ঢাকা শনিবার, ১৮ মে ২০২৪

ময়মনসিংহে ডিবি পরিচয়ে অপহরণ, জনতার হাতে ধরা ৪

ময়মনসিংহে ডিবি পরিচয়ে অপহরণ, জনতার হাতে ধরা ৪

প্রতীকী ছবি।

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি

প্রকাশ: ০৩ নভেম্বর ২০২২ | ০৪:২০ | আপডেট: ০৩ নভেম্বর ২০২২ | ০৪:২১

ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ মহাসড়কে যাত্রীবাহী মাহেন্দ্র থামিয়ে ডিবি পুলিশ পরিচয়ে তুলে নেওয়া হয় এক ব্যক্তিকে। পরে প্রাইভেটকারে তুলে হাতকড়া পড়িয়ে ইট দিয়ে তাকে মারতে মারতে নেওয়া হয়। পথে গাড়ির ভেতর থেকে আসা আওয়াজ শুনে গতিরোধ করে জনতা অপহৃত ব্যক্তিকে উদ্ধার করে। চক্রের ৪ সদস্যকে তুলে দেয় পুলিশের হাতে। 

বুধবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে এমন ঘটনা ঘটে। পরে মামলা শেষে আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে অভিযুক্তদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়। 

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, জেলার ত্রিশাল উপজেলার বাগান গ্রামের মনিরুজ্জামানের ছেলে মো. মুক্তার হোসেন (৪০) ময়মনসিংহের রয়েল বেকারি নামে একটি প্রতিষ্ঠানে ডেলিভারিম্যান হিসেবে কাজ করেন। গত বুধবার ঈশ্বরগঞ্জ এলাকায় কাজ শেষে মাহেন্দ্র দিয়ে ময়মনসিংহে যাওয়ার পথে গৌরীপুরের রামগোপালপুর এলাকায় ঘটনার সূত্রপাত হয়। দাঁড়ানো প্রাইভেটকারের পাশে মাহেন্দ্রকে গতিরোধ করে ডিবি পুলিশ পরিচয় দিয়ে মুক্তারের কাছে মাদক থাকার কথা বলা হয়। ওই সময় মুক্তারকে মাহেন্দ্র থেকে মারতে মারতে নামিয়ে হাতকড়া পড়িয়ে তোলা হয় প্রাইভেটকারে। পরে তাকে প্রাইভেটকারে তুলে ঈশ্বরগঞ্জের দিকে যেতে যেতে ইট দিয়ে মাথায় ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করে রক্তাক্ত করা হয় তাকে। কিন্তু ঈশ্বরগঞ্জ মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কাছে পৌরসভার টোল আদায়ের জন্য দাঁড়িয়ে থাকায় একদল লোক প্রাইভেটকারের ভেতর থেকে চিৎকার শুনে গাড়ির গতি রোধের চেষ্টা করে। পরে গাড়িতে আঘাত করে থামানো হয়। উদ্ধার করা হয় মুক্তারকে। রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে প্রথমে ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও পরে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। 

আটকরা হলেন- গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার বরমি ইউনিয়নের কায়েদ পাড়া গ্রামের আব্দুর রশিদের ছেলে মো. আব্দুল্লাহ জুয়েল (২৮), ত্রিশাল উপজেলার সাখুয়া ইউনিয়নের বাবুপুর গ্রামের মো. নূরুল ইসলামের ছেলে মো. সারোয়ার (৩৫), হালুয়াঘাট উপজেলার গাজীর ভিটা ইউনিয়নের আয়লা তলি গ্রামের খালেক ওরফে সালামের ছেলে মো. রফিকুল ইসলাম (৩০) এবং একই উপজেলার মোমেনপুর গ্রামের নিজাম উদ্দিনের ছেলে কামাল হোসেন (২৭)।

এ ঘটনায় মুক্তার হোসেন বৃহস্পতিবার বিকেলে গৌরীপুর থানায় একটি মামলা করেন। সেই মামলায় তাদের গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে সোপর্দ করা হয়।

গৌরীপুর থানার ওসি খান আবদুল হালিম সিদ্দিকী বলেন, দলটির মূল উদ্দেশ্য ছিল অপহরণ। গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে একজন মুক্তারের সঙ্গে একই স্থানে আগে কাজ করতেন।

আরও পড়ুন

×