ঢাকা রবিবার, ১৯ মে ২০২৪

জমি নিয়ে বিরোধ

ময়মনসিংহে ধান কাটতে বাধা দেওয়ায় যুবককে কুপিয়ে হত্যা

ময়মনসিংহে ধান কাটতে বাধা দেওয়ায় যুবককে কুপিয়ে হত্যা

ফাইল ছবি

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি

প্রকাশ: ২৩ এপ্রিল ২০২৩ | ১৯:০৯ | আপডেট: ২৪ এপ্রিল ২০২৩ | ০০:৩১

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে জমির পাকা ধান কেটে নিতে বাধা দেওয়াকে কেন্দ্র করে এক যুবককে কুপিয়ে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। এতে আহত হয়েছেন আরও তিনজন। রোববার সকালে আক্রমণের ঘটনা ঘটলেও চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাতে মারা যান রুবেল মিয়া (২৬) নামের ওই যুবক। ঘটনার পর থেকে অভিযুক্তরা পলাতক থাকায় পুলিশ কাউকে আটক করতে পারেনি।

উপজেলার জাটিয়া ইউনিয়নের জাটিয়া সরকারপাড়া গ্রামের দুই ভাই আবদুল খালেক ও আবদুল আলীর মধ্যে জমি নিয়ে বিরোধ চলছিল। তারা ওই গ্রামের নেওয়াজ আলীল ছেলে। আবদুল আলীর কোনো সন্তান নেই, তিনি স্ত্রীর নামে সব সম্পত্তি লিখে দেন। সেই সম্পত্তি দুই ভাইয়ের পরিবারের মধ্যে সঠিকভাবে বন্টন না হলেও আবদুল আলী নিজের স্ত্রীকে জমি লিখে দেওয়াকে কেন্দ্র করে অসন্তোষ চলছিল। সম্পত্তির মাপজোখ করে বুঝে নেওয়ার জন্য আবদুল আলীকে বড় ভাই আবদুল খালেকের ছেলেরা বললেও তা করছিলেন না। উল্টো আবদুল আলী নিজের শ্বশুরবাড়ির লোকজন নিয়ে জমি দখলে রাখেন। রোববার সকালে জমিতে পাকা ধান কাটতে যান আবদুল আলীর স্ত্রীর ভাই ইসলাম উদ্দিন ও তার লোকজন। নিজেদের জমি থেকে ধান কাটতে দেখে নিষেধ করেন আবদুল খালেকের ছেলে রুবেল মিয়া (২৬)। রুবেল মিয়া পেশায় পাওয়ার টিলার চালক ছিলেন। রুবেল ধান কাটতে নিষেধ করলে বাকবিতণ্ডার একপর্যায়ে তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাথাড়ি আঘাত করা হয়। ওই সময় তাকে রক্ষা করতে গিয়ে ভাই আবু হানিফা, আবদুস সোবহান ও রাকিবুল ইসলামও আহত হন। তাদের উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে রাত ৯টার দিকে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

নিহতের বড় ভাই আজিজুল হক বলেন, ‘চাচার সঙ্গে জমি নিয়ে সমস্যা থাকলেও চাচার শ্বশুরবাড়ির লোকজন এসে সমস্যাটি বড় করে। জমির মাপজোখ শেষ না করেই তাদের ভোগ করা জমিতে ধান কাটা শুরু করে চাচা শ্বশুরবাড়ির লোকজন। এটি দেখে নিষেধ করায় তার ভাইকে খুন করা হয়েছে।’

ঈশ্বরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) পিএসএম মোস্তাছিনুর রহমান বলেন, ‘ধান কাটা নিয়ে হামলায় আহত যুবকের মৃত্যু হয়েছে। ঘটনার পর থেকে অভিযুক্তরা পলাতক রয়েছেন। তাদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।’

আরও পড়ুন

×