ক্যাম্পাস

ক্যাম্পাস

জিআরই

এগিয়ে রাখবে এক ধাপ

প্রকাশ: ২৬ অক্টোবর ২০২০

গোলাম কিবরিয়া

ইউএস, কানাডাসহ অনেক দেশের বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য জিআরই পরীক্ষার প্রয়জোন হয়। ভালো জিআরই স্কোর থাকলে তা ভর্তির ক্ষেত্রে গুরুত্বসহকারে বিবেচনা করা হয়


জিআরই মানে কী?

গ্র্যাজুয়েট বা মাস্টার্স প্রোগ্রামে ভর্তির ক্ষেত্রে আবেদনকারীর দক্ষতা যাচাইয়ের জন্য বিশ্বে বহুল ব্যবহূত পরীক্ষাটির নামই হলো জিআরই পরীক্ষা। আমরা সবাই জানি, পড়াশোনার মান এবং ইভ্যালুয়েশন পদ্ধতি দেশ, বিশ্ববিদ্যালয়ভেদে ভিন্ন। কোথাও ১০০-তে ৮০ পেলেই চার-এ চার পাওয়া যায়, আবার কোথাও চার পেতে ৯৭ পেতে হয়। এক দেশের বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীর সঙ্গে আরেক দেশের আরেক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীর সিজিপিএ তুলনা করে সত্যিকার অর্থে কে বেশি মেধাবী তা নির্ণয় করা দুরূহ। এখন যদি এই দুই শিক্ষার্থীই একটি কমন পরীক্ষা মানে জিআরই দেয়, তাহলে তাদের জিআরই স্কোর দেখে মেধার তুলনামূলক সঠিক চিত্র পাওয়া যাবে। প্রতিবছর ১৬০টি দেশের এক হাজারেরও বেশি টেস্ট সেন্টারে হাফ মিলিয়নের থেকে বেশি শিক্ষার্থী জিআরই জেনারেল টেস্ট দিয়ে থাকে।

কেন জিআরই দেবেন?

ইউএস, কানাডার বিশ্ববিদ্যালয়সহ অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য জিআরই পরীক্ষা বাধ্যতামূলক দেওয়া লাগে। এর বাইরে অন্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলোয় ভালো জিআরই স্কোর থাকলে তা অ্যাডমিশনের ক্ষেত্রে গুরুত্বসহকারে বিবেচনা করা হয়। এ ছাড়া ভালো জিআরই স্কোর সব সময়ই ফান্ড পেতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে। বর্তমানে দুই ধরনের জিআরই টেস্ট দেওয়া যায়। এগুলো হলো জিআরই জেনারেল টেস্ট এবং জিআরই সাবজেক্ট টেস্ট।

মেধা-দক্ষতা প্রমাণের জন্য জিআরই

বাংলাদেশে আপনি প্রকৌশল, বাণিজ্য কিংবা কলা অনুষদের যে কোনো বিষয়েই পড়ুন না কেন, যুক্তরাষ্ট্রের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে যে কোনো বিষয়ে পড়ার ক্ষেত্রে আবেদনের জন্য জিআরই স্কোর প্রয়োজন হয়। জাপান, অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ কোরিয়ার অনেক বিশ্ববিদ্যালয়েই জিআরই স্কোর গ্রহণ করা হয়। ৩৪০ নম্বরের এই পরীক্ষায় ভারবাল রিজনিং, কোয়ান্টিটেটিভ রিজনিং আর অ্যানালিটিক্যাল রাইটিংয়ের ওপর প্রশ্ন থাকে। ets. org/gre ওয়েবসাইট থেকে পরীক্ষার জন্য নাম নিবন্ধন করা যায়।

জিআরই জেনারেল টেস্ট কী

জিআরই পরীক্ষা বলতে আমরা মূলত জিআরই জেনারেল টেস্টকেই বুঝি। জিআরই জেনারেল টেস্ট এমএস, এমবিএ-সহ প্রায় সব প্রোগ্রামে গ্রহণ করা হয়ে থাকে। ভার্বাল এবং কোয়ান্টেটিভ রিজনিংয়ের পাশাপাশি অ্যানালিটিক্যাল রাইটিংয়ের ওপর এক্সাম নেওয়া হয়ে থাকে।

জিআরই সাবজেক্ট টেস্ট কী

জিআরই সাবজেক্ট টেস্টে নির্দিষ্ট একটি সাবজেক্টের দক্ষতা দেখা হয়। গণিত, ইংরেজি সাহিত্য, পদার্থ, মনোবিজ্ঞান, জীববিজ্ঞান, রসায়ন এই সাবজেক্টগুলোর জিআরই সাবজেক্ট টেস্ট আছে। আগে প্রাণরসায়নের ওপরও জিআরই সাবজেক্ট টেস্ট দেওয়া যেত। ২০১৬ সালের পর থেকে এ বিষয়ের ওপর জিআরই সাবজেক্ট টেস্ট আর নেওয়া হচ্ছে না।

জিআরই রেজিস্ট্রেশন করবেন যেভাবে

জিআরই এক্সামের জন্য রেজিস্ট্রেশন করতে প্রথমে ETS account খুলতে হবে। অ্যাকাউন্ট খোলার পর জিআরই জেনারেল টেস্ট দিতে চান নাকি জিআরই সাবজেক্ট টেস্ট দিতে চান তা ঠিক করতে হবে। এরপর এক্সাম ডেট এবং সেন্টার সিলেক্ট করতে হবে। সিট বুকিংয়ের কাজ হয়ে গেলে পেমেন্ট পেজ আসবে। অনলাইনে ইন্টারন্যাশনাল ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে ফি ২০৫ ইউএস ডলার পরিশোধ করতে পারবেন। নাম নিবন্ধনের সময়েই নির্ধারিত কেন্দ্র নির্বাচন করে পরীক্ষার সময় ঠিক করে নিতে হয়।

জিআরই সিলেবাস

জিআরই পড়াশোনা শুরু করার জন্য আপনাকে জিআরই পরীক্ষার ধরন সম্পর্কে জানতে হবে। জিআরই এক্সাম তিন ভাগে নেওয়া হয়ে থাকে।

অ্যানালিটিক্যাল রাইটিং ভার্বাল এবং কোয়ান্টিটেটিভ

অ্যানালিটিক্যাল রাইটিংয়ের সময় এক ঘণ্টা, মানে ৬০ মিনিট। এই সময়ে আপনাকে ইস্যু এবং আরগুমেন্টিভ- এই দুই ধরনের রচনা লিখতে হবে। প্রতি সেকশনে বরাদ্দ থাকবে ত্রিশ মিনিট সময়। নম্বর দেওয়া হয় ১ থেকে ৬ স্কেলে। ইংরেজিতে লেখার দক্ষতা এবং আপনার বিশ্নেষণী দক্ষতা ভালো হলে রাইটিংয়ে সহজেই ৩.৫-৪ পাওয়া সম্ভব।