উন্মোচিত হয়েছে হুয়াওয়ের নিজস্ব অপারেটিং সিস্টেম হারমোনির দ্বিতীয় সংস্করণ 'হারমোনি ওএস ২.০'। অ্যান্ড্রয়েডের বিকল্প হিসেবে নতুন ফিচারে সমৃদ্ধ হয়ে নতুন চ্যালেঞ্জ নিয়ে হাজির হয়েছে অপারেটিং সিস্টেমটি (ওএস)। লিখেছেন তানভীর সিদ্দিক টিপু

হুয়াওয়ে তাদের স্মার্টফোনে গুগলের সেবা ব্যবহারে মার্কিন নিষেধাজ্ঞায় পড়ে। এ নিষেধাজ্ঞার আওতায় স্মার্টফোনের সবচেয়ে জনপ্রিয় অপারেটিং সিস্টেম অ্যান্ড্রয়েড নতুন করে ব্যবহারের সুযোগ হারায় প্রতিষ্ঠানটি। এ কারণে মাত্র এক বছরের মাথায় স্মার্টফোনের প্রতিযোগিতা থেকে ছিটকে পড়ে কোম্পানিটি। ২০১৯ সালেও যেখানে স্মার্টফোনের বৈশ্বিক বাজারে দ্বিতীয় সেরা অবস্থানে ছিল হুয়াওয়ে, সেখানে এখন তাদের খুঁজে পাওয়াই কঠিন। তবে নিজস্ব অপারেটিং সিস্টেম হারমোনি তথা হুয়াংমে এনে ফের প্রতিযোগিতায় শামিল হতে চায় চীনা প্রযুক্তি জায়ান্ট হুয়াওয়ে। এরই অংশ হিসেবে গত ২ জুন উন্মোচিত হয়েছে হারমোনি ওএস ২.০ অপারেটিং সিস্টেম। পাশাপাশি এই ওএস সংবলিত সাতটি নতুন ডিভাইসে প্রদর্শন করেছে কোম্পানিটি। হারমোনি ওএস ২.০ চালিত ডিভাইসগুলো হচ্ছে হুয়াওয়ে ফ্রিবাডস ৪, ওপেন-ফিট অ্যাক্টিভ নয়েস ক্যানসেলেশন (এএনসি) ওয়্যারলেস ব্লুটুথ ইয়ারবাড এবং দুটি অত্যাধুনিক প্রযুক্তির মনিটর- হুয়াওয়ে মেটভিউ ও হুয়াওয়ে মেটভিউ জিটি। বিস্তৃত পরিসরের এই স্মার্টফোন, স্মার্টওয়াচ এবং ট্যাবলেটের মধ্যে রয়েছে হুয়াওয়ে মেট ৪০ সিরিজের নতুন সংস্করণ ও হুয়াওয়ে মেট এক্স২, হুয়াওয়ে ওয়াচ ৩ সিরিজ এবং হুয়াওয়ে মেটপ্যাড প্রো। তবে হারমোনিতে কী আছে, যা অ্যান্ড্রয়েডকে টেক্কা দিতে সমর্থ হবে? প্রযুক্তি বিশ্নেষকরা বলছেন, হারমোনি ওএস ২.০-তে বেশকিছু নতুন ফিচার যুক্ত করেছে হুয়াওয়ে। এসব ফিচার গ্রাহককে আকৃষ্ট করতে পারে। তবে বাজার ধরতে তাদের অনেক কাঠখড় পোড়াতে হবে।

ড্র্যাগ-অ্যান্ড-ইন্টিগ্রেট

আপনি হয়তো স্মার্টওয়াচ কিংবা হেলথ ট্র্যাকার পরে আছেন, যেটি কিনা আপনার ফোনের সঙ্গে সংযুক্ত এবং সর্বক্ষণ এরা একে অন্যের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করছে। আবার আপনার বাসার যে স্মার্ট টিভি আছে, সেটাও আপনার ফোন কিংবা ল্যাপটপের সঙ্গে সংযুক্ত। এগুলো একসঙ্গে সংযুক্ত থাকে বলেই আপনি চাইলে আপনার হাতের স্মার্টওয়াচ দিয়ে ফোনের অনেক ফাংশন ব্যবহার করতে পারেন। আবার বাসার স্মার্ট টিভিকে আপনি আপনার ফোন থেকে নিয়ন্ত্রণ করা ছাড়াও বহু রকম কাজ করতে পারেন। আর এ সুবিধাটি দিচ্ছে 'হারমোনি ওএস'। এটি একাধিক ডিভাইসকে সংযুক্ত করে একটি ডিভাইসে পরিণত করে। এর মাধ্যমে অনেক ডিভাইস একসঙ্গে চালানোর সময় একটি ডিভাইস চালনার মতোই সহজ মনে হয়। এই নতুন কন্ট্রোল প্যানেলটি 'ড্র্যাগ-অ্যান্ড-ইন্টিগ্রেট' ফিচারের মাধ্যমে সহজ ও স্বয়ংক্রিয় সংযোগ তৈরি করে। যার মাধ্যমে ব্যবহারকারীরা তাদের ইচ্ছা অনুযায়ী নির্দিষ্ট ডিভাইসের সঙ্গে একে সংযুক্ত করে ব্যবহার করতে পারেন।

টাস্ক সেন্টার

'হারমোনি ওএস ২'-এর নতুন 'টাস্ক সেন্টার' ফিচারের মাধ্যমে একটি ডিভাইসে অ্যাপ ইনস্টল করে বাকি ডিভাইসগুলোতে অ্যাপ ইনস্টল করা ছাড়াই সেই অ্যাপ দিয়ে সংযুক্ত থাকা সব ডিভাইসে কাজ করা যাবে। ব্যবহারকারীরা এই সেবাটি তাদের ইচ্ছামতো যে কোনো সময় যে কোনো জায়গায় থেকে উপভোগ করতে পারবেন।

স্মার্ট কার্ড

হারমোনি ওএসে একটি স্মার্ট কার্ড রয়েছে, যা ব্যবহার করে ডিভাইস ডেস্কটপে সব ধরনের তথ্য পেতে পারেন। এটি পরিচালনার জন্য আপনাকে অ্যাপে প্রবেশ করার প্রয়োজন নেই, স্মার্ট কার্ডই যথেষ্ট। সহজেই আপনি গান শোনা, ডিভাইস নিয়ন্ত্রণ এবং প্রয়োজনীয় কাজ করতে পারবেন।

ওএস কানেক্ট

হুয়াওয়ে ছাড়াও অন্য ডিভাইসকে স্মার্ট ফিচারের আওতাভুক্ত করতে হুয়াওয়ে হাইলিংককে আপগ্রেড করে 'হুয়াওয়ে ওএস কানেক্ট' করা হয়েছে। ঘরের স্মার্ট ডিভাইসগুলো এখন হাতের এক চাপেই মোবাইল ফোনের সঙ্গে সংযুক্ত করা যাবে। ব্যাপারটা এতটাই সহজ হবে; মোবাইলে স্পর্শ করলেই হুয়াওয়ে ওএস কানেক্টকে সাপোর্ট করা মিডিয়া ওভেনে আপনি খাবার তৈরি করতে পারবেন। পাশাপাশি এর মাধ্যমে ফ্রিজগুলোকে খাবারের ধরন অনুয়ায়ী তাপমাত্রা নির্ধারণ করে নিরাপদ রাখা যায়।

ক্রস-প্ল্যাটফর্ম

ব্যবহারকারীদের সাবলীল ও নিরাপদ অভিজ্ঞতা প্রদানে স্মার্ট ডিভাইসের পরবরর্তী প্রজন্মের অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে হারমোনি ওএস, বিভিন্ন ডিভাইস সংযুক্ত ও সমন্বয় করার জন্য একটি কমন ল্যাঙ্গুয়েজ ব্যবহার করে। এটি একক সিস্টেমের মাধ্যমে সব ধরনের ডিভাইসের প্রয়োজন অনুযায়ী ডিস্ট্রিবিউশন প্রযুক্তি ব্যবহার করে। হারমোনি ওএস আগের স্বতন্ত্র ডিভাইসগুলোকে একটি সম্মিলিত এবং সামগ্রিক সুপার ডিভাইসে পরিণত করে, যা ব্যবহারকারীদের প্রয়োজনের ভিত্তিতে ডিভাইসের সক্ষমতা অর্জনে সব হার্ডওয়্যার ইন্টিগ্রেট করে। বিভিন্ন ডিভাইসে অ্যাপের উপযোগিতার বিকাশ আগের চেয়ে সহজতর করে তোলার মাধ্যমে হারমোনি ওএস ডেভেলপারদের বিভিন্ন অ্যাপ ক্রস-প্ল্যাটফর্ম ডেভেলপমেন্ট এবং ক্রস-ডিভাইস ডেভেলপমেন্ট সুবিধা প্রদান করবে।

সাবলীল ও দীর্ঘস্থায়ী

হুয়াওয়ে বলছে, হারমোনি ওএস ২ সর্বশেষ প্রজন্মের ইএমইউআইর চেয়েও সাবলীলভাবে কাজ করে। হারমোনি ওএস ২ সংবলিত মোবাইলগুলো ৩৬ মাস ব্যবহারের পরও নতুন মোবাইলের গতির মতোই কাজ করে। এমনকি অল্প স্টোরেজ থাকা সত্ত্বেও এটি একই গতিতে ব্যবহার করা যায়।

যেসব ডিভাইসে আসছে

ওয়াচ ৩ সিরিজ :হুয়াওয়ের নতুন ফ্ল্যাগশিপ স্মার্ট ওয়াচ হুয়াওয়ে ওয়াচ ৩ সিরিজ কার্ভড গ্লাস স্ট্ক্রিনযুক্ত এবং এতে রয়েছে ৩১৬এল স্টেইনলেস স্টিলের কেস। এতে আরও আছে অভিনব থ্রি-ডি রোটেটিং ক্রাউন। এ ছাড়া হুয়াওয়ে ওয়াচ ৩ সিরিজের মাধ্যমে ফোন কল ও গ্রহণ করা যায় এবং স্মার্টফোনের মতো একই ফোন নম্বর এবং ডেটা প্ল্যান ব্যবহার করে গান শোনা যায়। ভ্রমণ, প্রফেশনাল ফিটনেস ও স্বাস্থ্য বিষয়ে বহুমুখী গাইড হিসেবে কাজ করতে এই হারমোনি ওএস ২-ভিত্তিক ওয়াচ হুয়াওয়ে স্মার্টফোনের সঙ্গে নির্বিঘ্নে সমন্বয় করা যাবে।

মেটপ্যাড প্রো :নতুন হুয়াওয়ে মেটপ্যাড প্রোতে রয়েছে ৯০ শতাংশ স্ট্ক্রিন-টু-বডি রেশিওযুক্ত আকর্ষণীয় ১২.৬ ইঞ্চির ওএলইডি ফুলভিউ ডিসপ্লে, হুয়াওয়ের দাবি অনুযায়ী যা বর্তমান বাজারের সব ট্যাবলেটের মধ্যে সর্বোচ্চ। হুয়াওয়ে মেটপ্যাড প্রো ১,০০০,০০০:১ উচ্চ কনট্রাস্ট রেশিওযুক্ত এবং এটি ডিসিআই-পি৩ রঙের পরিসর সমর্থন করে। কিরিন ৯০০০ সিরিজের চিপসেটযুক্ত হুয়াওয়ে মেটপ্যাড প্রো চমকপ্রদ পারফরম্যান্স নিশ্চিত করবে। হুয়াওয়ে মেটপ্যাড প্রো দিয়ে পিসির সঙ্গে মাল্টি-স্ট্ক্রিন সমন্বয়ও করা যায়। ট্যাবলেটটি মিরর মোডে ড্রইং বোর্ডে এবং এক্সটেন্ড মোডে মনিটরে পরিণত করা যায়।

এম-পেন্সিল :হুয়াওয়ে মেটাপ্যাড প্রোর পাশাপাশি একই সঙ্গে উন্মোচন করা হয় দ্বিতীয় প্রজন্মের হুয়াওয়ে এম-পেন্সিল। নির্ভুলভাবে কম সময়ে লেখার জন্য এই নতুন স্মার্ট পেনে প্লাটিনামের প্রলেপ দেওয়া নিব ব্যবহার করা হয়েছে। হুয়াওয়ে এম-পেন্সিল 'ফ্রি-স্ট্ক্রিপ্ট'কে সাপোর্ট করে, যা হাতের লেখাকে মুহূর্তেই ডিজিটাল লেখায় রূপান্তর করতে পারে।

মন্তব্য করুন