সিরিয়াল কিলার রসু খাঁসহ ৩ জনের মৃত্যুদণ্ড

প্রকাশ: ০৬ মার্চ ২০১৮     আপডেট: ০৬ মার্চ ২০১৮      

চাঁদপুর প্রতিনিধি

চাঁদপুরে পারভীন আক্তার হত্যা মামলায় দেশব্যাপী আলোচিত সিরিয়াল কিলার রসু খাঁসহ (৪৫)তিনজনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। 

মঙ্গলবার দুপুর ১২টায় চাঁদপুরের নারী ও শিশু নির্যাতদন দমন ট্রাইব্যুানালের বিচারক (জেলা জজ) আবদুল মান্নান এ রায় দেন। দণ্ডপ্রাপ্ত অন্যরা হলেন জহিরুল ইসলাম (৩৫) ও মো. ইউনুছ (৩৮)।

রসু খাঁ চাঁদপুর সদর উপজেলার চান্দ্রা ইউনিয়নের মদনা গ্রামের মুন খাঁ ওরফে আবু খাঁর ছেলে, জহিরুল পাশ্ববর্তী ফরিদগঞ্জ উপজেলার গোবিন্দপুর গ্রামের মো. মোস্তাফার ও ইউনুস একই গ্রামের মৃত মিসির আলীর ছেলে। হত্যার শিকার পারভীন আক্তার ফরিদগঞ্জ উপজেলার বালিথুবা ইউনিয়নের পালতালুক গ্রামের আবুল কালামের স্ত্রী। 

মামলার বিবরণ থেকে জানা যায়, ২০০৯ সালের ২০ জুলাই রাত সাড়ে ৮টা থেকে ১০টার মধ্যে রসু খাঁ ও অপর আসামিরা ফরিদগঞ্জ উপজেলার মধ্যহাঁসা গ্রামের নির্জন মাঠে পারভীন আক্তারকে ধর্ষণ ও শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। পরদিন স্থানীয়দের সংবাদের ভিত্তিতে ফরিদগঞ্জ থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মরদেহ উদ্ধার করে। 

ময়না তদন্তের রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়,  নিহত পারভীনের বাম স্তন ও দুই পায়ের উরুতে ২০টি সিগারেটের আগুনের ছ্যাঁকার দাগ ছিলো। লাশের পরিচয় না পাওয়ায় ২০০৯ সালের ২১ জুলাই  ফরিদগঞ্জ থানার তৎকালীন উপপরিদর্শক (এসআই) মীর কাশেম আলী বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন।

মামলার বিবরণে আরও জানা যায়, সদর উপজেলার মদনা গ্রামের ছিঁচকে চোর রসু খাঁ ভালবাসায় পরাস্ত হয়ে এক সময় সিরিয়াল কিলারে পরিনত হয়। ২০০৯ সালের ৭ অক্টোবর ফরিদগঞ্জ উপজেলার গাজীপুর বাজার উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন মসজিদের ফ্যান চুরির ঘটনায় পুলিশের হাতে ধরা পড়ার পর এক এক করে তার লোমহর্ষক হত্যাকাণ্ডের চিত্র বেরিয়ে আসে। নিজের মুখে স্বীকার করে ১১ নারী হত্যার কথা। পরে তাকে এবং সহযোগী দুইজনকে পারভীন হত্যা মামলায় আসামি করা হয়। 

রসুকে আটকের আড়াই মাস আগে পারভীনকে হত্যা করা হয় বলে জানায় সে। তার টার্গেট ছিল ১০১টি হত্যাকাণ্ড ঘটানোর। রসু যাদের হত্যা করেছে তারা সবাই ছিলেন গার্মেন্টসকর্মী। 

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপপরিদর্শক (এসআই) মোশফিকুর রহমান তদন্ত শেষে একই বছরের ১৩ ডিসেম্বর আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। 

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুন্যালের  পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাড. হাবিবুল ইসলাম তালুকদার জানান, মামলাটি দীর্ঘ ৯ বছর চলমান থাকা অবস্থায় আদালত ১৭ জনের স্বাক্ষ্য গ্রহণ করেন এবং আসামিরা তাদের অপরাধ স্বীকার করায় আদালত নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ এর  (৯) এর ৩ ধারা এবং দন্ডবিধি ৩০২/৩৪ ধারায় এই রায় প্রদান করেন। রসুখাঁর বিরুদ্ধে এই মামলা ছাড়াও আদালতে আরও ৭টি মামলা আছে।


আরও পড়ুন

নির্বাচনকে ঘিরে মত প্রকাশের অধিকার হুমকিতে

নির্বাচনকে ঘিরে মত প্রকাশের অধিকার হুমকিতে

নির্বাচনকে ঘিরে বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের গ্রেফতার ও ভয় দেখিয়ে বাংলাদেশের ...

নারায়ণগঞ্জে চার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে আটক ১৭২

নারায়ণগঞ্জে চার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে আটক ১৭২

নারায়ণগঞ্জে চারটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পুলিশের সাঁড়াশি অভিযানে নির্বাচনে নাশকতার পরিকল্পনার ...

নির্বাচনী প্রচারে প্রধানমন্ত্রী সিলেট যাচ্ছেন বুধবার

নির্বাচনী প্রচারে প্রধানমন্ত্রী সিলেট যাচ্ছেন বুধবার

নির্বাচনী প্রচারে অংশ নিতে আগামী ১৯ ডিসেম্বর (বুধবার) সিলেট আসছেন ...

'বাংলাদেশে গণতন্ত্র ও অগ্রগতিতে হুমকি জামায়াত'

'বাংলাদেশে গণতন্ত্র ও অগ্রগতিতে হুমকি জামায়াত'

বাংলাদেশের গণতন্ত্র ও অগ্রগতির ক্ষেত্রে মৌলবাদী জামায়াতে ইসলামী একটি হুমকি। ...

ড. কামালের ওপর হামলার বিষয়ে অবহিত নয় ইসি: সচিব

ড. কামালের ওপর হামলার বিষয়ে অবহিত নয় ইসি: সচিব

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেনের ওপর হামলার বিষয়ে ...

বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে হামলা মেনে নেওয়া যায় না: ড. কামাল

বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে হামলা মেনে নেওয়া যায় না: ড. কামাল

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন বলেছেন, 'শহীদ ...

সরকারের নির্দেশেই ঐক্যফ্রন্ট নেতাদের গাড়িবহরে হামলা: রিজভী

সরকারের নির্দেশেই ঐক্যফ্রন্ট নেতাদের গাড়িবহরে হামলা: রিজভী

সরকারের নির্দেশেই জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রধান ড. কামাল হোসেনসহ অন্য নেতাদের ...

নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ করে অস্বাভাবিক সরকার আনার পাঁয়তারা: ইনু

নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ করে অস্বাভাবিক সরকার আনার পাঁয়তারা: ইনু

জাসদ সভাপতি ও তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, বিএনপি, জামায়াত ...