ক্যাম্পাস

ক্যাম্পাস


রঙে রঙিন সারাদিন

প্রকাশ: ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০      

গোলাম কিবরিয়া

কল্পনার জগৎকে রংতুলিতে বাস্তব করে নিয়ে আসেন চিত্রশিল্পী। সে এক যেন কল্পনা আর বাস্তবের মিশেলে অন্যরকম জগৎ। রংতুলি দিয়ে ক্যানভাসে একুশে ফেব্রুয়ারিকে ফুটিয়ে তুলেছে এ প্রজন্মের শিশু-কিশোররা। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে 'রং মশাল' নামে একটি চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার আয়োজন করে রাজধানীর বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সী আবদুর রউফ কলেজের ফটোগ্রাফি ক্লাব। একঝাঁক খুদে আঁকিয়ে একসঙ্গে হয়েছিল তাদের আঁকা চিত্রকর্ম নিয়ে। সেরা ২১টি ছবি নিয়ে আয়োজন করা হয় প্রদর্শনীর। কলেজ মিলনায়তনে সকাল ৮টায় এ প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন অধ্যক্ষ লে. কর্নেল হাফেজ মো. জোনায়েদ আহাম্মদ। দিনভর প্রদর্শনীকে ঘিরে শিশু-কিশোরদের ভিড় ছিল লক্ষণীয়। একদিকে 'তর্জনী' তুলে স্বাধীনতার ডাক দিচ্ছেন বঙ্গবন্ধু, অন্যদিকে রাষ্ট্রভাষার দাবিতে পথে মিছিল। একুশের হাত ধরে স্বাধীনতা বাঙালির মুক্তিসংগ্রাম যেন মিশে গেছে একই পথে। এভাবেই একুশের গৌরবকে তুলে ধরেছে শিশু-কিশোররা। অনেকেই এসেছে মা-বাবার হাত ধরে। আর বিস্ময় চোখে দেখছে একুশের গৌরবকে। তৃতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থী প্রাঙ্গণ সরকার জানায়, 'এখানে এসে আমি অনেক আনন্দ করেছি। আমার ছবি আঁকতে অনেক ভালো লাগে। আজ আমি হাতে রং মেখে একুশে ফেব্রুয়ারি লিখেছি। ভাষাশহীদদের গল্প শুনে আমার অনেক ভালো লেগেছে।' প্রথম থেকে দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীরা তিনটি ক্যাটাগরিতে অংশ নেয় এ প্রতিযোগিতায়। স্কেচ, প্যাস্টেল রং, অ্যাক্রেলিক ও জলরঙে আঁকা অসংখ্য ছবি থেকে তিনটি বিভাগে সেরা আঁকিয়ে নির্বাচিত হয় যথাক্রমে ঋষভ শীল হূদ্ধি (প্রথম শ্রেণি), তাজিয়া তাহসিন (নবম শ্রেণি), মারুফা আক্তার রিতু (একাদশ শ্রেণি)। 'ক' বিভাগে সেরা আঁকিয়ে ঋষভ শীল হূদ্ধি জানায়, 'আমার আঁকা ছবি দেয়ালে টানানো দেখে আমার মা-বাবা অনেক খুশি হয়েছেন। আমার অনেক ভালো লেগেছে।' ছবি আঁকার পাশাপাশি অন্যদিকে চলছিল 'আমার চোখে বঙ্গবন্ধু' নামক গল্প বলার পর্ব। স্কুল-কলেজপড়ুয়া শিক্ষার্থীদের মাঝে একুশের চেতনা পৌঁছে দেওয়ার উদ্দেশ্যে করা এ আয়োজনটি বড়দের কাছেও প্রশংসা পায়। প্রতিযোগিতায় সেরা ২১ জন প্রতিযোগীর জন্য কর্মশালায় অংশ নেওয়ার সুযোগ রয়েছে বলে জানান ক্লাবটির সভাপতি মুহম্মদ আসিফ হাসান। আসিফ আরও জানান, এই আয়োজনে শিক্ষর্থীদের ব্যাপক সাড়া পেয়ে আমরা বেশ আনন্দিত। পিসিআরসি ক্লাবের 'রং মশাল' প্রতিবছর আয়োজনের ইচ্ছে রয়েছে আমাদের। রং মশালে উৎসব পরিচালক হিসেবে ছিলেন মুহম্মদ আসিফ হাসান। তিনি জানান, রং মশাল আয়োজনের উদ্দেশ্য ছিল শিশু-কিশোরদের মাঝে একুশকে তুলে ধরা ও একুশ নিয়ে ওদের ভাবনাকে সবার মাঝে তুলে ধরা। প্রথমবারের মতো করা এ আয়োজনে শিশু-কিশোরদের স্বতঃস্ম্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ দেখে আমরা অনুপ্রাণিত। এ বছর আমরা একটি আন্তর্জাতিক আলোকচিত্র প্রদর্শনী আয়োজনের পরিকল্পনা করছি। এ ছাড়া উৎসব সহপরিচালক হিসেবে ছিলেন নাজমুল রাব্বী ও সমন্বয়কারী জান্নাত রিয়া, সাদ্দাত সিয়াম।

ফটোগ্রাফি ক্লাব অব রউফ কলেজের মডারেটর ও কলেজটির আইসিটি বিভাগের প্রভাষক নাদিরা চৌধুরী রং মশাল আয়োজনে ক্লাবের সদস্যদের ধন্যবাদ জানান।