বন্ধুরা পরামর্শ দিয়েছিল সংবাদ পাঠিকা হওয়ার। এর কারণ একটাই- শান্তা জাহান খুব গুছিয়ে কথা বলতে পারেন। বন্ধুদের এই পরামর্শ মেনে সংবাদ পাঠিকা হওয়ার প্রস্তুতি নেওয়া শুরু করেছিলেন শান্তা জাহান। কিন্তু হঠাৎ করেই বদলে যায় তার পথচলার পরিকল্পনা। যে কারণে সংবাদ পাঠিকার বদলে তিনি হয়ে যান উপস্থাপক। তা কীভাবে সম্ভব হলো জানতে চাইলে শান্তা জাহান বলেন, 'কয়েক বছর আগের কথা। এক দিন আমি পান্থপথের বসুন্ধরা মার্কেটে ঘোরাঘুরি করছিলাম। হঠাৎ চোখে পড়ল চ্যানেল নাইনের কিছু লোকজন নতুন উপস্থাপক খুঁজে ফিরছেন। তাদের কাছে উপস্থাপনার অডিশন দেওয়ার জন্য ফরমও ছিল। সেদিন কোনো কিছু চিন্তা না করেই আমি একটা ফরম ফিলআপ করে জমা দিই। এর পরদিনই অডিশনের জন্য ডাক আসে। নির্ধারিত দিনে অডিশন দিই এবং নির্বাচিত হই। এরপর আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি। সেই যে শুরু হলো উপস্থাপনা, এখনও তা চলছেই।' শান্তার এ কথা থেকে জানা গেল, কীভাবে সংবাদ পাঠিকা হতে চেয়ে উপস্থাপক হয়ে গেলেন। এর চেয়ে অবাক করা বিষয় হলো, উপস্থাপক হিসেবে বিভিন্ন টিভি আয়োজন ও স্টেজ শোতে তাকে নিয়মিত দেখা গেলেও মনের মধ্য তিনি লালন করেন অভিনেত্রী হওয়ার স্বপ্ন। তার কাজ আর চাওয়া-পাওয়ার সঙ্গে এখানেই খানিকটা অমিল। অবশ্য শান্তার স্বপ্ন যে অধরাই থেকে যাবে, তা কিন্তু নয়।

কেননা অভিনেত্রী হিসেবে পথচলার সুযোগ এসেছে তার। 'নাইন অ্যান্ড এ হাফ', 'ব্যাক বেঞ্চারস', 'বউ বিবি গোলাম', 'ম্যাডাম তোমাকে ভালোবাসি'সহ বেশ কিছু নাটকে অভিনয় করে দর্শকের নজরও কেড়েছেন তিনি। মডেল হিসেবেও কাজের অভিজ্ঞতা আছে তার। এককথায়, মিডিয়ায় তার কাজের মাধ্যম ও পরিধি বেড়েই চলছে। শান্তা জাহানের কাছে তাই জানতে চাওয়া হয়েছিল, উপস্থাপনার পাশাপাশি অভিনয়ে নিয়মিত হতে চান কিনা? এর জবাবে তিনি বলেন, 'অভিনয়ের প্রতি ভালো লাগা সব সময় ছিল। ভালো কাজের সুযোগ পেলে নিয়মিত অভিনয় করতেও আপত্তি নেই। কিন্তু এটাও সত্যি, অভিনয়ের চেয়ে উপস্থাপনা করতে বেশি ভালো লাগে। নাটকীয় ঘটনার মধ্য দিয়ে উপস্থাপক হয়ে উঠলেও এর প্রতি অন্যরকম এক ভালো লাগা তৈরি হয়েছে। কথা দিয়ে মানুষকে মুগ্ধ করে রাখা, তাদের প্রশংসা, ভালোবাসা পাওয়া যে কতটা আনন্দের, তা বলে বোঝাতে পারব না। এখনও তো উপস্থাপনা হয়ে উঠেছে আমার ধ্যান-জ্ঞান।

তাই অভিনয় করলেও এই কাজ থেকে নিজেকে দূরে সরিয়ে রাখতে চাই না।' শান্তার এ কথায় বোঝা গেল অভিনয়ের প্রতি ভালো লাগা থাকলেও উপস্থাপনাকে প্রাধান্য দিয়ে থাকেন তিনি। এখন কথা হলো নাটক, টেলিছবির পাশাপাশি যদি চলচ্চিত্রে অভিনয়ের সুযোগ আসে তাহলে বড় পর্দায় নিজেকে তুলে ধরবেন, নাকি নিজের শিল্পীসত্তাকে ছোট পর্দার মধ্যে বন্দি করে রাখবেন- এ প্রশ্নের জবাবে শান্তা বলেন, 'অস্বীকার করব না যে, অনেকের মতো আমারও ইচ্ছা বড় পর্দায় নিজেকে তুলে ধরা। সিনেমার প্রস্তাবও পেয়েছি। তবে বুঝেশুনে কাজ করতে চাই। অমিতাভ রেজা চৌধুরী, মোস্তফা সরয়ার ফারুকী, গাজী রাকায়েতের মতো পরিচালকের সঙ্গে কাজ করার স্বপ্ন দেখি। সেই স্বপ্ন পূরণের জন্য প্রস্তুতিও নিচ্ছি। এখন শুধু প্রতীক্ষার পালা- কখন আসবে কাঙ্ক্ষিত সিনেমায় অভিনয়ের সুযোগ।'

মন্তব্য করুন