শৈলী

শৈলী


ছিমছাম ফিটফাট

প্রকাশ: ০৬ নভেম্বর ২০১৯      

সাফিয়া সাথী

ফ্যাশনের মূলনীতি হচ্ছে সংযোজন ও বিয়োজন। ফ্যাশনে নতুনত্ব আনার লক্ষ্যে প্রতিনিয়ত বদলাচ্ছে আমাদের ফ্যাশন বিষয়ক চিন্তাভাবনা। বর্তমান ফ্যাশনে বাংলার ঐতিহ্যের সঙ্গে যুক্ত হচ্ছে নতুন নতুন আঙ্গিক। এদেশের পোশাক এখন দেশজ ও আন্তর্জাতিক উপকরণ আর নকশার মিশ্রণে তৈরি হচ্ছে।

তরুণদের চোখে গোটা পৃথিবীই রঙিন। জীবনকে সব দিক থেকে উপভোগের চেষ্টা থাকে তাদের মাঝে। যুগে যুগে তাই চলেছে। এখনকার সময়ও ভিন্ন কিছু নয়।

এ সময় ফ্যাশন নিয়ে সবচেয়ে বেশি সচেতন তরুণরাই। দ্বিধা ছাড়াই এ কথা বলা যায়। শুধু দেশীয় ট্রেন্ড নয়, তারা গ্লোবাল ট্রেন্ড দ্বারা বেশ ভালোভাবেই প্রভাবিত। নিজেদের পোশাক নির্বাচনে এর ছাপ পড়ে।

বিভিন্ন মৌসুম ভেদে আসে তারুণ্যের ফ্যাশনে পরিবর্তন। ইয়াং ট্রেন্ডে বেশ কিছু বিষয় লক্ষ্য করা যায়। অনুষ্ঠান, উপলক্ষ, সময়, স্থান ও মৌসুমভেদে পোশাক ও স্টাইলে আসে ভিন্নতা।

তরুণদের দৈনন্দিন রুটিনের সবচেয়ে বড় অংশজুড়ে থাকে ইউনিভার্সিটি ক্যাম্পাস। ক্যাম্পাসে বন্ধুদের আড্ডায় বা ক্লাসে, বাইরে হ্যাং আউটে পোশাক ও স্টাইল নিয়ে বেশ সচেতন এ সময়ের তরুণ-তরুণীরা।

টি-শার্ট ছেলে বা মেয়ে উভয়ের কাছে সর্বাধিক আরামদায়ক ও জনপ্রিয়। এই ভালো লাগা কোনো দিন পুরোনো হয়নি। তাই সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে বাজারে আসছে নানান ধরনের টি-শার্ট।

এক রং, অ্যানিমেটেড, বিভিন্ন ট্যাগ লাইন, টেক্সট, স্টাইপের মতো নানা সম্ভারের টি-শার্ট তরুণদের ওয়ার্ডরোবের বড় একটা জায়গা জুড়ে থাকে।

ডেনিমও তাদের ফ্যাশনে বেশ গুরুত্বপূর্ণ স্থান দখল করে আছে। ডেনিম প্যান্টস, টপ, স্কার্ট এমনকি শার্টের চাহিদাও তরুণদের কাছে তুঙ্গে। ডেনিমের রাম্পার হালের ফ্যাশনে এ বছর বেশ জায়গা করে নিয়েছে। নীল, ফেডেড নীল, কালো, সাদা ডেনিম রাম্পার পরছেন অনেকে টি-শার্টের সঙ্গে এবং টি-শার্ট ছাড়াও। শার্ট বা ফতুয়ার সঙ্গে।

ছেলেদের ফ্যাশনে বটমের জন্য বলা চলে অপ্রতিদ্বন্দ্বী উপাদান ডেনিম। বিশ্ব ফ্যাশনে চোখে পড়ার মতো ট্রেন্ড হচ্ছে রিপড জিন্স। প্যান্টজুড়ে বিভিন্ন রকমের কাটা ছেঁড়া। ছেলে বা মেয়ে সবার কাছেই খুব জনপ্রিয়তা পেয়েছে এই ফ্যাশন।

তরুণীদের পোশাকে বাহারি টপস ইদানীং খুব চোখে পড়ছে। অফ শোল্ডার, কোল্ড শোল্ডার, ক্রপ টপ পরতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করে এ সময়ের ফ্যাশনিস্তারা। এ ছাড়া স্কার্ট, ফ্রক, শার্ট ইত্যাদি আছে তাদের প্রতিদিনের ওয়ার্ডরোবে।

ফ্যাশন জগতে স্ট্রাইপ বেশ জেঁকে বসেছে এখন। তরুণরা পছন্দও করছেন তা। হরাইজেন্টাল, ভার্টিক্যাল, আড়াআড়ি সব ধরনের স্ট্রাইপের পোশাক পরতে দেখা যায় ফ্যাশনপ্রেমী তারুণ্যকে।

এক সময়ের জনপ্রিয় বেলবটম মাঝে ঘুরে এসেছিল তরুণীদের পরনে। এখন মেয়েদের কামিজেও এসেছে আমূল পরিবর্তন। পায়ের গোড়া ছুঁই ছুঁই কামিজের পরিবর্তে এখন হাঁটু পর্যন্ত খাটো কামিজেই বেশি আরাম বোধ করেন মেয়েরা। ফুলহাতা, ছোট হাতা কিংবা হাতা ছাড়া শর্ট কামিজের পাশাপাশি তরুণীরা এখন ফতুয়াতেও অনেক স্বাচ্ছন্দ্য পান। অবশ্য গত বছরের স্ট্রেইট বা সোজা ও লম্বা আকৃতির কাটিংয়ে নিচে ঝোলা হালকা গোল ঘেরের পোশাকের ফ্যাশনও এখন চলছে। পাশাপাশি এসব পোশাকের নকশায় কিছুটা পরিবর্তন এনে মাঝে সালোয়ারের ডিজাইনে ভিন্নতা আনা হলেও ওড়নার নকশাতেও বেশি গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে।

ফ্যাশনের মূলনীতি হচ্ছে সংযোজন ও বিয়োজন। ফ্যাশনে নতুনত্ব আনার লক্ষ্যে প্রতিনিয়ত বদলাচ্ছে আমাদের ফ্যাশনবিষয়ক চিন্তাভাবনা। বর্তমান ফ্যাশনে বাংলার ঐতিহ্যের সঙ্গে যুক্ত হচ্ছে নতুন নতুন আঙ্গিক। এ দেশের পোশাক এখন দেশজ ও আন্তর্জাতিক উপকরণ আর নকশার মিশ্রণে তৈরি হচ্ছে। বিভিন্ন বুটিক হাউস ও ফ্যাশন ব্র্যান্ডগুলো নিত্যনতুন ধারার পোশাক তৈরিতে গুরুত্ব দিয়ে যাচ্ছে। আর এসবের আসল লক্ষ্য হচ্ছেন তরুণরা। কারণ নতুন কিছুর প্রতি প্রথমেই আকৃষ্ট হন তারা।

ফ্যাশনের অন্যতম অনুষঙ্গ ফুটওয়ার। ইয়াং ট্রেন্ডে স্নিকার্স, কনভার্স সর্বাধিক জনপ্রিয় আরামদায়ক ও ট্রেন্ডি স্টাইলের জন্য মানানসই। মেয়েরা হিল, বাহারি স্লিপার পছন্দ করছেন।

তরুণদের একটি প্রয়োজনীয় ও অন্যতম অনুষঙ্গ ব্যাগ। বাইরে যাওয়ার সময় উপলক্ষ ও প্রয়োজনমাফিক বদলায় ব্যাগের আকার ও ধরন। ব্যাগ প্যাক, সাইড বেল্টের ব্যাগ এখন বেশ চলছে। কেউ পছন্দ করে বহো স্টাইল, কেউবা লেদার। বৈচিত্র্যে ভরপুর এখন ব্যাগের বাজারও।

তরুণদের সাজপোশাক জানান দেয় তাদের তুমুল ফ্যাশন সচেতনতা। মেকাপ, হেয়ার স্টাইলে চলছে নানান ভিন্নতা। স্ট্রেইট কাট, ব্লন্ড হেয়ার আছে এ সময়ের ফ্যাশনের তুঙ্গে। আছে নিজেকে সবার থেকে ভিন্নভাবে উপস্থাপনের তাড়না।

রোদচশমায় ফিরে এসেছে ষাটের দশকের স্টাইল। ক্যাটস আই, গোল্ডেন ফ্রেম, সার্কেল ফ্রেমের প্রচলন দেখা যাচ্ছে।

এসব কিছু মিলিয়ে খুব জমজমাট এখন তরুণদের ফ্যাশন জগৎ। ঘূর্ণায়মান পৃথিবীর সঙ্গে তাল মিলিয়ে যা বদলাচ্ছে দ্রুত।