সুহৃদ সমাবেশ

সুহৃদ সমাবেশ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সভা

প্রকাশ: ২৬ আগস্ট ২০১৪

আহসান হাবীব

পূর্বনির্ধারিত সূচি অনুযায়ী বৃহস্পতিবার 'ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সমকাল সুহৃদ সমাবেশ'-এর নিয়মিত সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। ঈদ-পরবর্তী আয়োজিত এ সভায় উপস্থিত সুহৃদদের মধ্যে দেখা গেল অনাবিল আনন্দ আর পুনর্মিলনের আমেজ। নবীন-প্রবীণ সুহৃদদের কুলাকোলি দেখে টিএসসি ক্যাফেটেরিয়া যেন সাময়িক উৎসবমুখর হয়ে উঠেছিল। সভায় যুগ্ম আহ্বায়ক, সদস্য সচিব ইমাম রায়হান এবং ঢাবি সুহৃদরা উপস্থিত ছিল। সভায় সভাপতিত্ব করেন যুগ্ম আহ্বায়ক আহসান হাবীব। তিনি শুরুতেই সভায় উপস্থিতির জন্য সুহৃদদের শুভেচ্ছা ও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। পরে ঢাবি সুহৃদের সদস্য সচিব নতুন সদস্যের পরিচিতি পর্বটা সম্পন্ন করেন। এরপর সভার মূল আলোচনা শুরু হয়। সুহৃদদের করণীয় কী, নিজ নিজ স্থান থেকে সুহৃদরা কীভাবে-কতটুকু সমাজের কল্যাণে কাজ করতে পারে আর সহযোগী হিসেবে সমকাল যে 'অসংকোচ প্রকাশের দুরন্ত সাহস' জোগাবে সে প্রত্যয়ও ব্যক্ত করা হয়। আর যে লক্ষ্য নিয়ে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। তা মূলত সম্ভাব্য কর্মসূচির আওতায় নতুন সুহৃদ সংগ্রহ, আনন্দ ভ্রমণ, আবৃত্তি অনুশীলন, বায়োডাটা বা জীবনবৃত্তান্ত লিখন প্রক্রিয়া এবং সর্বোপরি সুহৃদদের মধ্যে সম্মোহনী নেতৃত্ব গঠন বিষয়ে কর্মশালা করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়, যা সুহৃদদের একান্ত সুবিধার কথা বিবেচনা করে একটি প্রস্তাবনা বিভাগীয় সম্পাদকের কাছে পেশ করা হবে। এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত কেন্দ্রের মতামত নিয়ে পরবর্তী সভায় জানানো হবে বলে যুগ্ম আহ্বায়ক সুহৃদদের নিশ্চিত করে। আর যে বিষয়ে সুহৃদরা নিশ্চিত, তা হলো জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের মৃৃত্যুবার্ষিকী উদযাপন। আগামী ১২ ভাদ্র, ২৭ আগস্ট বুধবার সকাল ৮টায় অপরাজেয় বাংলার পাদদেশ থেকে যাত্রা করে কবির মাজারে পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে টিএসসি প্রাঙ্গণে তার জীবন ও কর্মের ওপর আলোচনা এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে। এতে নির্ধারিত সময় ও স্থানে সুহৃদদের উপস্থিত থাকার জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ করা হয়।
একের পর এক কর্মসূচির কথা শুনতে শুনতে সুহৃদ আতিকের চা-নাশতা পরিবেশন শুরু করে। বংশীবাদক তো বলেই বসে, 'আজ এক টাকার চায়ে যে শান্তি, লাখ টাকা খরচ করলেও তা পাওয়া দুষ্কর!' স্মৃতির পটে হারিয়ে যাবে অনেক কিছুই, কিন্তু সাক্ষী হিসেবে রয়ে যাবে সৃহৃদদের পথচলা। এই পথচলাকে আরও একটু গাঢ় করতে সভার শেষ পর্যায়ে এসে সক্রিয় সুহৃদদের মধ্য থেকে হল প্রতিনিধি নির্বাচন করা হয়। যাদের দায়িত্ব হবে নিজ নিজ হলের অন্য সুহৃদ এবং তাদের ঊর্ধ্বতনের সঙ্গে নিয়মিত সংজ্ঞাপন রক্ষা করা। সুহৃদরা সংগঠন সম্পর্কিত যে কোনো প্রয়োজনে হল প্রতিনিধির সঙ্গে যোগাযোগ করবে। কেন্দ্রীয়ভাবে দায়িত্বপ্রাপ্ত সদস্যগণ হল সমন্বয়ক বা প্রতিনিধিকে সব ধরনের প্রয়োজন ও কর্মপন্থা সম্পর্কে অবহিত করবে এবং সে অনুযায়ী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সুহৃদ সমাবেশের প্রাথমিক কাজ সম্পাদিত হবে। প্রতিনিধি হিসেবে নির্বাচিত হয়_ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল : রাসেল আল মাহমুদ-০১৭৪৯১৪২৪৮, বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হল : নাঈমা আক্তার-০১৯৩৮৩৮৬৮০৯, জগন্নাথ হল : নিরঞ্জনচন্দ্র বর্মণ-০১৭৬৭০৯১৩৯১, মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউর রহমান হল : মো. মনিরুজ্জামান-০১৭৪৬৪৮৩০৭৯, শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক হল : সুজন মিয়া-০১৭৬০০৩৪৬৪৯ এবং আবুল কালাম আজাদ-০১৭৫১৪৫৯৪৫৪, সলিমুল্লাহ মুসলিম হল : মো. মাহবুবুর রহমান নাহিদ-০১৯৩২৮১২১৯৮, হাজী মুহম্মদ মুহসীন হল : মো. বিল্লাল হোসেন-০১৭২৩৯৫৬৯৭৬, কবি জসীম উদ্দীন হল : মো. শাহানশাহ মিয়া-০১৭৭০৯৯০৪১৪।
এ ছাড়া সুহৃদদের মতানুযায়ী অন্যান্য হলের প্রতিনিধি ও সুহৃদ হতে আগ্রহীদের এ নম্বরে (০১৭৩৮৭৪৯০১৫) যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে। সব শেষে ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র বা টিএসসির সবুজ চত্বরে ফটোসেশনের মাধ্যমে সভার সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়।
হযুগ্ম আহ্বায়ক সুহৃদ সমাবেশ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।