শৈলী

শৈলী


৮ বছরে ড্রিম উইভার

প্রকাশ: ০৬ নভেম্বর ২০১৯      

তৌহিদুল ইসলাম তুষার

গ্রাহকদের জন্য নতুন প্রিভিলেজ কার্ড 'দ্য রিং' নিয়ে এলো দেশের অন্যতম বড় ওয়েডিং ফটোগ্রাফি প্রতিষ্ঠান ড্রিম উইভার। প্রতিষ্ঠানটির সাত বছর পূর্তিতে রাজধানীর একটি হোটেলে গত ২৩ অক্টোবর জমকালো অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এই কার্ডটির উদ্বোধন হয়। একই সঙ্গে দেশের অন্যতম নারী ওয়েডিং ফটোগ্রাফার ইশরাত আমিন ড্রিম উইভারের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার ঘোষণা দেন প্রতিষ্ঠানটির প্রধান ফটোগ্রাফার ও প্রধান নির্বাহী যোবায়ের হোসেন শুভ। তিনি বলেন, আমাদের পরিবারে ভালো একজন নারী ফটোগ্রাফারের অভাব ছিল, আজ তা পূর্ণতা পেল। প্রিভিলেজ কার্ড 'দ্য রিং' সম্পর্কে তিনি বলেন, নতুন একটা জীবনের শুরু হয় রিং পরানোর মধ্য দিয়ে। এই কার্ডটির মাধ্যমে শুধু ড্রিম উইভারেই নয়, বিয়ের প্রয়োজনীয় সব কিছু এমন কি ঘর সাজানোর জিনিস কিনতেও বিশেষ ছাড় মিলবে। ভেন্যু বুকিং, ডেকোরেশন, পার্লার, ফুল, পোশাক, গহনা, হোম অ্যাপ্লায়েন্স এমন কি ফার্নিচারেও কার্ডের গ্রাহকরা পাবেন ছাড়।

এ সময় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় ক্রিকেট দলের সাব্বির রহমান, ম্যাক্স গ্রুপ বাংলাদেশের পরিচালক আজরিন আলম, প্রিমিয়াম সুইটসের প্রধান নির্বাহী এইচএম ইকবাল, শাহজাহান ওয়েডিং প্ল্যানার এবং ইভেন্ট ম্যানেজমেন্টের পরিচালক এসএম ইকরাম মিলন, ওয়েডিং প্ল্যানার প্রতিষ্ঠান সিগমাজের স্বত্বাধিকারী সিগমা মেহদি, মেকওভার প্রতিষ্ঠান গালা মেকওভার স্টুডিও ও সেলুনের স্বত্বাধিকারী নাভিন আহমেদ, প্রিভের স্বত্বাধিকারী নাহিলা হেদায়েত, জাহিদ খান মেকওভারের স্বত্বাধিকারী জাহিদ খান এবং ফেস বাই সালেহার স্বত্বাধিকারী সালেহা সারওয়ার প্রমুখ।

আইইউটি থেকে ইঞ্জিনিয়ারিং সম্পন্ন করা চার তরুণের গড়ে তোলা ওয়েডিং ফটোগ্রাফি-সিনেমাটোগ্রাফি প্রতিষ্ঠান ড্রিম উইভার। ৭ বছর সফলতার সঙ্গে সম্পন্ন করে ড্রিম উইভার তাদের অষ্টম বছরে পদার্পণ করল। এ সম্পর্কে প্রধান নির্বাহী যোবায়ের হোসেন শুভ বলেন, শুরুর দিকের চলার পথটা আমাদের জন্য বেশ কঠিন ছিল। ইঞ্জিনিয়ারিং পড়াশোনা শেষ করে বিয়ের ছবি তোলাকে নিজের পেশা হিসেবে নিয়ে সামনে এগিয়ে যাওয়ার পথটা বেশ কঠিন ছিল। কিন্তু আস্তে আস্তে আমার সঙ্গে বাকি তিনজনের সহায়তা এবং অধ্যবসায়ের ফলে আমরা এত দূর আসতে পেরেছি। ড্রিম উইভারের অন্যতম কর্ণধার নাফিস ফুয়াদ শুভ বলেন, প্রতিষ্ঠানের প্রথম থেকে শেষ সারির প্রত্যেক সদস্যেরই অবদান গুরুত্বপূর্ণ। ৯০ জনের এই প্রতিষ্ঠানের প্রত্যেকেই নিবেদিতপ্রাণ। তাদের সহায়তা ছাড়া এত দূর আসা একদম সম্ভব ছিল না।

২০১০ সাল থেকে ওয়েডিং ফটোগ্রাফি শুরু করেন ইশরাত আমিন। দেশের নারী ওয়েডিং ফটোগ্রাফারদের মধ্যে তিনি অন্যতম। দীর্ঘ নয় বছর এই শিল্পে নিজের সৃজনশীলতা নিয়ে কাজ করেছেন এবং যুক্ত হয়েছেন ড্রিম উইভারে। ইশরাত আমিন জানান, ড্রিম উইভারকে আমি পছন্দ করতাম। তাদের কাজের পাশাপাশি পারিবারিক বন্ধনটা ইর্ষণীয়। এই পরিবারের সঙ্গে যুক্ত হয়ে উইডিং ফটোগ্রাফি শিল্পকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার ইচ্ছা আমাদের।

প্রতিষ্ঠানের আরেক কর্ণধার ইমরান শাহেদ বলেন, প্রিভিলেজ কার্ড দ্য রিংয়ের মাধ্যমে আমরা গ্রাহকদের বাড়তি সেবা দিতে পারব। বিয়ের শুরুতে যেমন একটি আংটির মাধ্যমে দুটি মানুষ পরিবারের বন্ধনে আবদ্ধ হয়, ঠিক তেমনই প্রিভিলেজ কার্ডের মাধ্যমে সবাই ভ্রাতৃত্বের বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে ক্লায়েন্টদের সেবা প্রদানে আরও একধাপ এগিয়ে যাওয়ার স্বপ্ন দেখি। প্রতিষ্ঠানের সর্বকনিষ্ঠ স্বত্বাধিকারী মাজহারুল ইসলাম রাফি বলেন, ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট প্রতিষ্ঠান, মেকআপ সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান, ড্রেস ডিজঅনারসহ উইডিং ইন্ডাস্ট্রির সঙ্গে জড়িত সবাই আমাদের যে পরিমাণ সহযোগিতা করেছেন সেটা না হলে একার পক্ষে হয়তো সামনে এগোনো সম্ভব ছিল না।