ঢাকা শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪

ঋণের বোঝা বইতে না পেরে বিষপান স্বামী-স্ত্রীর, একজনের মৃত্যু

ঋণের বোঝা বইতে না পেরে বিষপান স্বামী-স্ত্রীর, একজনের মৃত্যু

বড়াইগ্রাম (নাটোর) প্রতিনিধি

প্রকাশ: ২৬ আগস্ট ২০২২ | ০৮:০৬ | আপডেট: ২৬ আগস্ট ২০২২ | ০৮:০৬

নাটোরের বড়াইগ্রামে ঋণের বোঝা বইতে না পেরে এক দম্পতির বিষপানের খবর পাওয়া গেছে। তাঁদের উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে ভর্তি করলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বিথী পারভীনের মৃত্যু হয়। তাঁর স্বামী ফারুক হোসেনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। শুক্রবার উপজেলার বনপাড়া পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ডের হালদারপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় কাউন্সিলর শরিফুন্নেসা শিরিন বলেন, ফারুক তাঁর বাবা মফিজ উদ্দিনের সঙ্গে বনপাড়া বাজারে ফলের ব্যবসা করতেন। বছর দেড়েক আগে তাঁদের বাড়ির ভাড়াটিয়া বিথীকে সাত মাসের অন্তঃসত্ত্বা অবস্থায় তালাক দিয়ে চলে যান তাঁর স্বামী। এরপর থেকে ফারুকের স্ত্রী মর্জিনা বেগমের মানবিক ও আর্থিক সহায়তায় বিথী ওই বাসাতেই থাকতেন। তাঁর একটি পুত্র সন্তান হয়। এক পর্যায়ে ঘনিষ্ঠতা বাড়লে আদালতে নিয়ে তাঁকে বিয়ে করেন ফারুক, ওঠেন হালদারপাড়ায় ভাড়া বাসায়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে তাঁকে দোকান থেকে বের করে দেন মফিজ উদ্দিন। এরপর ধারদেনা করে চলতে থাকে তাঁদের সংসার। ঋণের টাকা শোধ করতে না পারায় বাড়তে থাকে পাওনাদার ও সুদি মহাজনদের চাপ। এই চাপ নিতে না পেরে তাঁরা আত্মহত্যার উদ্দেশ্যে বিষপান করেন।
রামেক হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. শফিকুল ইসলাম জানান, ফারুক ও বিথী খালি পেটে দানাদার-জাতীয় কীটনাশক খেয়েছিলেন। এ কারণে একজনের মৃত্যু হয়েছে, ফারুকেরও শঙ্কা কাটেনি। মর্জিনা বেগম বলেন, 'ফারুকের অবস্থা সংকটাপন্ন। তিনি বাঁচবেন কিনা আল্লাহ জানেন।'
ওসি আবু সিদ্দিক জানান, ফারুক ও বিথী পারিবারিক কলহের জেরে বিষপান করেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।

আরও পড়ুন

×