ফেসবুক চালান না এমন মানুষ বর্তমানে খুবই কম। কিন্তু ফেসবুকে মানুষ নানা রকম বিড়ম্বনায় পড়ছেন। এর মধ্যে অন্যতম বড় সমস্যা ফেক আইডির বিড়ম্বনা। ফেক আইডি সেগুলোকেই বলা হয়. যেগুলোয় ব্যবহারকারীর নাম, ঠিকানা, পরিচয়, লিঙ্গ, জন্ম, ব্যক্তিগত তথ্য, অবস্থান, কর্মক্ষেত্র, ছবি, পড়াশোনার স্থানসহ ব্যক্তিগত বিষয়ে ভুল তথ্য দেওয়া থাকে। আইডির মালিক পুরুষ নাকি মহিলা বোঝার কোনো উপায় থাকে না। বিভিন্ন নাম দিয়ে যেমন মিষ্টি মেয়ে, এঞ্জেল, বোকা মানুষ, দুষ্ুদ্ব ছেলের মিষ্টি বউ, নীলপরী, লালপরী, সুখের পাখি, মেঘ বালক ইত্যাদি নামে আইডি খোলা থাকে। এমনকি মানুষের নামেও আইডি খোলা হয়। এমন ফেক আইডির বিড়ম্ব্বনার শিকার হয়ে অনেকেই হতাশাগ্রস্ত এবং কখনও কখনও মানসম্মান হারান।

অনেক সময় না বুঝতে পেরে অনেকেই এসব আইডির রিকোয়েস্ট অ্যাকসেপ্ট করে ফেলেন। অনেককে দেখা যায় এক পর্যায়ে ভালোবাসার সম্পর্কেও জড়িয়ে পড়েন অথবা অনৈতিক সম্পর্কের মতো জঘন্যতম কাজে লিপ্ত হয়ে যান। এভাবে পরিচয়-কথাবার্তায় ব্যক্তিগত তথ্য আদান-প্রদান করে ফেলেন। শেষ পরিণতি হয় ব্ল্যাকমেইল নামক শব্দ। এমনও আছে পরিচয়ের একপর্যায়ে অশ্নীল ছবি ভাইরাল করার কথা বলে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নেয় প্রতারকরা। ফেক আইডির পাল্লায় পড়ে এমন হাজারো হয়রানির শিকার হন মানুষ। করোনাকালে মানুষ বিভিন্ন পণ্য ফেসবুক পেজ কিংবা গ্রুপের মাধ্যমে অর্ডার করেন। অনেক অসাধু ব্যবসা-সম্পৃক্ত লোক ফেক আইডি খুলে বিভিন্ন অনলাইন ব্যবসা শুরু করে আর মানুষ হয় প্রতারিত।

একটু সচেতন হলেই ফেক আইডি থেকে রেহাই পাওয়া সম্ভব। অপরিচিত কারও ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট অ্যাকসেপ্ট না করা, বিভিন্ন ব্রাউজারে ফেসবুক পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন না করা, কোনো লিংক হুট করে না বুঝে ক্লিক না করা। অনলাইনে কেনাকাটার ব্যাপারে সচেতন হওয়া। নিজের ব্যক্তিগত সব তথ্য ফেসবুকে শেয়ার না করা। সব সময় নিজের লোকেশন সম্পর্কে ফেসবুকে আপডেট না দেওয়াই ভালো।

সহজেই ফেসবুকের ভুয়া আইডি শনাক্ত করা যায়। প্রথম উপায় হলো প্রোফাইল পিকচার খেয়াল করা। বেশিরভাগ ফেক আইডির প্রোফাইল পিকচারে বিভিন্ন সিনেমার নায়ক-নায়িকা কিংবা পুতুলের ছবি বা ফুল, পাখির ছবি দেওয়া থাকে। অধিকাংশ ক্ষেত্রে সেই ছবির মান খুবই খারাপ থাকে। প্রোফাইলে ছবির অ্যালবাম থাকে না সাধারণত।

ফেসবুক প্রোফাইলে স্বাভাবিকভাবেই স্ট্যাটাস ও ছবিতে বন্ধুদের সঙ্গে প্রচুর ছবি, কমেন্ট থাকে। কিন্তু নকল ফেসবুক প্রোফাইলে কোনো ধরনের ছবি বন্ধুদের সঙ্গে থাকে না। আদান-প্রদান ও কথোপকথন থাকে না। ফেসবুকের ফেক আইডি কিনা সেটা বুঝতে ফ্রেন্ড লিস্ট দেখুন। ফ্রেন্ড লিস্টে যারা থাকবেন তাদের অধিকাংশ মানুষের আইডিও ফেক আইডিই হয়। কারণ একটি ফেক আইডির বন্ধুগুলোও ফেক আইডির হয়ে থাকে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে। এরপর বেসিক ইনফো বা পরিচয় খেয়াল করুন। ফেক আইডিতে অধিকাংশ সময়েই স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় ও চাকরির সঠিক তথ্য দেওয়া থাকে না। আবার অনেক সময় অনেক ভালো স্কুল-কলেজের নাম দেওয়া থাকে। তখনই আপনি বুঝতে পারবেন এটা ফেক আইডি। া

মন্তব্য করুন