শৈলী

শৈলী


গরমে টি-শার্ট

প্রকাশ: ১৮ মার্চ ২০২০      
হগোলাম কিবরিয়া

দিন বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়ছে গরমের তীব্রতা। এ গরম জানান দেয় গ্রীষ্ফ্মের প্রখরতা। নিত্যদিনের ব্যস্ততা আর গরমের অস্থিরতায় পুরো শরীর ঘেমে একাকার। তাই গরমের আরামে টি-শার্ট উত্তম। এমন অস্বস্তিকর পরিস্থিতিতে গরম থেকে মুক্তি পেতে নজর দিতে হয় নিত্যদিনের পোশাকে। তাই আরাম এবং ফ্যাশনের কথা চিন্তা করে টি-শার্ট বেছে নেওয়াটাই বুদ্ধিমানের কাজ। স্বাচ্ছন্দ্যে কাজ করার পাশাপাশি থাকা যায় ফ্যাশনেবল। এ গরমে সব বয়সের বিশেষ করে তরুণ-তরুণীদের পছন্দের পোশাক হলো টি-শার্ট। টি-শার্ট আরামদায়ক এবং সহজলভ্য পোশাক, যা যে কোনো পরিবেশে মানিয়ে যায়। ক্লাস, শপিং, খেলা, অফিস, বন্ধুদের আড্ডা, ঘুরতে যাওয়া, পার্টিতে অর্থাৎ ঘরে-বাইরে যে কোনো জায়গায় আপনি টি-শার্ট পরতে পারেন। পোলো টি-শার্ট পার্টি বা কোনো অনুষ্ঠানেও পরা যায়। চাহিদা অনুযায়ী পছন্দ ও সব ধরনের হাল-ফ্যাশনের টি-শার্ট পাওয়া যাবে ব্র্যান্ডের শপগুলোতেই। সেই টি-শার্টের ক্যানভাসে হ্যান্ডপেইন্ট, রাবার, ব্লক, স্ট্ক্রিনপ্রিন্টসহ নানা মাধ্যমে ফুটিয়ে তোলা হচ্ছে নানা রকম রং ও নকশায় ফুল, পাখি, প্রকৃতি, ভালোবাসা, প্রতিবাদ, প্রিয় উক্তি, অভিব্যক্তি, ছন্দ-কবিতা, বর্ণমালা, বিখ্যাত কবি-লেখক, দেশপ্রেমী যোদ্ধাদের অবয়ব; বিজয়, একুশ, স্বাধীনতাসহ হাজারো মোটিফ! কী নেই! নিত্যউপহারের স্বত্বাধিকারী বাহার রহমান জানালেন, 'অন্য সময় কালো রঙের টি-শার্টের চাহিদা থাকলেও গরমের এ সময়ে সাদা ও হালকা রঙের টি-শার্টের চাহিদা বেশি। বলেন, 'শুধু আমাদের দেশেই নয়, পৃথিবীর অন্যান্য দেশেও ছেলেদের কাছে টি-শার্ট দারুণ জনপ্রিয়। আরামের পাশাপাশি সাশ্রয়ী দামের জন্যই টি-শার্ট ফ্যাশন ট্রেন্ডে পরিণত হয়েছে।' তিনি এর সঙ্গে আরও যোগ করে বলেন, নিত্যউপহারের টি-শার্ট- একটা ধারাবাহিক সিরিজ, যাকে আমরা বলেছি 'ঐতিহ্য, সংস্কৃতি ও ব্যক্তিত্ব ধারাবাহিক'।

ফেব্রিক্সের রকমসকম

টি-শার্টে সুতি ও নিট ফেব্রিক্সের কাপড় ব্যবহার করা হয়। এ ছাড়া কটন, পলিয়েস্টারসহ বিভিন্ন কাপড়ের টি-শার্টও পাওয়া যায়। টি-শার্ট ঘাড়ের অংশ থেকে দেহের উপরাংশ কবন্ধের বেশিরভাগ স্থান ঢেকে রাখে। ফলে টি-শার্ট গরমে সবচেয়ে গ্রহণযোগ্য। এখন কেমন টি-শার্ট পরবেন এটাই ভাবছেন তো। গ্রীষ্ফ্মের তীব্র আবহাওয়াই ভারী কাপড়ের টি-শার্ট নয়, একটু হালকা খোলামেলা টি-শার্ট পরলে ভালো হয়। সুতি কাপড়ের টি-শার্ট সবচেয়ে বেশি আরামদায়ক। টি-শার্টে এমন কাপড় বেছে নিন, যা হালকা-পাতলা সেইসঙ্গে বাতাস চলাচলে উপযোগী। যেমন গোল গলা বা ভি গলা হলে ভালো হয়। কলারসহ টি-শার্ট বার্থডে পার্টি, গেট টুগেদার পার্টি এমন জায়গায় পরতে পারেন। তবে সব সময় ব্যবহারের জন্য খোলা গলার টি-শার্ট পরাই ভালো। এতে আপনি স্বস্তিবোধ করবেন।

নকশা বৈচিত্র্য/টি-শার্ট ট্রেন্ড

মজাদার সব মেসেজ আর প্রাঙ্ক কার্টুনের তৈরি টি-শার্ট এখন খুব চলছে। প্রিয় ব্যক্তিত্বের ছবি ও লোগো নকশার টি-শার্ট জনপ্রিয় ট্রেন্ড। নানারকম পকেট দেওয়া টি-শার্টও এখন চলছে বেশ। গরম ও বৃষ্টির দিকে লক্ষ্য রেখে হাল ফ্যাশনের টি-শার্টগুলো ডিজাইন ও রং করা হয়েছে। এবার টি-শার্টের নকশায় আধুনিকতার সঙ্গে দেশীয় সংস্কৃতিকেও গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। হ্যান্ডপেইন্টের টি-শার্টের চাহিদা প্রচুর। এ ছাড়া প্রকৃতি, দেশ, বিখ্যাত ব্যক্তির প্রতিকৃতি, উক্তিও পিছিয়ে নেই। টি-শার্টের কাপড়ে রয়েছে দারুণ ভিন্নতা। সুতির ফেব্রিকের পাশাপাশি স্টেচিং নিট কাপড়ের টি-শার্টই আরামদায়ক। একরঙা ট্রেন্ডকে পেছনে ফেলে টি-শার্টে যোগ হয়েছে প্রিন্টেড ফিউশন। এ সময় উজ্জ্বল ও শুভ্র রঙের টি-শার্ট বেছে নেওয়া ভালো। ফেব্রিক হালকা হলে সহজে বাতাস চলাচল করতে পারে। তাই ক্লান্তি আসে না। যে কারণে টি-শার্টে মূলত রং ও ফেব্রিককেই প্রাধান্য দেওয়া উত্তম। সে ক্ষেত্রে কালো বাদ দিয়ে হোয়াইট, ব্লু, ডার্ক ব্লু, রেড, ডার্ক রেড, গ্রিন, বটল গ্রিন, মেরুন, অফহোয়াইট, ইয়োলো, ফিরোজা, রোজ, লাল, পেস্ট, মেরুন, বাদামি, কমলা, সাদা-কালার সহজেই বেছে নিতে পারেন। ছেলেমেয়েদের রঙে কিছুটা পার্থক্য আছে। প্রিয় ব্যক্তিত্ব, কবিতার লাইন, বিখ্যাত কোনো চলচ্চিত্রের ছবি, বিখ্যাত কোনো প্রচ্ছদ, সুন্দর কোনো দৃশ্য ও লোগো নকশার টি-শার্ট এখনকার ফ্যাশনের অন্যতম অনুষঙ্গ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এ ছাড়া গলার কাটিং, হাতা, বোতাম ও পকেটে এসেছে বৈচিত্র্য। ছেলেদের টি-শার্টে এখন পকেট দেখা যায়। প্রিন্টেড ফেব্রিক ও লাইট চেক ছেলেমেয়ে উভয়ের জন্য উপযোগী। এ ছাড়া টি-শার্টের গলা ও কাঁধে বাড়তি স্ট্ক্রিন প্রিন্টের নকশা দেখা যায়।

কোথায় কী দামে পাবেন

বসুন্ধরা সিটি শপিংমল, নিউমার্কেট, ফরচুন শপিংমল, কর্ণফুলী মার্কেট, মৌচাক মার্কেট, ইস্টার্ন পল্গাজা, যমুনা ফিউচার পার্কসহ নিউ এলিফ্যান্ট রোডের বিভিন্ন দোকানে টি-শার্ট পাবেন। তবে শাহবাগের আজিজ সুপার মার্কেটে বিশেষ ডিজাইন, লোগো ও বাটিক প্রিন্টের টি-শার্টের রয়েছে বিশাল সংগ্রহ। টি-শার্টের দাম নির্ভর করবে এর রং, ফেব্রিক ও ডিজাইনের ওপর। ছেলে ও মেয়েদের টি-শার্টের কাট ও নকশায় পার্থক্য থাকলেও দাম প্রায় একই রকম। শাহবাগের আজিজ সুপার মার্কেটের ফ্যাশন হাউস নিত্যউপহার, মেঘ, পৌষ, যোগী, নোঙর, সমীকরণ, বালুচর, ইজি, দেশাল, সুই-সুতা, কারখানাসহ বিভিন্ন ফ্যাশন হাউসে টি-শার্ট পাবেন। এসব টি-শার্ট কেনা যাবে ২৫০ থেকে ৪৫০ টাকার মধ্যে। বাচ্চাদের টি-শার্টের দাম পড়বে ১৮০ থেকে ৩০০ টাকার মধ্যে। এ ছাড়া ফ্যাশন হাউস লা-রিভ, মেনজ ক্লাব, পল্গাস পয়েন্ট, ওয়েস্টিন, টেক্সমার্ট, ক্যাটস আই, জেন্টাল পার্ক, ইনফিনিটিসহ বিভিন্ন ফ্যাশন হাউসে টি-শার্টগুলো কেনা যাবে ৫০০ থেকে ৯০০ টাকার মধ্যে।

আরও কম দামে কিনতে চাইলে যেতে পারেন নিউ এলিফ্যান্ট রোড, ঢাকা কলেজের সামনে, নিউমার্কেট এলাকায়, বায়তুল মোকাররম মার্কেটের সামনে, বঙ্গবাজার, গুলিস্তান মোড়, ফার্মগেট, মিরপুরসহ বিভিন্ন স্থানে অস্থায়ী অনেক দোকানে। সেখানে নানা রং ও নকশার টি-শার্ট পাবেন ১২০ থেকে ৩৫০ টাকার মধ্যে।



মডেল : আহসান ও সোহাগ; পোশাক : নিত্যউপহার

মেকওভার : শোভন মেকওভার; ছবি : রাজিব পাল