শৈলী

শৈলী


স্বপ্ন যখন অনেক বড়

প্রকাশ: ২৫ মার্চ ২০২০      

মুহাম্মদ শফিকুর রহমান

তিনটি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে তিনি কাজ করেছেন। এক সময় তার মনে হলো, অন্যের প্রতিষ্ঠানে আর কত। নিজে কিছু করি না। নিজস্ব কিছু হোক। সময় আর আইডিয়া দুটোই তার হাতে ছিল। তখন হাতে মাত্র ৩২০ টাকা। এই সামান্য মূলধন দিয়ে গ্লাস পেইন্টেড জার কিনে প্রথম ব্যবসা শুরু করেন। এরপর যুক্ত হয় হাতের তৈরি জুয়েলারি, ফুলের গহনা, ব্যাগ, বিয়ের সব হাতে বানানো জিনিস, নিকাহ পেন ও যাবতীয় রেডিমেড জুয়েলারিসহ নানা ধরনের পণ্য। এখন তার মূলধন লাখ টাকার ওপরে। অনলাইনে তিনি পরিচিত মুখ। গয়নার ক্ষেত্রে ক্রেতাদের কাছে বিশ্বস্ত এক নাম। সফল এই নারী উদ্যোক্তার নাম রাশনা আকলিমা প্রমা। মাস্টার্স পড়ছেন ফেনী সরকারি কলেজে। এ পর্যন্ত তিনি ৩টি অনলাইন ফেস্ট, একটি ওয়েডিং ফেস্টিভ্যালে অংশ নিয়েছেন। অনলাইনে তার পেজের নাম 'রাসনা ক্রাফটি'। প্রায় আঠারো হাজার মানুষ তার পেজে লাইক দিয়েছেন। অনলাইন ছাড়াও ফেনীতে তার বাসা থেকেও পণ্য নেওয়ার সুযোগ রয়েছে। প্রমা জানান, তার বাসা থেকেও বিভিন্ন ধরনের রেডিমেড জুয়েলারি দেখে নিয়ে যেতে পারেন।

২০১৭ সালে প্রমা ব্যবসা শুরু করেন। ওই বছর প্রথম ফেনীতে অনলাইন ফেস্ট অনুষ্ঠিত হয়। যার আয়োজক ছিলেন ফেনীর স্বনামধন্য আপন ইভেন্টস। এই ফেস্টে অংশগ্রহণ প্রমার ব্যবসাকে ব্যাপকভাবে পরিচিত করে সবার মাঝে। প্রমা বলেন, 'এই ফেস্টে আমি প্রথম স্টল দিই। অসংখ্য মানুষের সঙ্গে আমার পণ্য পরিচিত করানোর সুযোগ পাই।

ব্যবসা সামান্য হলেই প্রমা খুশি। তিনি নিজের কাজের প্রতি অসম্ভব যত্নবান। প্রমা বলেন, 'হাতের বানানো জুয়েলারিগুলোতে আমি সব সময় চেষ্টা করি খুব ভালো

ফিনিশিং দেওয়ার। নতুনত্ব রাখার চেষ্টা করি। রেডিমেড জুয়েলারিতে কাস্টমারের চাহিদা অনুযায়ী বর্তমান ফ্যাশনের সঙ্গে যায় এ ধরনের কোয়ালিটিফুল জুয়েলারি সংগ্রহ করি দেশ ও দেশের বাইরে থেকে। ক্রেতার সন্তুষ্টি আমার কাছে প্রধান। দাম যেন সাশ্রয়ী হয়। ক্রেতার হাতের নাগালে হয়, সে বিষয়ে লক্ষ্য রাখি।

পড়াশোনা আর ক্ষুদ্র ব্যবসা একই সঙ্গে করা সম্ভব কি? প্রমা বলেন, অবশ্যই করা সম্ভব। নিজের হাতখরচ ও নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করার জন্য নারীরা ক্ষুদ্র ব্যবসা করতে পারেন। প্রায় ঘরে বসে অনলাইনে করা সম্ভব। তবে পরিবারের সমর্থন, সহযোগিতা থাকাটা গুরুত্বপূর্ণ। মাঝে মাঝে কাঁচামাল সংকট হয়। এটাই কাজের ক্ষেত্রে সমস্যা বলে প্রমার কাছে মনে হয়। কাজের ক্ষেত্রে জটিলতা থাকবে। সমস্যাও আসবে। তবে জটিলতা কাটিয়ে উঠে যে কাজ করতে পারবে, শেষ অবধি সেই হবে একজন সফল উদ্যোক্তা। এমনটাই উদ্যমী উদ্যোক্তা প্রমা মনে করেন।

কোয়ালিটি ধরে রাখা এবং মানসম্মত পণ্য ক্রেতাদের হাতে পৌঁছে দিয়ে প্রমা টিকে থাকতে চান। তার ইউনিক কাজ দেখেই মানুষ তাকে চিনে নেবে- এমনটাই তার বিশ্বাস। ইচ্ছা থাকলে প্রত্যন্ত মফস্বলে পড়াশোনার পাশাপাশি ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা হওয়া সম্ভব। প্রমা সেটাই প্রমাণ করেছেন, যা অন্য সব নারীর জন্য অনুকরণীয় হতে পারে।