী কিংবা একজন ডাক্তার এর মধ্যেই আটকে থাকতে চান না। ইচ্ছে আছে মানুষের জন্য মনে রাখার মতো কিছু করার। বিশেষ করে সমাজের সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের জন্য তার মন পোড়ে সবসময়। তাদের পাশে দাঁড়াতে চান ভবিষ্যতে। স্নেহের পরশে তাদের মুখে হাসি ফোটাতে চান জীবনভর।

৮ ডিসেম্বর প্রিয় এই শিল্পীর জন্মদিন। প্রতি বছরের মতো এই বিশেষ দিনে ভক্তদের পাঠানো ফুলে-ভালোবাসায় ভরে যাবে তার ঘর। যদিও নিজের প্রিয়জনদের সঙ্গেই কাটাবেন দিনটি।

ঐশীর মায়ায় কেটে যাক ভক্তদের বছরের শেষ কটা দিন। মুঠো মুঠো ভালোবাসা ঐশীর জন্য।