সার্ভাইভ্যাল হরর গেম রেসিডেন্ট ইভিলের নতুন সংস্করণ রেসিডেন্ট ইভিল ভিলেজ গত ৭ মে প্রকাশিত হয়েছে। গেমটি ২০১৭ সালে প্রকাশিত আগের সংস্করণ রেসিডেন্ট ইভিল :বায়োহাজার্ড অনুসরণ করে নির্মিত। সুসাকু উহিয়ামার কম্পোজিশন ও মরিমাসা স্যাতোর পরিচালনায় ব্রিটিশ সাহিত্যিক অ্যান্তোনি জনসটনের লেখা প্লটের ওপর ভিত্তি করে ইভিল সিরিজের গেমটি নির্মাণ ও প্রকাশ করেছে জাপানি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ক্যাপকম। গেমপ্লে, সেটিং এবং ভিন্নতার জন্য ইতোমধ্যে সাড়া জাগানো রেসিডেন্ট ইভিল ভিলেজ খেলা যাবে সিঙ্গেল ও মাল্টিপ্লেয়ার উভয় মোডে।

যাতে খেলা যাবে

প্লেস্টেশন ফোর, প্লেস্টেশন ফাইভ, এক্সবক্স ওয়ান, এক্সবক্স সিরিজ এক্স এবং সিরিজ এস, স্ট্যাডিয়া ও মাইক্রোসফট উইন্ডোজে খেলা যাবে গেমটি।

কাহিনি

রেসিডেন্ট ইভিল ভিলেজের প্লট সাজানো হয়েছে রেসিডেন্ট ইভিল সিরিজের পূর্ববর্তী গেমের তিন বছর পরের কাহিনি নিয়ে। এই গেমের প্রধান চরিত্র ইথান উইন্টারস। এক দিন রাতে রেডফিল্ড এবং তার হাউন্ড ওল্কম্ফ স্কোয়াড ইথানের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে তার স্ত্রী মিয়াকে হত্যা এবং ইথান ও তার মেয়ে রোজমেরিকে অপহরণ করে। কিন্তু ইথান একটি ক্র্যাশড ট্রান্সপোর্ট ট্র্যাকের পাশে নিজেকে আবিস্কার করে এবং লাইকান নামে নখওয়ালা নেকড়ের মতো প্রাণীর দ্বারা আতঙ্কিত হয়ে নিকটবর্তী একটি গ্রামে পৌঁছে। এর পর তাকে বন্দি করে রাখে গ্রামের পুরোহিত মা মিরান্ডা। তাকে রাজার সামনে নিয়ে আসা হয়। ডিউক নামে পরিচিত এক স্থানীয় বণিকের সহায়তায় ইথান পালিয়ে গিয়ে দিমিত্রেস্কুর দুর্গে রোজমেরির সন্ধানে যাত্রা করে এবং সেখানে রোজমেরির মাথার একটি ফ্লাস্ক খুঁজে পায়। ডিউক তখন ইথানকে জানায়, মিরান্ডা রোজমেরির দেহের অংশগুলো একটি বিশেষ অনুষ্ঠানের জন্য চারটি পৃথক ফ্লাস্কে রেখেছিল এবং যদি ইথান বাকি থাকা অন্য ফ্লাস্কগুলো পুনরুদ্ধার করে তবে রোজমেরিকে পুনরুদ্ধার করা যেতে পারে। ইথান অন্য ফ্লাস্কের জন্য হাইজেনবার্গের একটি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয় এবং রাজার কারখানায় আমন্ত্রিত হয়, যেখানে হাইজেনবার্গ মিরান্ডাকে একত্রে পরাজিত করার প্রস্তাব দেয়। মিয়া মারা যাওয়ার সময় ইথানকে ক্রিস সাহায্য করেছিল, তাই ইথান ক্রিসের কাছ থেকে সাহায্য নেয়। ক্রিস বলে যে, মিরান্ডা এভলিনের মতো একই ক্ষমতা রাখে এবং রোজমেরি অপহরণের চেষ্টা করেছিল। দু'জনে একসঙ্গে হাইজেনবার্গের কারখানা ধ্বংস করে এবং ইথান হাইজেনবার্গকে পরাস্ত করে। এর পর মিরান্ডাও ইথানের মুখোমুখি হয় এবং ইথান পরাজিত হলে তাকে হত্যা করে। ইথানের মৃত্যুর সাক্ষী ক্রিস বয়োটেররিজম সিকিউরিটি অ্যাসেসমেন্ট অ্যালায়েন্স (বিএসএএ) বাহিনীর সহায়তায় মিরান্ডাকে ধ্বংস করে। ক্রিস গ্রামের নিচে একটি গুহায় প্রবেশ করে এবং আবিস্কার করে একটি মেগামাইসেট পাশাপাশি মিরান্ডার ল্যাব খুঁজে পায় এবং জানতে পারে, মেগামাইটের সংস্পর্শে আসার পর থেকে মিরিন্ডা এক শতাব্দীকাল ধরে বেঁচে ছিল এবং ছাতা করপোরেশনের প্রতিষ্ঠাতা ওসওয়েল স্পেন্সারের পরামর্শদাতা ছিল। মিরান্ডা তার মেয়ে ইভাকে পুনরুদ্ধারের প্রয়াসে ছত্রাক নিয়ে পরীক্ষা করেছিল। কারণ তার মেয়ে স্প্যানিশ ফ্লুতে আক্রান্ত হয়েছিল। এখানে গেমারকে ইথানের ভূমিকায় অবতীর্ণ হতে হবে।

খেলতে নূ্যনতম পিসি সিস্টেম

ওএস :উইন্ডোজ ১০, প্রসেসর :ইন্টেল কোর আই৫-৭৫০০/এএমডি রাইজেন ৩ ১২০০, র‌্যাম :৮ জিবি, জিপিইউ :এনভিডিয়া জিফোর্স জিটেক্স ১০৫০ টিআই/এএমডি রেডিয়ন আরএক্স ৫৬০, ৪ জিবি।

মন্তব্য করুন