টেকলাইন

টেকলাইন

স্মার্ট ঘড়ির স্মার্ট অ্যাপ

প্রকাশ: ২৬ আগস্ট ২০১৪

ওয়াচফেস ক্রিয়েটর : ডিজিটাল ডিসপ্লে সংযুক্ত স্মার্টওয়াচে এই অ্যাপ ব্যবহারে ইচ্ছেমতো ঘড়িটির ওয়াচফেস কাস্টমাইজ করা যায়।
রানস্ট্যাটিক : রানস্ট্যাটিক অ্যাপে স্মার্টওয়াচকে একটি ফিটনেস পাওয়ার হাউস হিসেবে ব্যবহার করা যায়। জিপিএস সিস্টেম ব্যবহার করে রানস্ট্যাটিক আপনার ব্যায়ামের প্রচলিত ধরনকে অনুধাবন করতে পারবে।
ওয়্যার ক্যাল্ক :এটি একটি ক্যালকুলেটর অ্যাপ। হাতের ঘড়িতে সাধারণ হিসাবের কাজগুলো করে দিতে দারুণ কার্যক্ষম এটি।
ওয়্যার ইন্টারনেট ব্রাউজার : একবিংশ শতাব্দীতে এসে স্মার্টওয়াচে ওয়েব ব্রাউজার দেখে নিশ্চয় চমকানোর মতো কোনো ঘটনা ঘটবে না। কারণ বর্তমান সময়ের সব স্মার্টওয়াচগুলোয় ওয়েব ব্রাউজার দেওয়া হয়, যা দ্বারা আপনি ইন্টারনেট ব্রাউজিং থেকে শুরু করে পিন, বুকমার্ক, মিনি কিবোর্ড এবং জুম করার অপশন ব্যবহার করতে পারবেন।
ওয়্যার ভলিউম :এটি একটি সাধারণ অ্যাপ কিন্তু খুব উপকারী। এ অ্যাপটি ব্যবহার করে আপনি আপনার স্মার্টওয়াচ থেকে ডিভাইসের ভলিউম পরিবর্তন বা কমবেশি করতে পারবেন।
পিক্সটোক্যাম : স্মার্টওয়াচকে ক্যামেরা হিসেবে ব্যবহারের জন্য অ্যাপটি দারুণ ভূমিকা রাখতে পারে। স্মার্টওয়াচের সাহায্যে ফোনে ছবি ও ভিডিও ধারণ এবং সামাজিক যোগাযোগের সাইটে প্রকাশ করতে অ্যাপটি গ্রহণযোগ্যতায় শীর্ষেই থাকবে বলা যায়।
গ্গি্নম্পসে : আপনি এখন কোথায় এবং কোন ঠিকানায় আছেন তা খুব সহজে খুঁজে বের করতে কাজে দেবে গ্গি্নমসে। অ্যাপটির মাধ্যমে টেক্সট, ই-মেইল, ফেসবুক অথবা টুইটারের মাধ্যমে আপনার অবস্থান অন্যকে জানাতে পারবেন।
ফাইন্ড মাইফোন : আপনি যদি কখনও আপনার মোবাইলটি খুঁজে না পান, তবে আপনি আপনার স্মার্টওয়াচের ফাইন্ড মাইফোন অ্যাপটি ব্যবহার করে খুব সহজে মোবাইলটি খুঁজে বের করতে পারবেন।
ওয়্যারবাক্স : ওয়্যারবাক্স অ্যাপ ব্যবহার করে আপনি আপনার স্মার্টওয়াচ থেকে খুব সহজে যে কোনো ধরনের বিল দিতে পারবেন। এতে করে আপনার মূল্যবান সময়ও বাঁচবে, যা আপনার দৈনন্দিন জীবনকে করবে আরও সহজ।