যার হাত ধরে কান চলচ্চিত্র উৎসবে অফিসিয়াল সিলেকশনে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশের নাম উঠল, এখন সেই তরুণ নির্মাতা আবদুল্লাহ মোহাম্মদ সাদকে নিয়ে দেশি-বিদেশি গণমাধ্যমেও চর্চা চলছে। তরুণ মেধাবী নির্মাতা আবদুল্লাহ মোহাম্মদ সাদের চলচ্চিত্র যাত্রা শুরু হয় প্রায় এক যুগ আগে। তখন কয়েকটি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র নির্মাণ করেন তিনি। এরপর ২০১২ সালে দেশ টিভির জন্য নির্মাণ করেন তার প্রথম ফিকশন 'একটি অপ্রকাশিত কবিতা'। এরপর তৈরি করতে থাকেন নিজের প্রথম সিনেমা 'লাইভ ফ্রম ঢাকা'র চিত্রনাট্য। ২০১৬ সালে খুব কম বাজেটে ছবিটি নির্মাণ করেন। তখনও পর্যন্ত বলতে গেলে সাদকে ঠিক সেভাবে কেউ চেনেন না। এরপর ২৭তম সিঙ্গাপুর চলচ্চিত্র উৎসবে 'লাইভ ফ্রম ঢাকা'র জন্য সেরা পরিচালক নির্বাচিত হন সাদ। অচেনা এই মেধাবী তরুণকে নিয়ে হৈচৈ পড়ে যায়। তাকে নিয়ে চলচ্চিত্রপ্রেমীদের আগ্রহ তৈরি হয়। বাংলাদেশে মুক্তির আগে 'লাইভ ফ্রম ঢাকা' রটারডম, লোকার্নো, সিনেইউরোপাসহ বেশ কয়েকটি চলচ্চিত্র উৎসবে প্রদর্শিত হয়। ২০১৯ সালে ছবিটি মুক্তির পর বোদ্ধামহলেও প্রশংসিত হয়। সেই সময় থেকে সাদ তার দ্বিতীয় সিনেমা 'রেহানা মরিয়ম নূর'-এর কাজ শুরু করেন। অনেকটা গোপনে ছবির দৃশ্যধারণ শেষ করেন।

এমনকি ছবির নাম, বিষয়, পাত্র-পাত্রী নিয়ে কিছুই প্রকাশ করতে চাননি এ নির্মাতা। ২০২১ সালে কানের অফিসিয়াল সিলেকশনে জায়গা পাওয়ার পর জানা গেল সেই ছবির নাম 'রেহানা মরিয়ম নূর'। রেহানা মরিয়ম নূর নামে একজন সহকারী অধ্যাপকের জীবন-সংগ্রামের গল্পে নির্মিত এ ছবির প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন অভিনেত্রী আজমেরী হক বাঁধন। ছবিটি বাংলাদেশের জন্য এনে দিয়েছে বিরল এক সম্মান। বিষয়টি নিয়ে আবদুল্লাহ মোহাম্মাদ সাদ বলেন, "কান উৎসবের অফিসিয়াল সিলেকশনে 'রেহানা মরিয়ম নূর' আমন্ত্রিত হওয়ায় আনন্দিত এবং সম্মানিত। এই অর্জন পুরোপুরি আমার টিমের। তারা অনেক পরিশ্রম আর কষ্ট করে নিজেদের সেরাটা দিয়েছেন।

আমি কৃতজ্ঞ আমার টিম এবং অভিনয়শিল্পীদের কাছে। তারা ছাড়া আমি কখনোই এতদূর আসতে পারতাম না।" প্রায় এক যুগের চলচ্চিত্র যাত্রায় সাদ সব সময় নিজেকে আড়াল করে রেখেছেন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে নেই কোনো তার অ্যাকাউন্ট। এমনকি ইন্টারনেটে তার দুই থেকে তিনটির বেশি ছবিও খুঁজে পাওয়া দুস্কর! কারণ, এই তরুণ নির্মাতা নিজের মতো নীরবে নিজের কাজ করে যেতে চান। কথার ফুলঝুরি না ছড়িয়ে বরাবরই কাজে ডুবে থাকতে ভালোবাসেন ৩৬ বছর বয়সী এ নির্মাতা। নিজের প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান খেলনা ছবি থেকে নিয়মিত বিজ্ঞাপনচিত্র নির্মাণ করেন তিনি।

মন্তব্য করুন