ঢাকা বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪

চরফ্যাশনে যৌতুক না পেয়ে স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

চরফ্যাশনে যৌতুক না পেয়ে স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

প্রতীকী ছবি।

চরফ্যাশন (ভোলা) প্রতিনিধি

প্রকাশ: ১৯ অক্টোবর ২০২২ | ১০:১০ | আপডেট: ১৯ অক্টোবর ২০২২ | ১০:১০

ভোলার চরফ্যাশনে যৌতুকের টাকা না পেয়ে কুলসুম নামের এক গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে স্বামী ও তার পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে।

মঙ্গলবার রাতে দক্ষিণ আইচা থানার চর মানিকা ইউনিয়নের চর কচ্ছপিয়া গ্রামে স্বামী সাইফুল ইসলাম ওরফে আকতারের বাড়িতে কুলসুমকে দফায় দফায় মারধরের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে রাতেই স্বজনরা গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে দক্ষিণ আইচা গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে যায়। চিকিৎসক অবস্থার অবনতি দেখে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশালে রেফার করেন।

আজ বুধবার বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে বিকেলে তার মৃত্যু হয়। নিহত কুলসুম রসুলপুর ইউনিয়নের উত্তর আইচা গ্রামের আবদুল মজিদ হাওলাদরের মেয়ে। তিনি এক সন্তানের জননী। 

এ ঘটনায় দক্ষিণ আইচা থানা পুলিশ তার শ্বশুর মো. কাজলকে আটক করেছে। মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

পুলিশ ও স্বজনরা জানান, পাঁচ বছর আগে চর মানিকা ইউনিয়নের চর কচ্ছপিয়া গ্রামের কাজলের ছেলে সাইফুল ইসলাম ওরফে আকতারের সঙ্গে পারিবারিকভাবে বিয়ে হয় কুলসুমের। তাদের ঘরে আড়াই বছর বয়সের খাদিজা নামের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। বিয়ের পর থেকে সাইফুল নানা অজুহাতে যৌতুক হিসেবে ৩ লাখ টাকা দাবি করেন। মেয়ের সংসারের সুখের জন্য বাবা মজিদ হাওলাদার দুই লাখ টাকা জামাতার হাতে তুলে দেন। 

এরপরও সাইফুল প্রায়ই স্ত্রীকে বাবার বাড়ি থেকে আরও টাকা আনার চাপ দিতেন। এ নিয়ে তাদের সংসারের দাম্পত্য কলহ শুরু হয়। মঙ্গলবার রাতে সাইফুল ফের এক লাখ টাকা এনে দিতে বলেন। এ নিয়ে সাইফুল ও তার পরিবারের সদস্যরা গভীর রাতে কুলসুমকে মারধর ও অমানুষিক নির্যাতন চালিয়ে পিটিয়ে মাথায় রক্তাক্ত জখম করেন। 

দক্ষিণ আইচা থানার ওসি মো. সাখাওয়াত হোসেন জানান, নিহত গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য ভোলা মর্গে পাঠানো হচ্ছে। সন্ধ্যায় তার শ্বশুরকে আটক করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে আদালতে সোপর্দ করা হবে। 

আরও পড়ুন

×