হাতের মুঠোয় মোবাইল ফোন, সময় দেখতে ঘড়ির ব্যবহার অনেকটাই কমেছে। নিজেকে সময়ের ফ্যাশনের সঙ্গে মানিয়ে রাখতে পোশাকের সঙ্গে ধরে রেখেছেন ঘড়ি। নিজেকে একটু হলেও বেমানান মনে হতেই পারে। তাই বলে তো আর ঘড়ি না পরে থাকা যায় না। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে পাল্টে গেছে ঘড়ি। এসেছে 'স্মার্ট ওয়াচ'। শুধু সময় দেখা নয়, অনেক ধরনের সুবিধা দিচ্ছে স্মার্ট ওয়াচ। প্রযুক্তি এবং ফ্যাশনের অন্যমত অনুষঙ্গ হিসেবে অনেকের পছন্দের তালিকায় উঠে এসেছে ঘড়ি।

কয়েক বছর ধরেই তরতর করে বাড়ছে স্মার্ট ওয়াচের জনপ্রিয়তা। স্মার্ট ওয়াচ ব্যবহারকারীর হাঁটার গতি, হার্ট রেট, তাপমাত্রাসহ তথ্য সংগ্রহও করে। স্মার্ট ওয়াচ হূৎস্পন্দনে সব সময় নজর রাখে। এটি আপনাকে জানিয়ে দেবে, কত ক্যালোরি খরচ করলেন। ফলে ওজন নিয়ন্ত্রণের উদ্দেশ্য থাকলে ওয়াচের সাহায্যে ক্যালোরির ঘাটতি পূরণে খাবারের পরিকল্পনাও করা যায়। প্রতিদিন কত কতটুকু হাঁটলেন কিংবা দৌড়ালেন, তা জানাবে এই স্মার্ট যন্ত্র। পর্যাপ্ত ঘুম আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য অনেক উপকারী। তা যথাযথ রুটিন মেনে চলাও জরুরি। স্মার্ট ওয়াচের স্লিপ মনিটর কম সময় ঘুমালে সেটিও জানাবে। কতটুকু ঘুম স্বাস্থ্য অনুসারে প্রয়োজন তাও জানতে পারবেন। স্মার্ট ওয়াচে তাপমাত্রা নির্ণয়ের জন্য থার্মোমিটার ব্যবহার করা হয়। এই ফিচারটি অ্যাথলেটদের জন্য বেশ কার্যকর। কতটুকু ক্যালোরি বার্ন হয়েছে, তার হিসাব কষতে স্মার্ট ওয়াচে ব্যবহার করা হয় অ্যালগরিদম। এর মাধ্যমে জিম করা, দৌড়ানো, পাহাড়ে ওঠা, সাইকেল চালানো ও সাঁতার কাটার সময় পরিমাপ করা যায়।

কর্মব্যস্ততায় অনেক সময় খাওয়া, ঘুম কিংবা ব্যায়ামের কথা ভুলে যেতে হয়। স্মার্ট ওয়াচের অ্যালার্ম কল নোটিফিকেশনের মাধ্যমে গুরুত্বপূর্ণ কাজের শিডিউল মনে করিয়ে দেবে। ব্যবহারকারীরা স্বাস্থ্য সম্পর্কে কার্যকরী নির্দেশনাও পাবেন। ফলে সচেতন হতে অনুপ্রেরণা জোগাবে। যারা সব সময় অফিসে বসে ব্রেন ওয়ার্ক করেন, তাদের জন্য ডিভাইসটির ব্যবহার খুবই জরুরি। বেশি সময় নড়াচড়া না করলে, স্মার্ট ওয়াচ একটা রিমাইন্ডার দেবে। একনাগাড়ে যদি কেউ এক জায়গায় বসে থাকে, এরপর কোন সময় নড়াচড়া করা দরকার, স্মার্ট ওয়াচ সেটি সময়মতো মনে করিয়ে দেবে।

পোশাকের মতো ছেলে এবং মেয়েদের ঘড়ির ডিজাইনে আনা হয়েছে ভিন্নতা। ঘড়ির ডায়ালগুলো দেখলেই বুঝতে পারবেন কোনগুলো ছেলেদের এবং কোন ঘড়ি মেয়েদের। এসব স্মার্ট ওয়াচ ক্যাজুয়াল বা করপোরেট দুই লুকেই ব্যবহার করতে পারবেন। এগুলো দেখতে নৈপুণ্যপূর্ণ, রুচিসম্মত, হালকা ও মজবুত। স্মার্ট ওয়াচটির ডিসপ্লে নিজের মতো করে পরিবর্তনের সুবিধাও রয়েছে। বিভিন্ন স্টাইল ও কালারের জন্য ঘড়িগুলো হবে বৈচিত্র্যময়। আপনার পোশাকের সঙ্গে রঙের মিল রেখে পরিবর্তন করতে পারবেন বেল্ট এবং ডায়াল। ব্র্যান্ডের স্মার্ট ওয়াচগুলোর মধ্যে বাজার ঘুরে পাবেন হুয়াওয়ে, অ্যাপল, স্যামসাং এবং শাওমি। এ ছাড়া নন ব্র্যান্ডের অনেক অনেক স্মার্ট ওয়াচ এবং ব্যান্ড। এ ক্ষেত্রে ব্র্যান্ডের ওয়াচগুলোর ব্যবহার করাই উত্তম হবে। এসব ওয়াচ পাবেন ২ হাজার থেকে ৫০ হাজার টাকায়। এ ছাড়া ননব্র্যান্ডের ওয়াচ মিলবে ৩০০ থেকে ১ হাজার টাকায়।

মন্তব্য করুন