সুহৃদ সমাবেশ

সুহৃদ সমাবেশ


আল-খায়ের ফাউন্ডেশন ও সুহৃদ সমাবেশ উদ্যোগ

বুলবুলে ক্ষতিগ্রস্ত ৩৫০ পরিবার পেল সহায়তা

প্রকাশ: ০৩ ডিসেম্বর ২০১৯      

কামরুজ্জামান

বুলবুলে ক্ষতিগ্রস্ত ৩৫০ পরিবার পেল সহায়তা

সাতক্ষীরার রমজাননগর ইউনিয়ন পরিষদ প্রাঙ্গণে সহায়তা পেয়ে ঘূর্ণিঝড় বুলবুলে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সদস্যদের মুখে ফোটে হাসি

আল-খায়ের ফাউন্ডেশন ও সমকাল সুহৃদ সমাবেশের আয়োজনে ২৭ নভেম্বর বুধবার ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের তাণ্ডবে ক্ষতিগ্রস্ত সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার রমজাননগর ইউনিয়নের সাড়ে ৩০০ পরিবারের মধ্যে গৃহনির্মাণ ও গৃহস্থালি সামগ্রী বিতরণ করা হয়

আমরা সবাই জেনেছি ঘূর্ণিঝড় বুলবুল বুক দিয়ে ঠেকিয়ে দিয়েছে সুন্দরবন। সামগ্রিকভাবে রক্ষা পেলেও সুন্দরবনের কোল ঘেঁষে গড়ে ওঠা সাতক্ষীরার বেশ কিছু জনপদ ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা পায়নি। সেসব ঘূর্ণিঝড় আক্রান্ত অসহায় মানুষের কাছে সহায়তা নিয়ে যায় আল-খায়ের ফাউন্ডেশন ও সমকাল সুহৃদ সমাবেশ।

২৭ নভেম্বর বুধবার শ্যামনগর উপজেলার রমজাননগর ইউনিয়নে ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের তাণ্ডবে ক্ষতিগ্রস্ত সাড়ে ৩০০ পরিবারের মধ্যে গৃহস্থালি ও ৫০ পরিবারে ১০০ বান ঢেউটিন বিতরণ করা হয়। ইউনিয়ন পরিষদ মাঠে এ আয়োজনে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. কামরুজ্জামান। তিনি এসব সামগ্রী ক্ষতিগ্রস্তদের হাতে তুলে দেন। সহায়তা পেয়েছে রমজাননগর ইউনিয়নের সুন্দরবন সংলগ্ন গোলাখালী, টেংরাখালী, সোরা, তারানীরপুর গ্রামসহ আশপাশের পরিবারগুলো।

ক্ষতিগ্রস্ত সাড়ে ৩০০ পরিবারকে একটি করে বালতি, মগ, জগ, শাড়ি, লুঙ্গি, গামছা, ছয়টি কাপড় ধোয়ার সাবান, তিনটি গায়ে মাখা সাবান, একটি মশারি, ছয়টি প্লেট, একটি গ্লাস, স্যাভলন ক্রিম, ১০ প্যাকেট করে স্যালাইন দেওয়া হয়।

রমজাননগর ইউনিয়নের গোলাখালী গ্রামের আকলিমা বিবি বলেন, আমরা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হলেও প্রত্যন্ত এলাকা হওয়ায় এর আগে তেমন কোনো সহযোগিতা পাইনি। যেসব সহায়তা আমাদের দেওয়া হলো তা আমরা কাজে লাগাতে পারব। একই গ্রামের দুঃখ মণ্ডল বলেন, শ্যামনগরের সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় আমাদের বসবাস। এই গ্রামে ৮৮টি পরিবারের বাস। শতভাগ পরিবারই হতদরিদ্র। সুন্দরবনের নদী-খালে মাছ ও কাঁকড়া শিকার করাই তাদের একমাত্র আয়ের উৎস। বিকল্প কোনো আয় নেই। ঘূর্ণিঝড় বুলবুলে তাদের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। বাড়িঘর পড়ে গেছে। শ্যামনগরের সবচেয়ে প্রত্যন্ত এলাকা হওয়ার কারণে কেউ সহায়তা দিতে এগিয়ে আসে না। আল-খায়ের ফাউন্ডেশন ও সমকাল সুহৃদ সমাবেশ সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেওয়ায় আমরা খুবই উপকৃত হয়েছি। দুই বান করে ভালোমানের টিন পেয়ে আমরা খুব খুশি।

কালিঞ্চি গ্রামের মহিদুল ইসলাম, বৈরবনগর গ্রামের রফি গাজী জানান, আপনারা আমাদের যেসব জরুরি জিনিস দিয়েছে তার মান খুবই ভালো। অনেকদিন এগুলো ব্যবহার করা যাবে।

সহায়তাপ্রাপ্তরা জানান, তারা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হলেও প্রত্যন্ত এলাকা হওয়ায় এর আগে তেমন কোনো সহযোগিতা পাননি। যেসব সহায়তা তাদের দেওয়া হলো, তা তারা কাজে লাগাতে পারবেন।

সমকালের সাতক্ষীরা সুহৃদ সমাবেশের প্রধান উপদেষ্টা অধ্যাপক আনিসুর রহিমের সভাপতিত্বে এদিন সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন শ্যামনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. কামরুজ্জামান। তিনি বলেন, সহায়তা পেয়ে উপকূলবর্তী এলাকার মানুষ খুবই উপকৃত হবে। এ এলাকায় এর আগে তেমন কোনো ত্রাণ বিতরণ হয়নি। এ জন্য তিনি সমকাল সুহৃদ সমাবেশ ও আল-খায়ের ফাউন্ডেশনের সংশ্নিষ্টদের ধন্যবাদ জানান। তিনি আরও বলেন, সমকাল সুহৃদ সমাবেশ ও আল-খায়ের ফাউন্ডেশনের আয়োজনে ঘূর্ণিঝড় বুলবুলে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে সহায়তা দেওয়া মালামালের মান ছিল খুবই ভালো। যে মানের টিন দেওয়া হয়েছে, তা অনেক বছর টেকসই হবে। আর গৃহস্থালির কাজে ব্যবহারের জন্য যেসব পণ্যসামগ্রী দেওয়া হয়েছে তাও উচ্চমানের বিধায় সহায়তাপ্রাপ্তরা খুবই খুশি।

অনুষ্ঠানে অতিথি ছিলেন আল-খায়ের ফাউন্ডেশনের কান্ট্রি ম্যানেজার তারেক মাহমুদ সজীব, সমকালের সহকারী সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম আবেদ, সমকালের সাতক্ষীরা প্রতিনিধি এম কামরুজ্জামান, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসার শাহিনুল ইসলাম, উপজেলা নির্বাচন অফিসার (ট্যাগ অফিসার) রবিউল ইসলাম, সমকালের সাতক্ষীরা জেলা সুহৃদ সমাবেশের সভাপতি আবদুস সামাদ, সাধারণ সম্পাদক আসাদুল ইসলাম, রমজাননগর ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ।

রমজাননগর ইউপির প্যানেল চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম বলেন, সহায়তা পেয়ে সাধারণ মানুষ খুবই খুশি। বিশেষ করে শীতের মধ্যে ঢেউটিন পেয়ে উপকৃত হয়েছেন তারা। প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্তদের এই সহায়তা দেওয়া হয়েছে। সহায়তা সামগ্রী পেয়ে তারা ভীষণ উপকৃত হয়েছেন।

রমজাননগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আল মামুন বলেন, যে কোনো দুর্যোগে বিভিন্ন সংগঠন সহায়তা দিলেও প্রত্যন্ত অঞ্চল হওয়ায় সেসব সহায়তা রমজাননগর এলাকায় পৌঁছায় না। অন্যান্য এলাকায় এসব সহায়তা চলে যায়। সমকাল সুহৃদ সমাবেশ ও আল-খায়ের ফাউন্ডেশনের সহায়তা রমজাননগর এলাকায় দেওয়ায় এ এলাকার মানুষ খুবই উপকৃত হয়েছে। া

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি