সুহৃদ সমাবেশ

সুহৃদ সমাবেশ

অন্যরকম একদিন

প্রকাশ: ১০ জুন ২০১৪

আসাদুজ্জামান

অন্যরকম একদিন

শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলাপচারিতায় শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ

যে কোনো অনুষ্ঠানে সাধারণভাবে আমরা ধরেই নিই যে, প্রধান অতিথির আসতে একটু দেরি হবে। আর এ দেশে কোথাও যেতে দেরি হয়ে যাওয়াটা একটি সাধারণ বিষয়। যদিও এর রয়েছে ভিন্ন ভিন্ন কারণ। কিন্তু অন্য রকম এক অভিজ্ঞতা হলো গত শনিবার, ঢাকা রেসিডেন্সিয়াল মডেল কলেজে বিএফএফ-সমকাল দ্বিতীয় জাতীয় বিজ্ঞান বিতর্কের চূড়ান্ত আসরের পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে। এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। অনুষ্ঠানে তার আসার কথা ছিল বিকেল ৪টায়। সেভাবেই আয়োজন করা হয়েছিল। কিন্তু বিকেল ৩টার পর পরই হঠাৎ মন্ত্রী এসে হাজির। দেখা গেল শিক্ষার্থীরা ছুটে আসছে অডিটোরিয়ামের দিকে। বুঝতে আর দেরি হলো না যে তাদের প্রিয় মানুষটির আগমন ঘটেছে। তার কাছে ছুটে আসে শিক্ষার্থীরা আর তিনি সবাইকে অবাক করে শিক্ষার্থীদের সঙ্গেই বসে পড়েন কলেজের অডিটোরিয়ামের বারান্দায়। ভাবা যায় তিনি বাংলাদেশের একজন মন্ত্রী! শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কুশল বিনিময় শেষে তিনি তাদের সমস্যা সম্পর্কে জানতে চাইতেই শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন প্রশ্নে জর্জরিত করে মন্ত্রীকে। মনে হলো মন্ত্রী মহোদয় তাদের এ প্রশ্নে বিরক্ত নন বরং তিনি তাদের কথাগুলো মনোযোগ দিয়ে শোনেন এবং তাদের প্রশ্নের জবাব দেন। ভিকারুনি্নসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থীরা একমুখী শিক্ষা কেন সম্ভব নয়_ এ প্রশ্নের উত্তরে তুষ্ট হন। আর ঢাকা রেসিডেন্সিয়াল মডেল কলেজের শিক্ষার্থীরা শিক্ষাবিষয়ক আরও খুঁটিনাটি বিষয়গুলো মন্ত্রীর কাছ থেকে জেনে নেয়। পাঠ্যপুস্তকে যেসব ভুল রয়েছে তার সংশোধন, নতুন ওয়েবসাইটের মাধ্যমে সবার মতামতের ভিত্তিতে শিক্ষা ব্যবস্থার উন্নতিসহ নানা বিষয় নিয়ে তিনি এ ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেন। প্রচণ্ড গরমের মধ্যেও তিনি সেখানে বসেই শিক্ষার্থীদের সঙ্গে গল্পে মেতে ওঠেন। কেউ কেউ আবার এই সুন্দর মুহূর্তটা ধরে রাখতে ব্যস্ত ছিল তাদের মুঠোফোনে। এভাবেই তিনি সেদিন মিশে যান ক্ষুদে রাজদের সঙ্গে।