নতুন স্মার্টফোনের চাহিদা বৃদ্ধির পাশাপাশি ক্রমেই বড় হচ্ছে পুরোনো হ্যান্ডসেটের বাজার। সাধ এবং সাধ্যের সমন্বয় ঘটাতে ক্রেতারা বেছে নিচ্ছেন অপেক্ষাকৃত সাশ্রয়ী দামের নানা ব্র্যান্ড ও মডেলের পুরোনো স্মার্টফোন। তবে পুরোনো হ্যান্ডসেট ক্রয়-বিক্রয়ের আগে করণীয় সম্পর্কে জানাচ্ছেন আসাদুজ্জামান

নতুন মডেলের স্মার্টফোন কিনতে অনেকেই পুরোনো হ্যান্ডসেটটি বিক্রি করে দেন। এতে যেমন অল্প কিছু টাকা যোগ করলে নতুন হ্যান্ডসেট হয়ে যায় তেমনি যারা কম খরচে ভালো একটি স্মার্টফোন কিনতে চায় তাদের জন্যও সুযোগ তৈরি হয়। আর উভয় পক্ষের এই সুবিধার জন্য ব্যবহূত ও সেকেন্ডহ্যান্ড হ্যান্ডসেট ক্রয়-বিক্রয়ে বিশ্বজুড়ে বড় একটি বাজার গড়ে উঠেছে। এজন্য তৈরি হয়েছে অনলাইন-অফলাইন আলাদা মার্কেটপ্লেস।

তবে ব্যবহূত ফোনটি বিক্রির আগে বর্তমান ফোনের সব ডেটা কীভাবে সংরক্ষণ করবেন এ নিয়ে অনেকেই দ্বিধায় ভোগেন। কেননা ফোনটিতে জমা রয়েছে হরেক ছবি, ভিডিও এবং জরুরি তথ্য-উপাত্ত। ব্যবহূত ফোন বিক্রি অথবা কিনতে হলে গুরুত্বপূর্ণ কিছু বিষয় অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে।

মোবাইল নাম্বারের ব্যাকআপ

আপনি যদি অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারী হন এবং অনেক গুগল অ্যাপ ব্যবহার করেন, তাহলে নিশ্চিতভাবে আপনি আপনার মোবাইলে সংরক্ষণ করা নাম্বারগুলো ব্যাকআপ করেছেন। যদি নাম্বারগুলো কোনো জিমেইল অ্যাকাউন্টে স্বয়ংক্রিয়ভাবে সন্নিবেশিত না হয়ে থাকে তবে এই https://contacts.google.com এখানে গিয়ে ম্যানুয়ালি সেট করে নিতে পারেন।

মেসেজ এবং কল রেকর্ড ব্যাকআপ

মোবাইল নাম্বারের সঙ্গে মেসেজ ও কল রেকর্ডও ব্যাকআপ করা যায়।SMS Backupএবং Restore মতো থার্ডপার্টি সফটওয়্যার ব্যবহার করে আপনার জরুরি মেসেজ ও রেকর্ড ব্যাকআপ করে নিতে পারেন। থার্ডপার্টি সফটওয়্যার ব্যবহার করতে না চাইলে আপনার জন্য রয়েছে Google Drive,, যেখানে আপনি জরুরি মেসেজ ও কল রেকর্ডগুলো ব্যাকআপ করে রাখতে পারেন এবং নতুন ফোন চালু করে রিস্টোর করে নিতে পারবেন সহজেই।

ছবি, ভিডিও ও মিডিয়া ফিরে পেতে

ছবি, ভিডিও ও অন্য মিডিয়ার ব্যাকআপের জন্য জনপ্রিয় অনলাইন স্টোরেজ প্ল্যাটফর্ম ক্লাইড, গুগল ড্রাইভ, ওয়ান ড্রাইভ, ড্রপবক্সসহ অন্য সার্ভিস ব্যবহার করে ব্যাকআপ দিন। এ ছাড়া আপনার ফোনের ছবি, ভিডিও ও অন্য মিডিয়া ব্যাকআপের জন্য হার্ডড্রাইভ বা এসএসডি কার্ডে ম্যানুয়ালি হস্তান্তর করে নিতে পারেন।

অ্যাকাউন্ট রিমুভ এবং লগ আউট

আমরা যখন ফোনের সব তথ্য মুছে ফেলতে ফ্যাক্টরি রিসেট দিই, তখন ডেটাগুলো মুছে যায় ঠিকই কিন্তু অ্যাক্টিভ অ্যাকাউন্টগুলো লগ আউট হয় না। তাই ফোন ফ্যাক্টরি রিসেট দেওয়ার আগে সব অ্যাকাউন্ট থেকে লগ আউট ও অ্যাকাউন্টগুলো রিমুখ করে নেওয়া উচিত। ফোনে কোনো অ্যাকাউন্ট লগড-ইন আছে কিনা জানতে জিমেইল সেটিংস বা ফোন সেটিংস থেকে Accounts লিখে সার্চ দিন।

সিম ও মাইক্রোএসডি কার্ড

আপনার ফোনে যদি বাহ্যিক কোনো মেমোরি কার্ড বা মাইক্রোএসডি কার্ড থাকে তাহলে ফোন হস্তান্তরের আগে বের করে নিন। এ ক্ষেত্রে দেখে নিন কার্ডে সংরক্ষিত তথ্য ঠিক আছে কিনা। একই সঙ্গে ফোনে ব্যবহূত সিমকার্ড সরাতে ভুলবেন না। অনেক ফোনেই এখন একাধিক সিমকার্ড থাকে। তাই সব কার্ড বুঝে নিন।

হোয়াটসআপ ব্যাকআপ

ফোন হস্তান্তর ও নতুন ফোন ব্যবহার শুরুর আগে গুগল সেটিংসে গিয়ে হোয়াটসঅ্যাপের চ্যাটগুলো সংরক্ষণ করতে ব্যাকআপ তৈরি করুন। এ ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় ফাইল নির্বাচন করে নিতে পারেন। নতুন ডিভাইসে হোয়াটসঅ্যাপের একটি নতুন অ্যাপ ইনস্টল করে আগের সব ব্যাকআপ করা তথ্য রিস্টোর করতে সক্ষম হবেন।

ফোন এনক্রিশন

আপনার ফোনটি এনক্রিপ্ট করা আছে কিনা পরীক্ষা করুন। ফ্যাক্টরি রিসেট দেওয়ার আগে ফোন এনক্রিপ্ট করা আছে কিনা দেখে নিন। যদি করা না থাকে তাহলে ফোনের সেটিংসে গিয়ে ম্যানুয়ালি করে নিন। ফ্যাক্টরি রিসেট দেওয়ার পর অন্য কারও জন্য খুব কঠিন হয়ে যাবে আপনার ডেটায় প্রবেশ করতে। এটি নিয়ে এখন তেমন ভাবনার কিছু নেই। কারণ নতুন অধিকাংশ অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোনে এনক্রিপ্ট হয়েই আসে। তবে পুরোনো ফোনে এটি করে নিতে হবে।

ফ্যাক্টরি রিসেট

আপনি যখন নিশ্চিত আপনার ফোনের সব প্রয়োজনীয় ফাইল ব্যাকআপ তৈরি করেছেন এবং এনক্রিপ্ট করাও হয়েছে, তখন ফ্যাক্টরি রিসেট প্রক্রিয়ায় এগিয়ে যান। ফোনের settings থেকে system-এ গিয়ে reset  থেকে Erase all data (factory reset) নির্বাচন করুন। এই প্রক্রিয়া সম্পন্ন করলে আপনার ফোনের সবকিছু স্থায়ীভাবে মুছে যাবে। ফোনভেদে এ প্রক্রিয়া কিছুটা আলাদাও হতে পারে।

পুরোনো ফোন বিকিকিনি

ব্যবহূত ও পুরোনো ফোন বিক্রির অনলাইন-অফলাইন নানা প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে। কিছু দোকানে নতুন ফোনের পাশাপাশি এখন পাওয়া যায় বিভিন্ন ব্র্যান্ডের পুরোনো ফোনও। তবে অধিকাংশ পুরোনো ফোনই বিক্রি হচ্ছে অনলাইনে। বিক্রয় ডটকম, সেল বাজার, ক্লিক বিডি, সোয়াপ, বিক্রয়মেলাসহ সোশ্যাল মিডিয়াকেন্দ্রিক অনেক প্ল্যাটফর্মে পাওয়া যায় হরেক রকমের পুরোনো ফোন। এ ছাড়া ব্যক্তিগত ফোন বিক্রি নিয়ে যারা চিন্তায় পড়েন, তাদের জন্য রয়েছে ক্যাশিফাই ডট ইন, গেট ইন্সটা ক্যাশ, রিসাইকেল ডিভাইস, সেল এনক্যাশ, ক্যাশ অন পিক মতো কিছু অনলাইন প্ল্যাটফর্ম। পুরোনো ফোন কেনার আগে অবশ্যই কাগজপত্র ও ইএমইআই যাচাই করুন। সফটওয়্যার ও হার্ডওয়্যার যাচাই করে সঠিক মাধ্যম থেকে ফোন ক্রয় করুন। অবৈধ ও চোরাই ফোন ক্রয় থেকে বিরত থাকুন।

মন্তব্য করুন