শৈলী

শৈলী

পরিচ্ছন্ন স্নানঘর

প্রকাশ: ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০

প্রত্যয় নিশান

স্বাস্থ্য সুরক্ষায় পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতার বিকল্প নেই। বিশেষ করে নিত্যব্যবহূত স্থানগুলো নিয়মিত পরিস্কার রাখা জরুরি। স্নানঘর এমনই একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থান, যা পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন রাখলে স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও মন প্রফুল্ল থাকে। পরিস্কার, পরিপাটি স্নানঘর আমাদের সবার পছন্দ। কিন্তু স্নানঘর সুন্দর রাখা খুব সহজ কাজ নয়। নিয়মিত ব্যবহারের ফলে কক্ষটি নোংরা ও এলোমেলো হয় দ্রুত। আর স্নানঘর পরিস্কার করাও অনেকের কাছে ঝামেলার বিষয়। যাদের বাসায় গৃহকর্মী নেই তাদের সমস্যা আরও প্রকট, নিজেদেরই পরিস্কার রাখতে হয়। এ সমস্যা সামলে কীভাবে স্নানঘর ঝকঝকে, পরিস্কার ও সুন্দর রাখা যায় সে বিষয়ে রইল কয়েকটি পরামর্শ-

* স্নানঘরের সামনে ম্যাট ব্যবহার করুন। সাধারণ ম্যাটের চেয়ে রাবারের ম্যাট অধিক কার্যকর। এটি পানি ও ময়লা বেশি শোষণ করতে পারে।

* স্নানঘর ব্যবহারের জন্য সেই ম্যাটের ওপর এক জোড়া স্যান্ডেল রাখুন। স্যান্ডেল পরে প্রবেশ করুন আবার যথাস্থানে রাখুন।

* টয়লেট ব্যবহারের পর প্রতিবার পর্যাপ্ত পানি ঢেলে পরিস্কার করে ফেলুন। ফ্ল্যাশ থাকলে ফ্লাশ ব্যবহার করে কমোড পরিস্কার ও জীবাণুমুক্ত করে নিন। এ ছাড়া কমোড পরিস্কার রাখতে পরিস্কারক দ্রব্যের যে বার পাওয়া যায় তা নিয়মিত ব্যবহার করুন।

* ভিনেগার স্নানঘর পরিস্কারে খুব কার্যকর। তাই সমান পরিমাণ পানি আর ভিনেগার স্নানঘরের বেসিন, মেঝে, শাওয়ারসহ যেসব স্থানে ময়লা পড়ে ও জং ধরে, সেখানে স্প্রে করে কিছুক্ষণ রেখে দিন। এরপর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। স্নানঘর পরিস্কার ও ঝকঝকে থাকবে।

* স্নানঘরে সবসময় পেপার ন্যাপকিন, টাওয়াল, হ্যান্ড স্যানিটাইজার, লিকুইড সাবান ও পরিস্কারক রাখুন। সাবানের পরিবর্তে লিকুইড হ্যান্ড ও বডিওয়াশ ব্যবহার করতে পারলে বাথরুম ময়লা অনেকটা কম হবে।

* স্নানঘর ব্যবহারের পর মেঝেতে পানি থাকলে পরিস্কার করুন। এজন্য একটি ছোট আকারের মপ রাখুন। পানি পড়লেই যেন মপ দিয়ে পরিস্কার করে নেওয়া যায়। পরবর্তী ব্যবহারের আগ পর্যন্ত শুকনো ও পরিস্কার থাকবে।

* স্নানঘর আবদ্ধ থাকায় কিছুটা গন্ধ হতে পারে, তাই সব সময় এয়ারফ্রেশনার ব্যবহার করুন। বাজারে বিভিন্ন ধরন ও আকারের এয়ারফ্রেশনার পাওয়া যায়। পরিস্কার বাথরুমের পাশাপাশি যারা সৌন্দর্যবর্ধন করতে চান তারা ছোট ইনডোর প্লান্ট বেসিন কিংবা জানালার কিনার ধরে সাজাতে পারেন। এতে বাথরুমের পরিবেশ হয়ে উঠবে সতেজ, মন হবে প্রফুল্ল। া