ঢাকা শনিবার, ১৮ মে ২০২৪

বিএনপির সমাবেশস্থলের পাশেই চলছে স্লোগান ও মিছিল

বিএনপির সমাবেশস্থলের পাশেই চলছে স্লোগান ও মিছিল

সমাবেশস্থলের পাশেই মিছিল করছে দলের নেতারা। ছবি-সমকাল

রাজশাহী ব্যুরো

প্রকাশ: ০২ ডিসেম্বর ২০২২ | ০২:০৯ | আপডেট: ০২ ডিসেম্বর ২০২২ | ০২:০৯

বিএনপির রাজশাহী বিভাগীয় গণসমাবেশ আগামীকাল। পরিবহণ ধর্মঘটের মধ্যেই আগেভাগে হাজার হাজার নেতাকর্মী জমায়েত হয়েছেন রাজশাহীতে। রাজশাহীর ঈদগাহ মাঠে কয়েক হাজার বিএনপি নেতাকর্মী তাঁবু খাটিয়ে অবস্থান করছেন। 

শুক্রবার সকাল থেকেই সমাবেশস্থলের কাছে ছোট ছোট দলে ভাগ হয়ে নেতাকর্মীরা স্লোগান দিচ্ছেন ও মিছিল করছেন। মিছিলে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি জানানো হচ্ছে।


চলছে মঞ্চ প্রস্তুতের কাজ, ঈদগাহ মাঠ লোকে লোকারণ্য

রাজশাহীর ঐতিহাসিক মাদ্রাসা মাঠে গণসমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। সেখানে মঞ্চ তৈরির কাজ চলছে। মাদ্রাসা (বর্তমান হাজী মুহম্মদ মহসীন উচ্চবিদ্যালয়) মাঠটির চারপাশে প্রাচীর রয়েছে, গেট বন্ধ করে রাখা হয়েছে। সেখানে মঞ্চ তৈরির কাজে নিযুক্ত থাকা ব্যক্তিরা ব্যতীত কেউই প্রবেশের অনুমতি পাচ্ছেন না। মাঠ রয়েছে পুলিশের নিয়ন্ত্রণে। অন্যদিকে মাদ্রাসা মাঠের দক্ষিণ ঈদগাহ মাঠ। বৃহৎ এই মাঠে কয়েক হাজার বিএনপি নেতাকর্মী অবস্থান করছেন। তাঁবু খাটিয়ে তারা সেখানে অবস্থান করছেন। সেখানেই রান্না করে খাচ্ছেন, ঘুমাচ্ছেন।

খাবার, কম্বল, চাদর সরবরাহ করছেন বিএনপি নেতারা

সমাবেশে আসা নেতাকর্মীদের থাকা, খাওয়া ও শীত নিবারণের জন্য কম্বল, চাদর সরবরাহ করছে বিএনপি নেতারা। শুক্রবার সকালে ঈদগাহ মাঠে একটি তাঁবুতে সিরাজগঞ্জের বেশ কয়জন নেতাকর্মীকে দেখা যায়। তাঁবুটির বাইরের ব্যানারে সিরাজগঞ্জ-০৫ আসনের ব্যানার লাগানো। সেখানে বিএনপি নেতা আমিরুল ইসলাম খান আলীমের নাম লেখা দেখা যায়। সেখানে কয়েকশ পিস কম্বল ও চাদর রাখা হয়েছে। সমাবেশ আসা নেতাকর্মীদের শীত নিবারণের জন্য এসব কম্বল, চাদর সরবরাহ করেছেন বিএনপি নেতা আলীম। অধিকাংশ তাঁবুতেই এসব সরবরাহ করছেন স্থানীয় বিএনপি নেতারা। 

পথে পথে বাধা ও পুলিশি হয়রানির অভিযোগ

গতকাল থেকে রাজশাহী বিভাগে পরিবহন ধর্মঘট চলছে। সমাবেশে যোগ দিতে বুধবার থেকে রাজশাহীতে বিভিন্ন জেলা থেকে বিএনপি নেতাকর্মীরা আসছেন। আসার পথে তাদেরকে পুলিশি হয়রানির শিকার হতে হয়েছে বলে অভিযোগ করছেন তারা।

জয়পুরহাট জেলা কৃষক দলের সদস্য সচিব কাজী মনজুর-এ-মওলা পলাশ বলেন, আমরা ট্রেনে রাজশাহী এসেছি। আসার সময় ট্রেনে পুলিশ জিজ্ঞেস করে আমরা রাজশাহী কেন যাচ্ছি। সমাবেশের কথা শুনে ট্রেন থেকে নামিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে। তারপরও তাঁদের বাধা উপেক্ষা করে আমরা এসেছি।

তিনি বলেন, ইতোমধ্যে জয়পুরহাট জেলা কৃষক দলের সহস্রাধিক নেতাকর্মী সমাবেশে যোগ দিতে রাজশাহী পৌঁছেছেন। আরও কয়েক হাজার নেতাকর্মী কাল সকালের মধ্যে পৌঁছাবে।

বগুড়ার বিএনপি কর্মী তোয়াব আলী বলেন, কাল সকালে বাড়ি থেকে বের হয়েছি। অটোরিকশায় করে বিভিন্ন জায়গায় বিরতি দিয়ে রাতে রাজশাহী এসেছি। এই সরকারের কারণে সাধারণ জনগণ খুব কষ্টে আছে সেজন্য এত বাধা পেরিয়ে সমাবেশে এসেছি। মানুষ যাতে আসতে না পারে সেজন্য বাস বন্ধ করে দিয়ে দুর্ভোগ তৈরি করেছে। এলাকায় বিএনপির লোকজনদের পুলিশ চোখে চোখে রাখছে। 

আরও পড়ুন

×