টেকলাইন

টেকলাইন


ফেসবুকের ডিজিটাল মুদ্রা লিবরা বৃত্তান্ত

প্রকাশ: ০৯ জুলাই ২০১৯      

তাছলিমা মেহযাবিন

ফেসবুক চালু করছে তাদের নিজস্ব ডিজিটাল মুদ্রা বা ক্রিপ্টোকারেন্সি। সম্প্রতি ফেসবুক তাদের ক্রিপ্টোকারেন্সি 'লিবরা' চালুর আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিয়েছে। প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গ 'লিবরা' চালুর ঘোষণা দিলেন তার অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে। লিবরার মাধ্যমে ফেসবুক এবং হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারকারীরা একে অন্যের সঙ্গে খুব সহজেই অর্থ লেনদেন এবং কেনাকাটা করতে পারবেন।

গত বছরের ডিসেম্বরেই মূলত খবরটি ছড়ায়। নতুন বছরের শুরুতেই এ কর্মযজ্ঞকে সামনে রেখে নতুন কর্মী নিয়োগ দেয় তারা। কলেবরে বাড়ানো হয় তাদের ক্রিপ্টোকারেন্সি দল। ফেসবুক লন্ডনভিত্তিক নতুন প্রতিষ্ঠান চেইনস্পেসকে নিজের করে নেওয়ারও ঘোষণা দেয় তারা। ব্লক চেইন প্রযুক্তি ব্যবহার করে এই ভার্চুয়াল মুদ্রাটি ২০২০ সালে আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করবে।

ফেসবুকের এমন আয়োজনে রীতিমতো উত্তেজিত বিনিয়োগকারীরা। ক্রিপ্টোকারেন্সির দুনিয়াটা উদীয়মান। এই ব্যবসার গুরুত্ব অনেকটা ফেসবুকের আগমনের ওপর নির্ভর করে। আন্তর্জাতিক বাজারে উন্নয়নের জন্য 'ফেসবুক কয়েন' এবার নজর কাড়বে বলেই বিশ্নেষকদের মত। মূলত ফেসবুকের ক্রিপ্টোকারেন্সি এজেন্ডা উদারপন্থি অর্থব্যবস্থাকে বাস্তবায়ন করবে।

ইতিমধ্যে বিশ্বের বড় বড় সব আর্থিক লেনদেন সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানসহ অন্যান্য গ্রাহকসেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান ফেসবুকের সঙ্গে ক্রিপ্টোকারেন্সি 'লিবরা' বিষয়ে চুক্তি করে ফেলেছে। এ তালিকায় মাস্টারকার্ড, ভিসা, পেপ্যাল, স্ট্রাইপ, ইবে, উবার, লিফট, স্পোটিফাই, কয়েনবেস, জ্যাপো, আন্দ্রেসেন হোরোউইটজ, বুকিং ডটকম, ভোডাফোন রয়েছে। এসব কোম্পানিসহ মোট ১০০টি প্রতিষ্ঠান 'লিবরা অ্যাসোসিয়েশন' নামে একটি স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের অধীনে থেকে ফেসবুকের ক্রিপ্টোকারেন্সি নিয়ন্ত্রণ করবে।

কিন্তু এতকিছুর পরও কিছু প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে। আর তা হলো লিবরা কি আদৌ ক্রিপ্টোকারেন্সি? আর সে ক্ষেত্রে দ্রুত এবং কার্যকর ব্লকচেইন অবকাঠামো নির্মাণে ফেসবুকের ভূমিকা কী হবে? আর সবচেয়ে উদ্বেগের বিষয়, এই ভার্চুয়াল মুদ্রার নিরাপদ ব্যবহার কে নিশ্চিত করবে। কারণ বিটকয়েনের প্রতারণা এবং সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে বহুল ব্যবহারের বিষয়টি কারও অজানা নয়।

ফেসবুকের তরফ থেকে এসব প্রশ্নের উত্তর এখনও মেলেনি। তবে সম্প্রতি ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের গভর্নরের সঙ্গে বিবিসির এক সাক্ষাৎকার থেকে এ সম্পর্কে কিছুটা ধারণা পাওয়া গেছে।

গভর্নর মার্ক কার্নি জানান, কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলো লিবরার কার্যক্রম শুধু বসে বসে অবলোকন করবে না। মি. কার্নি মার্ক জাকারবার্গ যখন কয়েক মাস আগে লিবরার বিষয়ে ব্রিফ করেছিলেন, তখন তিনি সেখানে উপস্থিত ছিলেন। এই পরিকল্পনাটি সম্পর্কে কিছু সতর্ক বার্তা দিয়েছেন।তিনি বিশ্বব্যাপী পেমেন্ট সিস্টেমের জন্য নতুন উদ্ভাবনের প্রয়োজনীয়তা স্বীকার করেন। কিন্তু তিনি মনে করেন, সে ক্ষেত্রে শুরু থেকেই এর জন্য পরিস্কার নীতিমালা থাকা উচিত।

মার্ক কার্নি বলেন, 'লিবরাকে আমি স্বাগত জানাই। তবে নজরদারি, ভোক্তা সুরক্ষা, বাজারের অখ তা, মানুষের গোপনীয়তার অধিকার- এই বিষয়গুলোর প্রতিও ফেসবুকের দায়বদ্ধতা থাকা উচিত। আমরা অপরাধী ও সন্ত্রাসীদের কাজে ব্যবহূত হবে এমন একটি নেটওয়ার্ককে অনুমতি দেব না।বিশ্বব্যাপী ১.৭ বিলিয়ন মানুষের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট নেই। ফেসবুক মূলত এই বিশাল জনগোষ্ঠীকেই তাদের ভার্চুয়াল কারেন্সির গ্রাহক বানাতে চাচ্ছে। এই মানুষগুলো পরিবার এবং আত্মীয়দের কাছে অর্থ স্থানান্তর করতে গিয়ে নানা ঝক্কি ঝামেলায় পড়ে। এ ছাড়া গুনতে হয় বাড়তি খরচ। কিন্তু একটি নতুন সুপারফাস্ট ব্লকচেইন তৈরি করা এবং নিশ্চিত করা যে নতুন সিস্টেমটি অর্থ লন্ডারিং এবং সন্ত্রাসী অর্থায়ন সম্পর্কিত বিধিনিষেধগুলো মেনে চলবে একটি দীর্ঘ এবং ব্যয়বহুল প্রক্রিয়া হবে বলেই মনে করছেন প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞরা।

ষ সূত্র : বিবিসি