ঢাকা সোমবার, ২০ মে ২০২৪

মহাসড়ক দখল করে অবৈধ বালুর ব্যবসা

মহাসড়ক দখল করে অবৈধ বালুর ব্যবসা

ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের ত্রিশাল অংশের শতাধিক স্থানে অবৈধ বালুর ব্যবসা-সমকাল

মতিউর রহমান সেলিম, ত্রিশাল (ময়মনসিংহ)

প্রকাশ: ১৩ অক্টোবর ২০২২ | ১২:০০

ত্রিশালে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক দখল করে অবাধে চলছে চুরি করা বালুর ব্যবসা। দীর্ঘদিন ধরে এ কর্মকাণ্ড চললেও সড়ক ও জনপথ বিভাগের তৎপরতা নেই বলে অভিযোগ রযেছে। এতে বাড়ছে পরিবেশ দূষণ ও দুর্ঘটনার ঝুঁকি।

নেত্রকোনার দুর্গাপুর উপজেলার সোমেশ্বরী নদী থেকে তোলা লাল বালু যাচ্ছে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায়। এ বালু পরিবহন করেন ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে চলাচলকারী ট্রাকের অসাধু চালকরা। পরিবহনকালে ক্রেতাদের ঠকিয়ে ৬০ থেকে ৮০ ঘনফুট বালু ফেলে রেখে যান। ত্রিশালে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের পাশে শতাধিক স্থানে স্তূপ করে চলছে চুরির বালুর রমরমা ব্যবসা। এতে পরিবেশ দূষণ ও সড়ক দুর্ঘটনার ঝুঁকি বাড়ছে বলে অভিযোগ স্থানীয়দের।

উপজেলার উকিলবাড়ির মোড় থেকে বগার বাজার পর্যন্ত দেখা গেছে, মহাসড়কের ৭-৮ ফুট জায়গা দখল করে শতাধিক বালুর স্তূপ করা হয়েছে। ক্রেতাদের ফাঁকি দিয়ে ট্রাক থেকে চুরি করে নামিয়ে বিক্রি করা হচ্ছে বালু। এ বালু ছড়িয়ে পড়েছে। ঝুঁকি নিয়ে চলছেন মোটরসাইকেল আরোহীরা। দ্রুতগামী যানবাহন চলাচলের সময় বাতাসে বালু মিশে একাকার হয়। ধুলায় ধূসর হয়ে পড়ে সড়ক বিভাজকে রোপণ করা শোভাবর্ধনকারী সবুজ গাছপালা।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক ট্রাক মালিক জানান, প্রতি ট্রাক লাল বালুর জন্য ক্রেতাদের কাছ থেকে নেওয়া হয় ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকা। অসাধু বালু ব্যবসায়ী ও ট্রাকচালকরা ক্রেতাদের ঠকিয়ে প্রতিটি ট্রাক থেকে ৬০-৮০ ঘনফুট বালু নামিয়ে রাখছেন।

বিষয়টি নিয়ে কথা হয় স্থানীয় বাসিন্দা আরিফুল ইসলাম, বেলায়েত হোসেন, তাইজ উদ্দিন, হারুন-অর রশীদের সঙ্গে। তাঁদের ভাষ্য, মহাসড়কে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা বালুতে যানবাহনের চাকা স্লিপ কেটে দুর্ঘটনার সংখ্যা বাড়ছে। বেশি বিপাকে পড়েন মোটরসাইকেল আরোহীরা। ফুটপাত দিয়েও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে হয় পথচারীদের।

সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. ওয়াহেদুজ্জামান জানান, ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে মহাসড়ক থেকে অবৈধ বালু ব্যবসায়ীদের উচ্ছেদ করা হবে।

ত্রিশালের ইউএনও মো. আক্তারুজ্জামান বলেন, মহাসড়ক দখল করে চুরি করা বালুর ব্যবসা বন্ধে একাধিকবার অভিযান চালানো হয়েছে। জরিমানাও করা হয়েছে। এরপরও থামছে না এসব কর্মকাণ্ড।

আরও পড়ুন

×