ক্যাম্পাস

ক্যাম্পাস

বিদেশে পড়াশোনা

কানাডার হাতছানি

প্রকাশ: ১২ জুন ২০১৬

সজীব রায়

উচ্চশিক্ষায় বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরা এখন বেশ এগিয়ে। দেশের গণ্ডি পেরিয়ে শিক্ষার্থীরা বিদেশেও পাড়ি জমাচ্ছেন।কানাডার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর ডিগ্রি যুক্তরাষ্ট্র এবং কমনওয়েলথভুক্ত দেশগুলোর সমতুল্য এবং সারাবিশ্বে কানাডার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে নেওয়া ডিগ্রিকে স্বীকৃতি দেওয়া হয়। কানাডার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর ডিগ্রি বিশ্বের প্রথম সারির দেশগুলোর সঙ্গে তুলনীয় হলেও অধিকাংশ ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের টিউশন ফি এবং থাকার খরচ যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রিটেনের তুলনায় কম। জাতিসংঘের করা সবচেয়ে বাসযোগ্য দেশগুলোর তালিকায় কানাডা সবসময়ই ওপরের দিকে থাকে। দেশটিতে পড়াশোনা করতে আসা আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীরাও কানাডার নাগরিকদের মতো স্বাধীনতা, মানবাধিকার, সমতা ইত্যাদি সুবিধা ভোগ করেন। পৃথিবীর যে কোনো প্রান্ত থেকে মানুষ সেখানে গিয়ে নিজস্ব খাবার ও সংস্কৃতির সংস্পর্শে থাকতে পারেন আর আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের স্টুডেন্ট অ্যাডভাইজরও এ ধরনের বিভিন্ন সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার ক্ষেত্রে সাহায্য করেন। কানাডার শিক্ষা কার্যক্রমে ইংরেজি ও ফরাসি এই দুই ভাষা ব্যবহৃত হয়। এখানে পড়াশোনার পাশাপাশি ভাষাগত দক্ষতাও বাড়িয়ে নেওয়ার সুযোগ পান শিক্ষার্থীরা। দেশটির শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো সরকারি হলেও স্বায়ত্তশাসিত। কাজেই কোনো প্রতিষ্ঠান কোনো কোর্স অফার করলে আপনি নিশ্চিত থাকতে পারেন কোর্সটি করানোর মতো অবকাঠামো তাদের আছে। কানাডার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর অধিকাংশ কোর্স একটি প্রাদেশিক বোর্ডের মাধ্যমে কেন্দ্রীয়ভাবে নিয়ন্ত্রণ করা হয়। কানাডার বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর কোর্সগুলোকে দুটো লেভেলে ভাগ করা হয়। একটি আন্ডারগ্র্যাজুয়েট বা ব্যাচেলর ডিগ্রি আর অন্যটি পোস্টগ্র্যাজুয়েট। মাস্টার্স এবং পিএইচডিকে পোস্টগ্র্যাজুয়েট লেভেলের অংশ হিসেবে দেখা হয়।