সুহৃদ সমাবেশ

সুহৃদ সমাবেশ


জীবন স্রোত

প্রকাশ: ০৯ জুলাই ২০১৯      
পিন্টু দেবনাথ

স্রোত তখন অনেক ছোট। সবাই কোলে নিয়ে আদর করত। গালে চুমু খেত। ভালোবাসা ভরিয়ে পেত। প্রাণস্পন্দন শিহরিত হতো। অযথা কাছের মানুষ কিংবা দূরের মানুষ গালে ছোট করে টোকা দিত। কখনও হাসত আবার কখনও কেঁদে উঠত। হাসলে বা কাঁদলেই কী! কিন্তু সবাই আনন্দ পেত।

যখন একটু বড় হয়, ভালোবাসার কমতি দেখা দেয়। বুঝে উঠতে পারেনি। এই কমতির মাপকাঠি কেমন! যখন যৌবনে পদার্পণ করল সবকিছু পাল্টে গেল। হয়ে উঠল আমিই আমি! স্বপ্ন অনেক দূর এগিয়ে নিয়ে যেতে চায়। পাথরের মতো বুকে চাপা রেখে এগিয়ে যাচ্ছে। যেতে যেতে মাঝে মধ্যে সাহস হারিয়ে ফেলে। আর মনে হয় সিঁড়ি বেয়ে উঠতে পারবে না। আচমকা থমকে দাঁড়ায়। চারদিক তাকিয়ে দেখে কেউ নেই। কিন্তু পাহাড়ের পাদদেশে যেতেই হবে। কে যেন মনে সাহস জুগিয়ে বলল, এই দেখো আমি আছি, তুমি আসো, পারবে। আবার ছুটে চলল। যেতে যেতে অনেক কিছু দেখা হলো। প্রকৃতি এমনভাবে সাজিয়েছে তার মহিমা। সেই মায়াভরা মহিমায় সামনে নিয়ে যাওয়ার জন্য পথ দেখিয়ে দিয়েছে।

অনেক কষ্ট করে গন্তব্যস্থলে পৌঁছেছে। অমাবস্যার কালো রাত কেটে গিয়ে আলোর সন্ধান পেল। শুরু হলো জীবনযুদ্ধ। জীবনযুদ্ধে অবিচল সৈনিক থেকে সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করে গড়ে তোলে এক স্বপ্নপুরী। আলোর ঝলমল সেই পুরীতে আনাগোনা হয় দর্শনার্থীদের, দেখা হয় অতিথিদের। আনন্দে ভরে যায় মনটা। সেই ছোটবেলার কাছের মানুষগুলো দূর থেকেও এখন ভালোবাসে। তবে কাছে এসে কেউ আদর করে না। স্বপ্নপুরীর ভালোবাসা নানা স্বপ্ন দেখায়। আরও কিছু অপ্রত্যাশিত স্বপ্ন! আসলে চাহিদার কোনো শেষ নেই। চাওয়া-পাওয়ার মাঝেই জীবন নামক যন্ত্রটি হঠাৎ বিলীন হয়ে যাবে।

এত আশা ও প্রত্যাশায় খুব ভোরে ঘুম থেকে জেগে উঠে দেখে, সবকিছু স্বপ্ন! স্বপ্নময় জীবন বলতে কিছু আছে বলে মনে হলো না বাস্তবে। ইচ্ছাশক্তির উপায় নিয়ে ছুটে চলা এক বিমর্ষ জীবন 'স্রোত'।

হসাধারণ সম্পাদক সুহৃদ সমাবেশ, কমলগঞ্জ