শৈলী

শৈলী

জামদানি উৎসব ২০১৯ ঐতিহ্যের বিনির্মাণ

প্রকাশ: ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯

গত ৬ সেপ্টেম্বর বিকেল ৫টায় বেঙ্গল শিল্পালয়ে (বাড়ি-৪২, সড়ক-২৭, শেখ কামাল সরণি, ধানমণ্ডি, ঢাকা) বিশিষ্ট অতিথিদের সমাগমে উদ্বোধন হয় 'ঐতিহ্যের বিনির্মাণ' শীর্ষক পাঁচ সপ্তাহব্যাপী প্রদর্শনী। প্রদর্শনীতে থাকছে পুরনো সংরক্ষিত শাড়ির সংগ্রহ, গবেষণাসঞ্জাত তথ্যউপাত্তসহ সোনারগাঁর কৃতী জামদানি বয়নশিল্পীদের তৈরি একশ' বছরের পুরনো নকশার অনুকরণে অসাধারণ ও অবিশ্বাস্য নৈপুণ্যে নতুন করে বয়নকৃত শাড়ি ও বস্ত্রসম্ভার। উদ্বোধনী দিনে ছিল জামদানি উৎসবের সঙ্গে যুক্ত চারজন শ্রেষ্ঠ বয়নশিল্পী ও তাদের সহকারীদের শ্রেষ্ঠ কারুশিল্পী পুরস্কার প্রদান; বয়নশিল্প, বিশেষ করে জামদানি বয়নের অতীত, বর্তমান ও ভবিষ্যৎ নিয়ে আলোচনা এবং আগামীর পথনির্দেশের জন্য লন্ডনের ভিক্টোরিয়া অ্যান্ড অ্যালবার্ট মিউজিয়ামসহ দেশি-বিদেশি বিশেষজ্ঞদের অংশগ্রহণে সেমিনার আয়োজন। ৭ সেপ্টেম্বর ডব্লিউভিএ মিলনায়তন, বাড়ি-২০, সড়ক-২৭, ধানমণ্ডিতে এটি অনুষ্ঠিত হয়। ঐতিহ্য সংরক্ষণ ও চর্চা বহমান রাখতে উচ্চাকাঙ্ক্ষী এই প্রয়াসের মধ্য দিয়ে বিশেষ একটি নজির স্থাপনা এ আয়োজনের উদ্দেশ্য। প্রদর্শনী উপলক্ষে িি.িলধসফধহরভবংঃরাধষ.পড়স শিরোনামে তথ্যউপাত্তসহ ওয়েবসাইট উপস্থাপন করা হয়েছে। প্রদর্শনী সবার জন্য উন্মুক্ত। নিরাপত্তার স্বার্থে বেঙ্গল শিল্পালয়ের প্রবেশপথে প্রাথমিক পর্যবেক্ষণ করা হবে। দুষ্প্রাপ্য জামদানি বস্ত্রের বিস্ময়কর বয়নসৌকর্য বাংলাদেশের জামদানি বয়নশিল্পীদের দক্ষতা, প্রজ্ঞা ও নৈপুণ্যের সাক্ষ্য বহন করে। অথচ জীবিকার দায়ে বাজারের লঘু চাহিদার শিকার হয়ে এরাই এখন নিকৃষ্টমানের শাড়ি তৈরি করছেন, যার সঙ্গে বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী জামদানির কোনো ধারাবাহিক সম্পর্ক নেই। এর ফলে একটি মূল্যবান ঐতিহ্য বিনষ্ট হওয়ার পাশাপাশি জামদানির প্রকৃত রূপ সবার অগোচরে রয়ে যাচ্ছে। আমরা বিশ্বাস করি, এই গৌরব হারিয়ে যায়নি, বিস্মৃত হয়েছে মাত্র। বাংলাদেশের বয়নশিল্পীদের অপরিসীম দক্ষতায় ভরসা রেখেই এই ঐতিহ্য পুনরুদ্ধার সম্ভব। এ কাজে সম্পৃক্ত হয়েছে জামদানি বয়নশিল্পের চর্চা। উন্নয়নে প্রায় চল্লিশ বছর ধরে অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে, এমন চারটি দেশীয় প্রতিষ্ঠান- আড়ং, টাঙ্গাইল শাড়ি কুটির, কুমুদিনী ও অরণ্য।



লেখা : সারাহ্‌ দীনা; ছবি : শৈলী