ঢাকা শনিবার, ২৫ মে ২০২৪

জয়পুরহাটে সেনাবাহিনীর টহল জোরদার

জয়পুরহাটে সেনাবাহিনীর টহল জোরদার

মাইকিং করে সবাইকে সচেতন করছে সেনাবাহিনীর টহল দল- সমকাল

জয়পুরহাট প্রতিনিধি

প্রকাশ: ০১ এপ্রিল ২০২০ | ০০:৩৪

করোনাভাইরাসের প্রকোপ বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কায় তা প্রতিরোধে প্রশাসনকে সহায়তা করতে জয়পুরহাটে মাঠ পর্যায়ে টহল জোরদার করেছে সেনাবাহিনী। কয়েকদিন থেকে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রশাসন ও সেনাবাহিনীর সদস্যরা গাড়িবহর নিয়ে টহল দিচ্ছেন।

টহলরত সেনা সদস্যরা গাড়ি থেকে এবং রাস্তায় নেমে হ্যান্ডমাইকযোগে জনসাধারণকে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ থেকে সুরক্ষিত থাকতে বিনা প্রয়োজনে মানুষকে ঘরের বাইরে বের না হওয়া, সাবান দিয়ে বারবার হাত ধোয়া, জীবাণুনাশক বা স্যানিটাইজার ব্যবহারসহ নানা ধরনের সচেতনতামূলক প্রচারণা চালাচ্ছেন। শহরের পাঁচুরমোড়, কালাই বাসস্ট্যান্ড, ক্ষেতলাল থানা মোড় এলাকায় সেনাবাহিনীর টহল দল হ্যান্ডমাইকযোগে এমন প্রচারণা অব্যাহত রেখেছেন।

প্রচারের পাশাপাশি সেনাবাহিনী বিদেশফেরত ব্যক্তিদের কোয়ারিন্টেনে থাকা নিশ্চিত করতে মাঠ পর্যায়ে কাজ করে যাচ্ছেন। সেনাবাহিনীর পাশাপাশি জেলা প্রশাসন, জয়পুরহাট পৌরসভা ও জেলা পরিষদসহ জেলার ৫টি উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা ও পুলিশ প্রশাসন সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে শহরে মাইকিং করছে। এদিকে কয়েকদিন থেকে পুরো জেলাজুড়ে বিপণীকেন্দ্র ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ আছে। ফলে শহরে লোকসমাগম কম। রিকশা-অটোরিকশা চলাচল ছিল সীমিত। দুরপাল্লার গাড়ি চলাচলও বন্ধ।

জয়পুরহাটের জেলা প্রশাসক জাকির হোসেন বলেন, সেনাবাহিনীর সদস্যরা জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে তাদের কাজ শুরু করেছেন। তারা প্রশাসনের সাথে সমন্বয় করে মাঠ পর্যায়ে কাজ করছেন। ইতিমধ্যে সরকারি-বেসরকারি অফিসগুলো এবং গণপরিবহন বন্ধ হয়ে গেছে। জনসাধারণের অবাধ চলাফেরা ঠেকাতে সর্বদা কাজ করবেন সেনাসদস্যরা।

তিনি আরও বলেন, বিদেশফেরত ব্যক্তিদের ১৪ দিন কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করতে স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গে সেনাসদস্যরা কাজ করছেন। বিদেশ ফেরত ব্যক্তিরা আত্মগোপন না করে প্রত্যেককে নিজ নিজ থানায় তথ্য জানাতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কেউ আত্মগোপন করে থাকার বিন্দু পরিমাণ চেষ্টা করলে তাকে খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনা হবে। এছাড়া স্ব স্ব ইউনিয়নের চেয়ারম্যান, সদস্য, পৌরসভার মেয়র, কাউন্সিলরসহ জনপ্রতিনিধিদের কাছ থেকে বিদেশ ফেরত ব্যক্তিদের তথ্য চাওয়া হয়েছে। সেনাবাহিনীর সদস্যরাও ওই সব জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে যোগাযোগ করছেন।

আরও পড়ুন

×