ঢাকা বুধবার, ২২ মে ২০২৪

বিএনপির আরও ২০ নেতাকর্মী গ্রেপ্তার

বিএনপির আরও ২০ নেতাকর্মী গ্রেপ্তার

প্রতীকী ছবি

অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশ: ০২ ডিসেম্বর ২০২২ | ০৯:৩০ | আপডেট: ০২ ডিসেম্বর ২০২২ | ০৯:৩০

পুলিশের ওপর হামলা, ক্ষমতাসীন দলের কর্মসূচিতে ককটেল নিক্ষেপ, সংঘর্ষ ও নাশকতার পরিকল্পনার অভিযোগ এনে দেশের বিভিন্ন স্থানে বিস্ফোরক আইনে আরও তিনটি মামলা হয়েছে। এসব মামলায় বিএনপির ২৪৫ নেতাকর্মীকে আসামি করা হয়েছে। তাঁদের মধ্যে ২০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

এর মধ্যে ফরিদপুরের সালথায় ককটেল বিস্ফোরণের অভিযোগে বিএনপির ৮০ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে সালথা থানার এসআই আওলাদ হোসেন এ মামলা করেন। পরে রাতেই উপজেলা বিএনপির প্রচার সম্পাদক মো. নাছির মাতুব্বর, বিএনপি কর্মী আমিনুল ইসলাম ও শহিদুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করা হয়। গতকাল শুক্রবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে তাঁদের কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

সালথা থানার ওসি মো. শেখ সাদিক জানান, বৃহস্পতিবার রাত ৯টার দিকে সালথা কলেজ মাঠের পাশে ককটেল বিস্ফোরণের খবর পেয়ে পুলিশ গেলে দুর্বৃত্তরা ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। এতে দুই এসআইসহ চার পুলিশ সদস্য আহত হন। ফাঁকা গুলি ছুড়লে তারা পালিয়ে যায়। পরে ঘটনাস্থল থেকে বিস্ফোরিত ককটেলের কৌটার অংশসহ দেশীয় অস্ত্র জব্দ করা হয়।

বরিশালের বাকেরগঞ্জ পৌর শহরের টিঅ্যান্ডটি সড়ক মোড়ে বৃহস্পতিবার রাতে দুটি ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনায় বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের ৯২ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা করেছে পুলিশ। এ মামলায় যুবদল ও স্বেচ্ছাসেবক দলের তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

বাকেরগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সত্য রঞ্জন খাসকেল জানান, গ্রেপ্তার সাইদুর রহমান রুবেল, রায়হান হোসেন ও ফয়সাল আহম্মেদ টিটুকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

বরিশাল দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আবুল হোসেন খান জানান, ককটেল বিস্ফোরণে তাদের কেউ জড়িত নন। সারাদেশে যেভাবে গায়েবি মামলা হচ্ছে, এখানেও তাই হয়েছে।

এ ছাড়া কিশোরগঞ্জের বাজিতপুরে বুধবার বিকেলে আসামি ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনায় বিএনপির ৮০ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা করেছে পুলিশ। পরে উপজেলা বিএনপির ১০ নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করে শুক্রবার আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়। বাজিতপুর থানার ওসি মুহাম্মদ শফিকুল ইসলাম এ তথ্য জানিয়েছেন। অন্যদিকে সদর মডেল থানার ওসি মোহাম্মদ দাউদ জানান, পুলিশের ওপর হামলার পুরোনো মামলায় ছাত্রদল ও স্বেচ্ছাসেবক দলের চার নেতাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাঁরা হলেন- মো. রিয়াদ, নৌশাদ কবির, মো. জাকারিয়া ও অলিউল্লাহ অলি।

আরও পড়ুন

×