ঢাকা মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪

বড়দিনের উৎসবের আমেজ

বড়দিনের উৎসবের আমেজ

আগৈলঝাড়ায় বড়দিন উপলক্ষে সাজানো একটি গির্জা-সমকাল

আগৈলঝাড়া (বরিশাল) ও রাঙ্গুনিয়া (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি

প্রকাশ: ২৩ ডিসেম্বর ২০২২ | ১২:০০ | আপডেট: ২৪ ডিসেম্বর ২০২২ | ০১:০৪

খ্রিষ্টান সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব বড়দিন আগামীকাল। এ উপলক্ষে বরিশালের আগৈলঝাড়ায় ৬৮টি গির্জায় চলছে উৎসবের আমেজ। বড়দিনকে সামনে রেখে প্রতিদিন সন্ধ্যা থেকে গভীর রাত পর্যন্ত খ্রিষ্টান সম্প্রদায়ের বিভিন্ন বাড়ির উঠানে নারী-পুরুষরা সম্মিলিতভাবে গানের তালে তালে করছে নাচ বা নগর কীর্তন। নগর কীর্তনের মধ্য দিয়ে প্রভু যিশুকে স্মরণ করছে তারা। শুধু নগর কীর্তনই নয়, বড়দিন উৎসব উদযাপনে গির্জা ও বাড়িগুলো ঝলমল করছে বাহারি আলোকসজ্জায়। আল্পনায় আল্পনায় গির্জা ও বাড়ির আঙিনা সেজেছে রং-বেরঙের নতুন সাজে।

নগর কীর্তনে অংশ নেওয়া জেমস গিলবাট অধিকারী, বেবী বিশ্বাস, মিঠু অধিকারী, জর্জ অধিকারীসহ অনেকে জানান, বড়দিন উপলক্ষে প্রভু যিশুর বার্তা পৌঁছানোর জন্য এ নগর কীর্তন করা হয়। প্রতি রাতে ৪ থেকে ৫টি নগর কীর্তনের দল বাড়িতে আসে বলেও জানান তাঁরা।

উপজেলার কাঠিরা ব্যাপ্টিস্ট চার্চের ফাদার রেভারেন সুশান্ত বৈরাগী বলেন, প্রতিটি গির্জায় বিশেষ প্রার্থনা, ধর্মীয় আলোচনা, কেক কাটা, প্রীতিভোজে অংশগ্রহণ করেন প্রভু যিশুর অনুসারীরা। আগৈলঝাড়ায় এবার ৬৮টি গির্জায় বড়দিনের প্রার্থনা অনুষ্ঠিত হবে, যা বরিশাল জেলার মধ্যে সবচেয়ে বেশি।

এ ব্যাপারে আগৈলঝাড়া থানার ওসি গোলাম ছরোয়ার জানান, বড়দিনকে ঘিরে অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে কঠোর নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

এদিকে চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ার চন্দ্রঘোনায় বড়দিন পালন উপলক্ষে নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। ইতোমধ্যে চন্দ্রঘোনা খ্রিষ্টান পল্লি নান্দনিক আলোকসজ্জায় সেজেছে। খ্রিষ্টানদের ধর্মীয় উপাসনালয় গির্জাতেও উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে। চন্দ্রঘোনা কুষ্ঠ হাসপাতাল, ক্রিশ্চিয়ান হাসপাতাল ও জুমপাড়ায় বসবাসকারী খ্রিষ্টান পরিবারগুলো বড়দিনকে বরণ করতে সব আয়োজন সম্পন্ন করেছে। এসব আয়োজনের মধ্যে রয়েছে প্রার্থনা সভা, কেক কাটা, যিশুর জন্মস্থান প্রতীকী গোয়ালঘর তৈরি করে আরাধনা, ক্রিসমাস গাছ সাজানো, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন প্রভৃতি।

চন্দ্রঘোনা ক্রিশ্চিয়ান হাসপাতালের পরিচালক ডাক্তার প্রবীর খিয়াং জানান, ধর্মীয় ও সামাজিকভাবে বড়দিন উদযাপন করতে গির্জাগুলোতে নানা কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে। ব্যাপক আয়োজনে এবারে বড়দিন পালন করা হবে।

রাঙ্গুনিয়ার ইউএনও আতাউল গণি ওসমাণি জানান, খ্রিষ্ট ধর্মাবলম্বীরা যাতে নির্বিঘ্নে তাদের উৎসব পালন করতে পারেন সেজন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন

×