বিজয়ের মাস

শহীদ পরিবারটির একমাত্র সান্ত্বনা বঙ্গবন্ধুর চিঠি

স্বীকৃতি চান মহেশ

প্রকাশ: ০৮ ডিসেম্বর ২০১৭     আপডেট: ০৮ ডিসেম্বর ২০১৭      

আহমেদ ফয়সাল, বিয়ানীবাজার (সিলেট)

'প্রিয় ভাই,/ আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রামে আপনার সুযোগ্য পুত্র আত্মোৎসর্গ করেছেন। আপনাকে আমি গভীর দুঃখের সাথে জানাচ্ছি আমার আন্তরিক সমবেদনা। আপনার শোক-সন্তপ্ত পরিবারের প্রতিও রইল আমার প্রাণঢালা সহানুভূতি।/ এমন নিঃস্বার্থ মহান দেশপ্রেমিকের পিতা হওয়ার গৌরব লাভ করে সত্যি আপনি ধন্য হয়েছেন।' একটু নিচে আলাদা প্যারায় আবারও লেখা, 'আমার প্রাণভরা ভালবাসা ও শুভেচ্ছা নিন।'

গত ৪৫ বছরে চিঠিটি অনেকটাই বিবর্ণ হয়ে গেছে। তবু জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পাঠানো এই সান্ত্বনাপত্র সযত্নে আগলে রেখেছে শহীদ মনোরঞ্জন ঘোষের পরিবার। মুক্তিযুদ্ধে একদিনে, এক নিমিষে তাদের পরিবার ও আত্মীয়কুলের ১৪ জনের মধ্যে ১৩ জনই উৎসর্গ করেছেন তাদের জীবন। বিনিময়ে বঙ্গবন্ধুর পাঠানো এই চিঠিটিই একমাত্র সান্ত্বনা তাদের। এমনকি শহীদ পরিবারের স্বীকৃতিও পাননি তারা।

পরিবারের সবার শহীদানের এ ঘটনা ঘটে ১৯৭১ সালের ২১ জুলাই বিকেল ৪টার দিকে। সিলেটের বিয়ানীবাজার এলাকার শান্তি কমিটির সভাপতি ছিলেন তৎকালীন মুসলিম লীগ নেতা আবদুর রহিম (বচন আজি)। তার ডান হাত রাজাকার কুটুমনার প্ররোচনা ও সহযোগিতায় পাকিস্তানি বাহিনী সেদিন সুপাতলা গ্রামে সুধীর রঞ্জন ঘোষের ভাই মনোরঞ্জন ঘোষ ও উমানন্দ ঘোষের বাড়িতে হামলা চালায়। দুই পরিবারের ১৪ জন সদস্যকে ধরে নিয়ে যায় তারা। তার পর তাদের রাধা টিলা বধ্যভূমিতে দাঁড় করিয়ে নির্বিচারে গুলি চালায়। পাকিস্তানি সেনাদের গুলিতে সেদিন ১৩ জনই শহীদ হন। তবে মুহুর্মুহু গুলির মধ্যে মৃত্যুকে বরণ করে নিতে নিতেও হিরণ বালা ঘোষ তার কোলের মধ্যে আগলে রাখেন দুই বছরের শিশু মলয় ঘোষকে।

সন্ধ্যার পর বধ্যভূমিতে কান্নার শব্দ শুনে তৎকালীন পুলিশ কর্মকর্তা, গোলাপগঞ্জ থানার রায়গড় এলাকার বাসিন্দা আবদুল মতিন মলয়কে নিজ জিম্মায় নিয়ে যান। তবে দেশ স্বাধীন হওয়ার পর নিউমোনিয়ায় মলয়েরও মৃত্যু ঘটে।

ঘোষ পরিবারের জীবিত একমাত্র সদস্য মনোরঞ্জন ঘোষের ছেলে মহেশ রঞ্জন ঘোষ বলেন, 'মুক্তিযুদ্ধে বাবা, মা, ঠাকুরমা, কাকা, ভাইবোনসহ সাতজনকে হারিয়েছি। কাকার পরিবারের সঙ্গে আমি ও বড় দুই বোন ভারতে খালার বাড়ি চলে যাওয়ায় বেঁচে যাই। আমি তখন সাত বছরের শিশু।'

পাকিস্তানি সেনাদের গুলিতে সেদিন নিহত হন মহেশের বাবা মনোরঞ্জন ঘোষ (৫৩), মা হিরণ বালা ঘোষ (৩৭), ঠাকুরমা ক্ষেত্রময়ী ঘোষ (৬৮), কাকা নরেশ চন্দ্র ঘোষ (৫৮) এবং ভাই মুকুল রঞ্জন ঘোষ (১৬), বোন অমিতা ঘোষ (৯) ও সীতা (৫)। মহেশদের আপনজন ও প্রতিবেশী নন্দ ঘোষের পিতা বীরেন্দ্র ঘোষকেও গুলি করে হত্যা করা হয় ওইদিন। অন্য পাঁচজনও তাদের প্রতিবেশী উমানন্দ ঘোষ (৬৫), তার স্ত্রী চারুবালা ঘোষ (৫০), ভাই মহানন্দ ঘোষ (৫০) ও বীরেন্দ্র চন্দ্র ঘোষ (৪২), বীরেন্দ্র চন্দ্রের দুই শিশুসন্তান নিখিল চন্দ্র ঘোষ (১২) ও কৃষষ্ণ চন্দ্র ঘোষ (১০)।

১৯৭২ সালের ৬ এপ্রিল বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শহীদ মনোরঞ্জন ঘোষের ছোট ভাই সুধীর রঞ্জন ঘোষের কাছে সান্ত্বনাপত্র পাঠান। তার পরিবারকে তখন দুই হাজার টাকা অনুদানও দেওয়া হয়। ২০০২ সালে বিয়ানীবাজার পৌরসভার রাধা টিলা বধ্যভূমিতে স্থাপিত হয় স্মৃতি ফলক। এ স্মৃতি ফলকে উৎকীর্ণ হয় ১৩ শহীদের নাম।

মহেশ রঞ্জন বলেন, '২০০২ সালে শহীদ পরিবারের নাম তালিকাভুক্ত করতে সরকারের নির্ধারিত ফরম পূরণ করলেও অজানা কারণে আমাদের পরিবারের নাম তালিকাভুক্ত হয়নি।' তিনি বলেন, 'স্বজন হারানোর বেদনা নিয়ে বেঁচে আছি। এ যন্ত্রণা সবার পক্ষে বোঝা সম্ভব নয়।' তিনি প্রশ্ন করেন, রাষ্ট্র কি তাদের শহীদ পরিবারের স্বীকৃতি দেবে না?

এ প্রসঙ্গে বিয়ানীবাজার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মু. আসাদুজ্জামান বলেন, 'বিষয়টি আমরা জানতে পেরেছি। তারা শহীদ পরিবারের তালিকাভুক্ত হতে আবেদন করেছিলেন। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে এ বিষয়ে জানানো হবে। বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখার জন্য মন্ত্রণালয়ে শিগগিরই একটি অনুরোধপত্র পাঠাব। আশা করি, দ্রুতই ঘোষ পরিবারের নাম শহীদ তালিকায় স্থান পাবে।'

আরও পড়ুন

নতুন যুগসন্ধিক্ষণে

নতুন যুগসন্ধিক্ষণে

১৯৭১-এর ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশ ও বাঙালি জাতির জন্য সবচেয়ে গৌরবের ...

জামায়াত প্রশ্নে নীরব ঐক্যফ্রন্টের চার শরিক

জামায়াত প্রশ্নে নীরব ঐক্যফ্রন্টের চার শরিক

নির্বাচনে জামায়াতে ইসলামীর অংশগ্রহণ নিয়ে দৃশ্যত নীরব জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের চার ...

প্রার্থীরা ভোটের মাঠে স্বজনরা অনলাইনে

প্রার্থীরা ভোটের মাঠে স্বজনরা অনলাইনে

চট্টগ্রামের ১৬টি আসনে নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণায় এবার অন্যতম জনপ্রিয় প্ল্যাটফর্ম হয়ে ...

কষ্টের জয় রিয়ালের

কষ্টের জয় রিয়ালের

লিগে টানা তিন ম্যাচে জয় পেল রিয়াল মাদ্রিদ। চ্যাম্পিয়নস লিগে ...

জেসুসের গোলে ফেরা, সিটির জয়ে

জেসুসের গোলে ফেরা, সিটির জয়ে

রাশিয়া বিশ্বকাপে ব্রাজিল ভক্তদের হতাশ করেছেন গ্যাব্রিয়েল জেসুস। লিগে ফিরেও ...

মহান বিজয় দিবস আজ

মহান বিজয় দিবস আজ

আজ ১৬ ডিসেম্বর। ৪৮তম মহান বিজয় দিবস। বাঙালি জাতির হাজার ...

সারাদেশে বিএনপির দেড় শতাধিক নেতাকর্মী গ্রেফতার

সারাদেশে বিএনপির দেড় শতাধিক নেতাকর্মী গ্রেফতার

দেশের বিভিন্ন স্থানে বিএনপি-জামায়াতের অন্তত ১৬৭ নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ...

প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর বাড়িতে গিয়ে শুভেচ্ছা বিনিময় বাণিজ্যমন্ত্রীর

প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর বাড়িতে গিয়ে শুভেচ্ছা বিনিময় বাণিজ্যমন্ত্রীর

ভোলা-১ (সদর) আসনের আওয়ামী লীগ প্রার্থী ও বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদের ...